• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

চীনে কমিউনিস্ট পার্টির পূর্ণাঙ্গ বৈঠক শুরু

comumstআন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাজধানী বেইজিংয়ে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের পূর্ণাঙ্গ বৈঠক শুরু হয়েছে। বৈঠকে এবার এজেন্ডা হিসেবে রাখা হয়েছে আইনের শাসন ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের মতো বিষয়গুলোকে। চীনের রাজনীতিতে এ বৈঠককেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যসংখ্যা প্রায় ৯ কোটি, কিন্তু দলের কেন্দ্রীয় কমিটির হাতেই সব ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত। সোমবার শুরু হওয়া এ বৈঠকে ২০৫ সদস্যের চীনা কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির বার্ষিক অধিবেশন। পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে প্রায়ই রাজনৈতিক সংস্কারের মাইলফলক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। চীনে বিবিসির প্রধান সম্পাদক ক্যারি গ্রেসি বলেন, এবারের বৈঠকে কমিউনিস্ট পার্টির নেতা এবং দেশের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের গৃহীত রাজনৈতিক কর্মসূচিগুলোকেই প্রধানত অনুমোদন করা হবে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা। রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সিনহুয়া জানায়, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার খসড়া বিষয়গুলো নিয়েই সদস্যরা বার্ষিক অধিবেশনে আলোচনা করবেন।
এদিকে গত মাসে অনুষ্ঠিত কমিটির পলিট ব্যুরোর সদস্যদের সভার পর কমিউনিস্ট পার্টি আইনের শাসনের গুরুত্ব নিয়ে বক্তব্য প্রদান করে। এর মাধ্যমেই সব দিক দিয়ে একটি উজ্জ্বল সম্ভাবনাময় সমাজ গড়ে তোলা যাবে বলে তারা মত প্রকাশ করেন। ২০১৩ সালে প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকেই দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণকে নিজের প্রধান কর্মসূচিতে পরিণত করেন শি। ওই সময় অনুষ্ঠিত কমিউনিস্ট পার্টির পূর্ণাঙ্গ বৈঠক থেকে পরবর্তী দশকে চীনের অর্থনীতিকে ত্রুটিমুক্ত করতে ধারাবাহিক সংস্কারের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। ওই বৈঠকের পর চীনা নেতারা দেশটির অর্থনীতিতে মুক্ত বাজার আরও ভূমিকা পালন করবে বলে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। তবে রাষ্ট্রীয় মালিকানাকে অর্থনীতির মূল স্তম্ভ হিসেবেই রেখে দেয়া হয়েছে। প্রতি ৫ বছর পর পর চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এর মধ্যে পূর্ণাঙ্গ বৈঠক বছরে এক বা দুইবার অনুষ্ঠিত হয়। সুত্র: বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ