• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন |

ভারত থেকে চোরাইপথে আসছে অস্ত্র

image_102679_0.gifসিসি নিউজ: ভারত থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ তার পার্শ্ববর্তী সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র বাংলাদেশে আসছে। রাজধানীতে ১৫টি গ্রুপ এসব অবৈধ অস্ত্র কেনা-বেচার কাজ করছে। তাদের মধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্যও রয়েছে। সম্প্রতি সন্ত্রাসীদের বিভিন্ন সহিংস ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ এ তথ্য পেয়েছে।

রোববার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম। শনিবার রাতে ডিবির হাতে আটক হওয়া তিন ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এসব তথ্য জেনেছেন বলে তিনি সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন।

মনিরুল ইসলাম বলেন, “গত সেপ্টেম্বরে চারটি অস্ত্রসহ এক অস্ত্র ব্যবসায়ীকে  গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্যে জানা যায়, ভারত থেকে একটি পাচারকারী চক্র চাপাইনবাবগঞ্জ হয়ে রাজধানীতে অবৈধ কায়দায় অস্ত্র পাচার করতো।”

তিনি জানান, গত আগস্টে রাজধানীর বেশ কিছু এলাকায় গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনাগুলোতে অনেক লোকের প্রাণহানিও হয়েছে। ছিনতাই, চাঁদাবাজি, দখলদারিত্ব ইত্যাদি কাজে এসব গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছিলো। এসব ঘটনায় অবৈধ অস্ত্রধারীদের ধরতে মাঠে নামে পুলিশ।

ডিবি কর্মকর্তা মনিরুল বলেন, শনিবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাজধানীর দারুস সালাম থানার কল্যাণপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন কামাল হোসেন (৩৬), রুহুল আমিন (৩০) ও মনিরুজ্জামান শিমুল (৩৯)। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি  প্রাইভেটকার, পাঁচটি বিদেশি পিস্তল, আটটি ম্যাগজিন ও ২৪টি গুলি উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে শিমুল চাপাইনবাবগঞ্জ থেকে অস্ত্র নিয়ে ঢাকায় আসতো। গ্রেফতার হওয়া কামাল ও আমিনকে অস্ত্র ও গুলি সরবরাহ করার সময় হাতে-নাতে গ্রেফতার করা হয়। তাদের থেকে তথ্য নিয়ে অবৈধ অস্ত্রব্যবসায়ীদের গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা করছে বলে জানান মনিরুল।

এদিকে শনিবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশের পশ্চিম বিভাগ রাজধানীর আজিমপুরের শহীদ মাজারের সামনের একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে চার ডাকাত সর্দারসহ চারজনকে আটক করে। তারা হলেন ডাকাত সরদার জুলহাস আকন (৪৮), সদস্য আব্দুস সাত্তার (৪৫), রকি হোসেন (৩২) ও এমদাদ হোসেন (৩০)। তারা বাসাবোর একটি বাসায় ডাকাতির পরিকল্পনা করছিল বলে দাবি করেন মনিরুল।

সংবাদ সম্মেলনে মনিরুল জানান, গ্রেফতারকৃত ডাকাত দলের সর্দার জুলহাস এর আগে ১২ বছর জেলে ছিলেন। কিছুদিন আগে তিনি বের হন। রকি ও সাত্তার ছয় বছর এবং এমদাদ দুই বছর জেল খেটে কিছুদিন আগে বের হয়েছেন।

গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে দারুস সালাম ও লালবাগ থানায় অস্ত্র আইনে দুটি মামলা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে ছিলেন ডিবি’র উপ-কমিশনার (দক্ষিন) কৃষ্ণপদ রায়, উপ-কমিশনার (পূর্ব) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর এবং  উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মো. মাসুদুর রহমান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ