• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন |

কুষ্ঠরোগ গবেষণায় বাংলাদেশের অবদান

kustoসিসি নিউজ: কুষ্ঠরোগের গবেষণার মধ্য দিয়ে এ রোগের চিকিৎসায় বাংলাদেশ বিশেষ অবদান রেখেছে।

নেদারল্যান্ডসের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক জন হেনড্রিক রিচার্ডাস নীলফামারীর ‘লেপ্রসি মিশন ইন্টারন্যাশনাল’ এর ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, ‘কুষ্ঠ রোগের ওপর ৬০টি আন্তর্জাতিক মানের গবেষণা এবং ৬টি ডক্টরেট থিসিসের মধ্য দিয়ে বিশ্বব্যাপী এই রোগের গবেষণায় বাংলাদেশ ‘সাড়া জাগানোর’ মতো অবদান রেখেছে।

নেদারল্যান্ডসের ইউনিভার্সিটি মেডিকেল সেন্টার রটারডাম-এর অধ্যাপক জন হেনড্রিক রিচার্ডাস নীলফামারীর লেপ্রসি ইন্টারন্যাশনাল মিশনের প্রতিষ্ঠাকালীন পরিচালক ছিলেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) সংজ্ঞা অনুযায়ী, কোনো দেশে কুষ্ঠরোগীর সংখ্যা প্রতি দশ হাজারে একজনের নিচে নেমে এলে দেশটিকে ‘কুষ্ঠরোগ মুক্ত’ ঘোষণা করা যায়। সেই হিসেবে ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ ‘কুষ্ঠরোগ মুক্ত’ দেশের তালিকায় এলেও এখনো প্রতিবছর পাঁচ হাজারের বেশি বাংলাদেশি এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।

শতাব্দী পুরনো কুষ্ঠরোগ প্রতিরোধ আইনটি ২০১১ সালে সংশোধন করে বাংলাদেশ সরকার। পুরনো আইনে কুষ্ঠ রোগে আক্রান্তদের বাধ্যতামূলক সরকারি পুনর্বাসন কেন্দ্রে পাঠানো হতো। এর বদলে বর্তমান আইনে রোগীদের সব ধরনের সহযোগিতার বিষয়টি নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

ডেনিস-বাংলাদেশ লেপ্রসি মিশনের উদ্যোগে নীলফামারিতে কুষ্ঠ নিয়ে মাঠ পর্যায়ের গবেষণা শুরু হয় ১৯৯৪ সালে। কুষ্ঠ রোগীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় সে সময় এ জেলাকেই গবেষণার জন্য বেছে নেয়া হয়।

কুষ্ঠ নিরাময়ের এই কেন্দ্রটি ধীরে ধীরে এ রোগ নিয়ে গবেষণার একটি ‘তীর্থক্ষেত্র’ হয়ে ওঠে। কুষ্ঠরোগীদের নিয়মিত চিকিৎসা দেয়ার পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ের গবেষণায় এই কেন্দ্রের কর্মীদের নিষ্ঠাই এর মূল কারণ।

উত্তরাঞ্চলের সব জেলার কুষ্ঠরোগীদের জন্যই এ কেন্দ্র কাজ করে যাচ্ছে। উত্তরের জেলাগুলোর মধ্যে গাইবান্ধায় কুষ্ঠরোগীর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

লেপ্রসি ইন্টারন্যাশনাল মিশনের প্রতিষ্ঠাকালীন পরিচালক রিচার্ডাস বলেন, কুষ্ঠরোগ সনাক্ত, চিকিৎসা ও নিরাময়ের ক্ষেত্রে  স্নায়ুবৈকল্যের যোগাযোগ খুঁজে বের করার বিষয়টি এ কেন্দ্রের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

কুষ্ঠ নিরাময়ে ‘কর্টিকস্টেরয়েড’ ব্যবহারের সম্ভাবনা ও সীমাবদ্ধতার বিষয়গুলোও ওই গবেষণার মাধ্যমেই উঠে আসে।

‘বাংলাদেশ অ্যাকিউট নার্ভ ড্যামেজ স্টাডি’ শীর্ষক ওই গবেষণাকে কুষ্ঠ রোগের চিকিৎসায় একটি মাইলফলক হিসাবেও উল্লেখ করেন তিনি।

‘এখানে আমরা এ বিষয়ে প্রচুর তথ্য ও প্রমাণ সংগ্রহ করতে পেরেছি। এর ফলে কেবল বাংলাদেশে নয়, বিশ্বব্যাপী কুষ্ঠ প্রতিরোধে নতুন দিক-নির্দেশনা ও কৌশল প্রণয়ন সম্ভব হয়েছে।’

এই বিশেষজ্ঞ বলেন, কুষ্ঠরোগের জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া কীভাবে সংক্রমিত হয়- তা নিয়ে গবেষণাও এই কেন্দ্রের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

‘পৃথিবীর অল্প কিছু কেন্দ্রের মধ্যে নীলফামারীর এই কেন্দ্র একটি যেখানে কুষ্ঠ গবেষণায় এতো বড় পরিসরে কাজ করা সম্ভব হয়েছে।’

বিশ্বের ইতিহাসে কুষ্ঠ নিরাময় ছিল অন্যতম একটি কঠিন কাজ। দীর্ঘ দিনের চেষ্টায় ১৯৮০ এর দশকে ‘মাল্টি ড্রাগ থেরাপি’ উদ্ভাবনের পর এ রোগের বিরুদ্ধে মানুষ জয়ী হতে থাকে।

কুষ্ঠ নিরাময় ও নির্মূলে গবেষণা ও সচেতনতামূলক প্রচার অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে জন হেনড্রিক রিচার্ডাস বলেন, ‘কুষ্ঠরোগীর সংখ্যা গত ১০ কিংবা ২০ বছরের তুলনায় এখন অনেক কমেছে। কিন্তু এ নিয়ে যদি আমরা আর কাজ না করি, তাহলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে না।’

বর্তমান বিশ্বে একমাত্র ব্রাজিলই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘কুষ্ঠমুক্ত দেশ এর তালিকার বাইরে রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ