• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

যদি কুকুরজীবন পেতাম

image_102334_0শাহ মুহাম্মদ মোশাহিদ: অবশ্যই মানব জীবনের চেয়ে কুকুরজীবন উত্তম। তবে দেশীয় নেড়ি কুত্তা নয়। চাই বিদেশী কুকুরজীন। যাকে বলে এডোরেবল ডগ। অর্থাৎ অতি আদরের পোষা কুকুর।

মানব জীবনে একত্রিশ বছর পাড়ি দিয়ে কী অর্জন হলো?

অর্জনের খাতা শূন্য। কেবল নাকের ভেতর অক্সিজেন ঢুকছে, আর পেটের অলি গলি ঘুরে কার্বনডাই অক্সাইড হয়ে বের হচ্ছে। এ তিরিশ বছরে পৃথিবী থেকে নিয়েছি বেঁচে থাকার অক্সিজেন। আর পৃথিবীর বাতাসে অকাতরে বিলিয়েছি মরণবিষ কার্বন ডাই অক্সাইড। অবশ্য সবুজ বৃক্ষরাজিরা এ বিষয়ে উদার। এরা আমাদের নাসিকা হতে নির্গত বিষগুলোকে বিপুল উৎসাহে গ্রহণ করছে। তাই মাঝে মাঝে ইচ্ছে হয় বৃক্ষজীবনে রুপান্তর হয়ে যাই।

তাতেও সমস্যা, তখন দেখা যাবে রাস্তার পাশে  আমি একা দাঁড়িয়ে আছি বৃক্ষ হয়ে। নট নরন চরন। একটু বাতাস এলে দু একটি পাতা নাড়ানো যাবে। ঝড় বয়ে গেলে অকুল পাথার লাফালাফিও করা যাবে। তবে অলুক্ষণে ঝড়ে শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গগুলো ভেঙে পড়তে পারে। তা ভাঙুক।  বৃক্ষ জীবনের একটা সুবিধা হলো ডাল, ডানা ভেঙে গেলে নতুন করে গজায়। আর সবচেয়ে বড় অসুবিধা হলো, যখন তখন নেড়ি কুত্তারা এসে গাছের সামনে ঠ্যাঙ তুলে হিসি করে দেয়।

বৃক্ষজীবনের চেয়ে কুকুর জীবন উত্তম। তবে অবশ্যই নেড়ি কুত্তার জীবন নয়। কুকুরজীবন কেন উত্তম, এর জন্য বিষদ ব্যাখ্যার প্রয়োজন হবে না। আমরা সবাই জানি আমেরিকা, বৃটেনের মতো দেশে একটা মানুষের চেয়ে একটা কুত্তার, দুঃখিত একজন কুকুরের জীবনের মূল্য বেশি।

আমাদের দেশে অবশ্য মানুষ বা নেড়ি কুত্তা কোনোটারই মূল্য নেই। নেড়ি কুত্তাগুলো অলি গলি ঘুরে উচ্ছিস্ট খুঁজে। কখনো পায়, কখনো কুঁ কুঁ করতে করতে অন্য গলিতে হারিয়ে যায়। আর আমাদের মানুষগুলো অমানুষদের পায়ে পায়ে জীবিকা খুঁজে। কখনো পায়, কখনো ভোগতে ভোগতে পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়।

বৃটেন, আমেরিকার মানুষদের কথা আলাদা। তাদের জীবন আলাদা, চলন আলাদা। অবশ্য এখন যে যুগ পড়েছে, ওদের ভেতরও হয়তো অনেক মানুষই আমার মতো কুকুরজীবন কামনা করছেন। কারণ কিছুদিন আগে পত্রিকায় দেখেছিলাম, আমেরিকায় নাকি মাত্র ৪০০ লোকের হাতে সম্পদের একটা বড় অংশ। এ ৪০০ লোক নিশ্চয়ই সাধারণ মানুষের কাতারে পরেন না। এরা পুঁজিপতি অতি মানুষ। সংক্ষেপে বললে অ.মানুষ। আরো সহজ করে বলা যায় অমানুষ। এই অমানুষদের তালিকায় বিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে আছেন মাইক্রোসফট কোম্পানীর মালিক বিল গেটস। তিনি অমানুষ হয়েও সারা বিশ্বের মানুষের জন্য অনেক কিছুই অকাতরে বিলিয়েছেন। তারপরও নিন্দুক গণমাধ্যমগুলো লিখেছে আমেরিকার ৪০০ অমানুষদের দানের হাত নাকি খুবই খাটো।

আর তাদের এ খাটো হাতের কারণেই সম্ভবত সমাজে দেখা দিচ্ছে ভারসাম্যহীনতা। কেউ থাকছে দশ তলায়। কেউ গাছ তলায়। তবে যারা দশ তলায় থাকছেন, এমন লোকেরাই কুকুরের প্রতি বেশি আসক্ত। এ কারণে আমিও  মানবজীবন সাঙ্গ করে কুকুজীবনের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েছি।

এখনো যারা আমার ইচ্ছাটাকে স্রেফ পাগলামি ভাবছেন, পুরো ঘটনাটা খুলে বললে তারাও  হয়তো কুকুরজীবনই কামনা করবেন। ঘটনাটা জানতে পেরেছি ডেইলি মেইল নামের একটি সংবাদমাধ্যম থেকে। ওখানে রসিয়ে রসিয়ে বর্ণনা করা হয়েছে একটা কুকুরের অপার সুখের কাহিনী।

বৃটেনের এক ভদ্রমহিলার ঘরে দুই রকমের প্রাণী আছে। একটি তার নয় বছরের ছেলে উইলিয়াম। আর অপরজন তার অতি আদরের কুকুর। কেলি রস নামের এ মহিলা নিজের সন্তানকে সন্তানের মতোই মনে করেন। তবে আদরের কুকুরকে মনে করেন তারচেয়েও বেশি কিছু। সেই বেশি কিছুটা কী?

আমরা তো তৃতীয় বিশ্বের মানব, এখনো পড়ে আছি সেই যুগে। যুগ যে আধুনিকতার চাকায় চড়ে কতটা এগিয়ে গেছে, তার দিশবিশ নেই। আমাদের দেশে মুখ ভরে বলা হয়, মায়ের ভালোবাসার চেয়ে সেরা ভালোবাসা কিছুই হতে পারে না। মা এবং সন্তানের বন্ধনের চেয়ে সেরা বন্ধন পৃথিবীতে নেই।

আমি যদি বলি, সন্তানের প্রতি মায়ের ভালোবাসার চেয়ে কুকুরের প্রতি মায়ের আহ্লাদ বেশি।

অমনি ছি ছি করে উঠবেন অনেকে। আরে তৃতীয় বিশ্বের মানব কি করে বুঝবে কুকুরের মর্ম!

যারা বুঝছেন, তারা সেই কেলি রসদের মতো আধুনিক মহিলা। তার কাছে ছেলে উইলিয়ামের চেয়ে কুকুরের গুরুত্ব বেশি। আমি ওটাকে ¯্রফে কুকুর বলে সম্বোধন করছি জানতে পারলে বেচারি উইলিয়াম হয়তো তেড়ে আসতে পারেন। তিনি ওটার নাম রেখেছেন ম্যাটিলডা।

এই ম্যাটিলডা সাহেব সারাক্ষণ ভদ্রমহিলার সাথেই থাকেন। তিনি অফিসে গেলে পেছন পেছন ম্যাটিলডা সাহেবও যান। কাজের সময় ডেস্কের নিচে ঘাপটি মেরে বসে থাকেন। আর সুযোগ পেলে মহিলার পায়ে আঁচড়া আঁচড়ি করে একটু বিনোদন দেন। তিনি ক্লান্ত হয়ে এলে ম্যাটিলডা সাহেব শরীরের সাথে ল্যাপ্টাল্যাপ্টি করে ম্যাসেজ করে দেন।

 
রাতে তিনি ঘুমান কেলি রসের সাথেই। ইচ্ছে হলে খুঁচাখুঁচি করেন। রসের ঘাড়ে ওঠে বসেন। চুমু দেন। এ নিয়ে রসের আহ্লাদের শেষ নেই। তিনি আহ্লাদে গড়াগড়ি খেতে খেতে বলেন, যখন ও আমার ঘাড়ের সাথে ঘেঁষে আসে, তখন আমি ওর নাকের ঠান্ডাটা ভীষণভাবে অনুভব করি। একদিকে আমার কানের গরম, অন্য দিকে ওর ভেজা নাক। ওহ, কি অসাধারণ আনন্দ। অসাধারণ পুলক। আসলে না, ও আমার কাছে মানুষের মতোই ভালোবাসা চায়। আদিখ্যেতা করে। আমিও ওর কোনো চাওয়া অপূর্ণ রাখি না। যা চায় সবই দিই।

ম্যাটিলডা সাহেবের চাওয়া পূর্ণ করতে করতে ওদিকে রসের ছেলে উইলিয়ামের অবস্থা খারাপ। উইলিয়াম বেচারা মায়ের নাগালই পায় না। মা শুধু সারাদিন ওই ম্যাটিলডা সাহেবের পেছন ছুটাছুটি করেন। ওকে সকালে ডেকে না দিয়ে ম্যাটিলডা সাহেবকে ডাকেন। মায়ের ডাক না পেয়ে ঘুম থেকে উঠতে দেরি হয় উইলিয়ামের। এতে আবার অগোছালো ছেলে বলে বকাঝকা করেন উইলিয়ামকে।

বেচারা উইলিয়ামের বড় বড় চোখে তাকিয়ে দেখা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। সে দেখে তার মা কুকুর ম্যাটিলডা সাহেবকে অন্য বন্ধুকুকুরদের সাথে খেলতে নিয়ে যান, ওনাকে নিয়ে রেস্টুরেন্টে খেতে যান। নতুন পোশাক আশাকও কিনে দেন। যদিও ম্যাটিলডা সাহেব  ন্যাংটো থাকতেই পছন্দ করেন।
কিন্তু উইলিয়ামের মা অনেক সময়ই তাকে আদর করে পোশাক পড়িয়ে দেন। এতে মাঝে মধ্যেই খেপে যান সাহেব। অবশ্য সাহেবের এই খেপে যাওয়াটাও কেলি রসের পছন্দ। তিনি বলেন, ও যা করে সবই নিয়ম করে করে। খেপে গেলেও নিয়ম করে খেপে। আমার সাথে ঘেউ ঘেউ করে মেজাজ দেখায়। আর যখন ও আহ্লাদ করে সেটাও নিয়ম করে।

কুকুর ম্যাটিলডা সাহেবের আহ্লাদে আটখানা কেলি রসের ছেলে উইলিয়ামের সাথে অতটা আহ্লাদ করার সময় হয় না। তবে মাঝে মাঝে যখন মনে হয় উইলিয়াম ম্যাটিলডা সাহেবকে ইর্ষা করছে, তখনই কেবল সাহেবের কাছ থেকে একটু সময় চেয়ে নিয়ে ছেলেকে সঙ্গ দেন।

আর কেনই বা এত সময় ছেলের পেছনে ব্যয় করবেন?

ছেলে উইলিয়াম কি কুকুর ম্যাটিলডা সাহেবের মতো এতোটা ভদ্র? উইলিয়াম তো সারা ঘরে এলোমেলো ঘুরে বেড়ায়। জামা কাপড় নোংরা করে, স্কুলের হোমওয়ার্ক ঠিকমতো করে না। অনেক ক্ষেত্রেই মায়ের কথা শুনে না। আর কথা শুনে না বলেই ছেলের সাথে তিনি খ্যাঁচ খ্যাঁচ করেন।

অন্য দিকে ম্যাটিলডা সাহেব মোটেও এলোমেলো হাঁটেন না। তিনি যখন হাঁটেন এর ভেতর ছন্দ খুঁজে পান রস। তিনি যখন রান্না ঘরের থালা-বাসনে মুখ লাগান, তখন রসের মনে হয় বাসনগুলোতে যেনো সোনার ছুঁয়া লেগেছে। তিনি যা কিছু করেন সবই গুছিয়ে করেন।  আর গুছিয়ে কাজ করা ম্যাটিলডা সাহেবকে তিনি পুরস্কার হিসাবে চুমো এঁকে দেন।

এ তো গেলো এ যুগের  মা কেলি রস, তার সন্তানের চেয়েও বেশি ম্যাটিলডা সাহেব এবং ভালোবাসার কাঙাল উইলিয়ামের কথা।

আমেরিকা, বৃটেনে এমন অনেক উইলিয়ামরাই বেড়ে উঠছে ভালোবাসার কাঙাল হয়ে। আর তাদের পাওনা ভালোবাসাটা পাচ্ছেন ম্যাটিলডা সাহেবরাই।

সুতরাং চলুন মানব জীবন সাঙ্গ করে কুকুরজীবনের ম্যাটিলডা সাহেব হয়ে যাই। উৎস: নতুন বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ