• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন |

রংপুরে জামায়াত নেতার অ্যাকাউন্টে অস্বাভাবিক লেনদেন নিয়ে তোলপাড়

Takaসিসি নিউজ : রংপুর মডেল কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জামায়াত নেতা মোখলেছুর রহমানের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে দুই বছরে এক কোটি টাকার লেনদেন নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় চলছে। শুধু তাই নয়, প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা ও কলেজের অধ্যক্ষের নামে কলেজ অ্যাকাউন্ট থাকলেও তিনি ওই অ্যাকাউন্ট থেকে নিজের চেক দিয়ে ২৪ লাখ টাকা উত্তোলন করেছেন। টাকাগুলো সারদা কিংবা তৃণমূল কেলেংকারির টাকা কিনা তা খতিয়ে দেখতে গোয়েন্দা বিভাগসহ বিভিন্ন মহল তৎপর হয়ে উঠেছে। দুদকও নেমেছে অনুসন্ধানে।
অগ্রণী ব্যাংক, রংপুর আঞ্চলিক দুদক কার্যালয়, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা এবং সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মডেল কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কারমাইকেল কলেজের ওসমানী হলের সাবেক শিবির সভাপতি বর্তমানে জামায়াত নেতা মোখলেছুর রহমানের অগ্রণী ব্যাংক রংপুর ক্যাডেট কলেজ শাখায় ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট নম্বর ১০০০২৫৬৬৩ তে গত ১ জানুয়ারি ২০১২ থেকে ২২ জুন ২০১৪ পর্যন্ত সময়ে সর্বমোট ৫২ লাখ সাত হাজার ৫৭৯ টাকা জমা হয়েছে।
এরমধ্যে ৩১ ডিসেম্বর ১২ পর্যন্ত ৩৫ লাখ ৬৬ হাজার ৪২৩ টাকা, ২০১৩ সালের ২১ জানুয়ারি এক লাখ ৭০ হাজার, ১০ ফেব্রুয়ারি ৭০ হাজার, ১০ মার্চ এক লাখ ৩৭ হাজার, ১৫ মে এক লাখ ২০ হাজার, ২৭ মে দুই লাখ, ১৭ জুন ৫০ হাজার, ৪ আগস্ট ৭৫ হাজার, ১৮ নভেম্বর এক লাখ ১৬ হাজার , ২০১৪ সালের ১৬ মার্চ এক লাখ ৫০ হাজার, ৮ মে এক লাখ ৫০ হাজার এবং ১৮ মে দুই লাখ ৪৫ হাজার টাকা। সবগুলো টাকাই নগদ জমা হয়েছে মোখলেছুর রহমানের অ্যাকাউন্টে।
অন্যদিকে এই জামায়াত নেতা মোখলেছুর রহমান ৪ জুলাই ২০১২ থেকে ৯ এপ্রিল ২০১৪ পর্যন্ত সময়ে তার কর্মস্থল রংপুর মডেল কলেজের অ্যাকাউন্ট নম্বর ২০০১০৫৪৩ (অগ্রণী ব্যাংক, ক্যাডেট কলেজ শাখা, রংপুর) থেকে নিজ নামে ২৪ লাখ ১০ হাজার ৩১৮ টাকা উত্তোলন করেন।
এরমধ্যে ২০১২ সালের ৪ জুলাই চেক নং ০৩সি/৫৭৪০০৫১ এর মাধ্যমে ৮৯ হাজার ৯২, একই দিনে ০৩সি/৫৭৪০০৫০ চেকের মাধ্যমে ৪৬ হাজার ৬৯, ৩০ জুলাই ০৩সি/৫৭৪০০৫৪ চেকের মাধ্যমে দুই লাখ চার হাজার ৩৩৮, ২০১৩ সালের ১৫ মে ০২সি/০৪৮০২৩৯ চেকের মাধ্যমে তিন লাখ ১৬ হাজার ৭২৩, ১৭ জুন ০২সি/০৪৮০৮৮১ চেকের মাধ্যমে এক লাখ ৫৩ হাজার ৭২০, ১৪ জুলাই ০২সি/০৪৮০৮৮৩ চেকের মাধ্যমে এক লাখ ৯৯ হাজার ৫৫৫, ৪ আগস্ট ০২সি/০৪৮০৮৮৪ চেকের মাধ্যমে তিন লাখ ৫২ হাজার ৭১ , ২৫ আগস্ট ০২সি/০৪৮০৮৮৬ চেকের মাধ্যমে এক লাখ ৫৯ হাজার ২৪২ টাকা, ১ অক্টোবর ০২সি/০৪৮০৮৮৮ চেকের মাধ্যমে ৭৭ হাজার ২৩৬, ২০১৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ০৩সি/৬৪৯৯১০৩ চেকের মাধ্যমে তিন লাখ ৫৩ হাজার ৯৩৮ টাকা, ১ এপ্রিল ০৩সি/৬৪৯৯১০৪ চেকের মাধ্যমে এক লাখ ২০ হাজার এবং ৯ এপ্রিল ০৩সি/৬৪৯৯১০৫ চেকের মাধ্যমে তিন লাখ ৩৮ হাজার ৩৩৪ টাকা উত্তোলন করেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, মডেল কলেজের একাউন্ট নম্বরটি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুর রউফ ও সভাপতি এলজিআরইডি প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গার নামে গত ১৫ জুন ২০১১ সালে অগ্রণী ব্যাংক ক্যাডেট কলেজ শাখায় খোলা হয়।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, পরবর্তীতে অধ্যক্ষকে ব্লাকমেইল করে মোখলেছুর রহমান অধ্যক্ষের নাম বাদ দিয়ে নিজ নামে হিসাব নম্বরটি পরিচালনা শুরু করেন।
এর মাধ্যমে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষা অধিদফতরের সব বিধিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করেছেন এই শিক্ষক। এভাবে একটি কলেজের অ্যাকাউন্ট পারিচালনা কোনো নিয়মই নেই বলে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, এই বিপুল পরিমাণ টাকা কিভাবে তার কাছে এলো এবং তা কিভাবে ব্যয় হয়েছে এ নিয়ে গোয়েন্দা শাখা গুলো তৎপর হয়ে উঠেছে।
জানা গেছে, মিঠাপুকুর পীরগাছা, সুন্দরগঞ্জ, জলঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় ৫ জানুয়ারির আগে জামায়াত শিবিরের নামে যে সহিংসতার অভিযোগ রয়েছে তাতে মোখলেছুর রহমান অর্থ সহায়তা করেছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়াও এসব টাকা নিয়োগ বাণিজ্য ও হুন্ডির মাধ্যমে তার অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে কিনা তা নিয়ে ব্যাপক অনুসন্ধান চলছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, মোখলেছুর রহমান মিঠাপুকুর উপজেলার কাফ্রিখাল ইউনিয়নের আলীপুর এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে। তার পিতা একজন সাধারণ কৃষক।
মোখলেছুর রহমান শিক্ষকতা ছাড়া অন্য কোনো ব্যবসা বাণিজ্যের সঙ্গেও জড়িত নন।  তিনি একটি রাইস মিলের মালিক বলে প্রচারণা চালালেও তিনি সেটির মালিক নন। এসব অর্থ তার অ্যাকাউন্টে পশ্চিমবঙ্গের সারদা এবং তুণমূল কংগ্রেস কেলেংকারির কিনা তাও খতিয়ে দেখছে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো।
সূত্র জানায়, শিক্ষাজীবনে কারমাইকেল কলেজে পড়াকালীন সময়ে মোখলেছুর রহমান প্রথমে জাসদ ছাত্রলীগের শহর শাখার অফিস ও প্রচার সম্পাদক থাকাকালীন দল পরিবর্তন করে ইসলামী ছাত্রশিবিরে যোগ দেন।
সেখান থেকেই তার উত্থান। পর্যায়ক্রমে ওসমানী হল শাখার সভাপতি ছিলেন তিনি। পরবর্তীতে মডেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করে সেখানে অর্থ হাতিয়ে নেয়া ও জামায়াত শিবির পুনর্বাসনের কাজ করে আসছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে।
বর্তমানে তিনি জামায়াতের মডার্ন ইউনিটের সভাপতি। তিনি শিবির নেতা থাকাকালীন সেই সময়ে জিএল হোস্টেল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতিকে কলেজের মেডিকেলে সেন্টারের কাছে বেধড়ক মারপিট করেন।
এসময় তার নামে ওই ছাত্রলীগ নেতা বাদী হয়ে একটি মামলা করেন নং-১৩৫/৯২। তার নামে জননিরাপত্তা আইনেও একটি মামলা আছে। ওই ছাত্রলীগ নেতা এখন রংপুরের একটি বেসরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এবং একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার।
এ বিষয়ে মডেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোখলেছুর রহমান জানান, তিনি কোনো দলীয় রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত নন। তার অ্যাকাউন্টে জমা হওয়া টাকা স্ত্রীসহ নিজের বেতন ও কৃষি জমি ও রাইস মিল থেকে প্রাপ্ত আয়ের টাকা।
তবে ২০১১ সালের আগ পর্যন্ত কেন এধরনের লেনদেন হয়নি এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর দিতে পারেননি তিনি। এছাড়াও কলেজ অ্যাকাউন্ট থেকে কলেজের চেক ছাড়া ব্যক্তিগত চেক দিয়ে টাকা উত্তোলন করতে পারেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অর্থ কমিটি আমাকে সেই পাওয়ার দিয়েছে। তবে সেটি নিজের চেক দিয়ে উত্তোলন করা যায় কিনা তা জানতে চাইলে তিনি কোনো উত্তর দেননি।
এ ব্যাপারে জামায়াতের রংপুর মহানগর সেক্রেটারি রুহুল কুদ্দুস জানান, মোখলেছুর রহমানের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে বিপুল পরিমাণ টাকা লেনদেনের বিষয়ে জামায়াতের কোনো সম্পর্ক নেই।  উৎস: নতুন বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ