• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে বোরো চাষাবাদ শুরু: ভিন্ন আবাদের পরামর্শ কৃষি অফিসের !

Kirisiএম আর মহসিন: মজুদ কৃষিজ পণ্য সহজে মেলায় নীলফামারীর সৈয়দপুরে নিচু ভুমিতে ইতিমধ্যে আগাম জাতের বোরো চারা রোপন শুরু হয়েছে। বোরো আবাদে পর্যাপ্ত সেচ পানির ভোগান্তি এড়াতে এ মৌসুমে ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেছে স্থানিয় কৃষি অফিস। এতে পানির সংকট থাকবেনা। পাশাপাশি, কৃষকরাও আর্থিক ভাবে লাভবান হবে। তাই বোরো নয় রবি শষ্য আবাদে ঝুকে পড়ার পরামর্শ দিচ্ছেন কৃষি কর্মকর্তারা। তারপরেও বোরো চাষাবাদে শতভাগ লক্ষ্য মাত্রা পুরণের আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
সৈয়দপুর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে ৬হাজার ৯শত ৫০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। এর মধ্যে হাইব্রিড ১১শত হেক্টরে আর উচ্চ ফলনশীল ৫হাজার ৮শত ৫০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করা হবে। এ নিয়ে কৃষকদের চলছে জোড় প্রস্তুতি। পাশাপাশি আগাম আলু ৫শত হেক্টরে,স্থানিয় বিভিন্ন জাতের আলু ১৫৩৫ হেক্টরে, গম ২৭৫হেক্টর, সরিষা ২০৮ হেক্টর, ভুট্টা ৪২ হেক্টর এবং ফুলকপি, বেগুন, টমেটো, গাজর, ও বিভিন্ন শাক মিলে ৫৯০ হেক্টরে চাষাবাদ করা হয়েছে। তাই বোরো ছাড়া এসকল চাষাবাদের দিকে ঝুকে পড়ার কৃষকদের দ্বারে-দ্বারে গিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে।
উপজেলার ৫ ইউনিয়নসহ পৌর এলাকাঘুরে দেখা যায়, কোথাও চলছে জমিতে লাঙ্গল চাষ। আবার কোন কৃষক জমির খানা-খন্দক ভরে করছে সমান। কেউ বাধছে সিমানা। আবার কোথাও নীচু জলাশয়ে সামান্য পানির ওপর আগাম বোরো চারা রোপন করেছে কৃষকরা। তবে বিভিন্ন শাক-সব্জি  জমিতে থাকায় আরো মাস খানেক সময় লাগবে পুরোদমে বোরো চারা রোপনের বলে কৃষকরা জানান।
কৃষকরা জানায়, এ উপজেলার পৌর এলাকা সহ ইউনিয়ন শুকনো মৌসুমে পানির স্তর কোথাও ১২০ আবার কোথাও ৮০ ফুট গভীরতায় পানি পাওয়া যায়। তাই অগভীর নলকুপ গুলোতে পানি ওঠেনা। এতে পানির জন্য হা-হা কার পড়ে যায় এ জনপদে। আবার কৃষকদের স্বার্থে তিস্তা সেচ প্রকল্পের নালা থাকলেও কখনই পানি আসেনা এ নালা গুলোতে। তাই শুকনো মৌসুমে সেচ পানি নিয়ে ভোগান্তি থেকে যায়।
এ দিকে, গত বারের ন্যায় কৃষকদের বোরো চাষে সেচ পানি নিয়ে যে সমস্যা হয়েছিল সে সমস্যার মুখোমুখি হত চান না স্থানিয় কৃষি অফিস। তাই বোরো নয় এ আবাদ ছাড়াও যে কৃষকরা লাভবান হতে পারে তা নিয়ে চলছে কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরন কর্মসূচি।
সৈয়দপর কৃষি অফিসের উপ-সহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা সুনিল কুমার দাস জানান, এ উপজেলায় প্রায় ১০ হাজার হেক্টর জমি চাষাবাদ যোগ্য। আর নিচু ভুমি হওয়ায় সহজেই যে কোন ফসলের চাষ ভালো হয়। সমস্যা হয় শুকনো মৌসুমে। এ এলাকার কৃষক প্রতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বোরো চাষাবাদ বেশি করে। তাই শুকনো মৌসুমে সেচ নির্ভর এ আবাদের কারণে দিন-দিন পানির স্তর নিচে নামছে। এ সমস্যা প্রকট আকার ধারন করে প্রতি বছর। তাই সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে মাঠে গিয়ে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে গম,আলু,সরিষা,ভুট্টাসহ বিভিন্ন রবি শষ্য চাষাবাদে। একই কথা বলেন কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা শাহনাজ বেগম। তিনি আরো বলেন, এবারে গতবারের চেয়ে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা কম ধরা হয়েছে। অন্যন্য ফসলের চাষাবাদে তাই জোর দেয়া হয়েছে বেশি। এটি সফল হলে কৃষক যেমন লাভবান হবে তেমনি এ জনপদে পানির জন্য আর হা-হা কার পড়বেনা। সৈয়দপুর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা হুমায়রা মন্ডল জানান, পরিকল্পিত ভাবেই কৃষকদের মোটিভেশন করা হচ্ছে। তাই আমরা আশা করি পানির স্তর ভালো পযার্য়ে থাকবে। আর অন্যন্য ফসলের চাষাবাদ দ্রুতই বেড়ে যাবে এ জনপদে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ