• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

নাগেশ্বরী সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের কার্যক্রম শুরু হয় সন্ধ্যায়

Kurigramনাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: নাগেশ্বরীতে অফিসের দিন সাব-রেজিষ্ট্রার দেরিতে আসায় রাত পর্যন্ত চলে অফিসের দাপ্তরিক কার্যক্রম। তাই অতিরিক্ত ফি‘তে রাতে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে পার হয় শতাধিক দলিল। ক্রেতা-বিক্রেতাদের দুর্ভোগ চরমে।
জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও টাকার বিনিময়ে মুজিব নগর কর্মচারী ফাইলে চাকরি নেয়া সাব-রেজিষ্ট্রার মিজানুর রহমানের বাড়ী নাগেশ্বরী সদর থেকে প্রায় ১২ কি.মি দুরে পাশ্ববর্তী উপজেলা ভূরুঙ্গামারীর জয়মনির হাট হলেও অফিসে আসেন বিকেল ৩ টায়। সন্ধ্যায় শুরু করেন অফিসের কার্যক্রম। রাত যত গভীর হয় তত জমে উঠে এ অফিস। বাড়তে থাকে লোকের ভিড়। বৈদ্যুতিক আলোয় অনেক রাত পর্যন্ত চলে ভূয়া খাজনা, খারিজে দলিলের কাজ। বিনিময়ে ক্রেতা-বিক্রেতাকে দলিল প্রতি খাজনা বাবদ ১ হাজার, খারিজ ১ হাজার, পে-অর্ডার ১ শত, লেট ফি ২ শত, টিপ সহি ৭০, থাম বই থাকার পরেও দুই এর অধিক দাতা হলে প্রতি টিপ সহি বাবদ ১ শত ও সঠিক কাগজ থাকলেও কাগজ বাবদ ৫ শত এবং সই বাবদ ৫ শত টাকা গ্রহন করা হয়। এছাড়া ক্রেতার সাথে যোগ সাজশ করে সরকারকে রাজস্ব ফাকি দিতে সব সময় দলিলে কম টাকা উল্লেখ করা হয়। সম্প্রতি একটি জমি ২৫ লক্ষ টাকায় বেচা-কেনা হলেও দলিলে ৭ লক্ষ টাকা উল্লেখ করে পার করা হয়। শুধু তাই নয় সরকার কমিশন ফি ৩ শত টাকা নির্ধারন করলেও দলিল প্রতি ৩-৫ হাজার টাকা গ্রহন করা হয়। এভাবে দৈনন্দিন অফিস শেষে দলিল লেখক সমিতি ও অফিস সহকারির মাধ্যমে প্রায় লক্ষাধিক টাকা চলে যায় সাব-রেজিষ্ট্রারের পকেটে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭ টায় গিয়ে দেখা গেছে জনাকীর্ন এস.আর অফিসে দলিল রেজিষ্ট্রির কাজ চলছে। জানতে চাইলে সাব-রেজিষ্ট্রার মিজানুর রহমান কোন উত্তর দেননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ