• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:১৬ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে দফায় দফায় সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালন

SAM_7172মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর : দিনাজপুরে দিনভর সংঘর্ষ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ, আগুন ও ব্যাপক ধরপাকড়ের মধ্য দিয়ে গতকাল সোমবার গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালিত হয়েছে। জেলা শহরসহ, বোচাগঞ্জ, বীরগঞ্জ, চিরিরবন্দর ও ঘোড়াঘাট উপজেলায় পুলিশ ও আওয়ামী লীগ একাট্টা হয়ে ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের সাথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে কমপক্ষে ১৮ জন আহত হবার খবর পাওয়া গেছে। দিনাজপুর শহরসহ জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে পুলিশ ২০ দলীয় জোটের ২৬ নেতা-কর্মীকে আটক করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। শহরে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। পুরো শহর জুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
গতকাল সোমবার সকাল থেকে জেল রোডস্থ দিনাজপুর জেলা বিএনপি অফিস পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে। বেলা ২টার দিকে ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীরা বিএনপি অফিসে সমবেত হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ শহরের বিভিন্ন স্থানে বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়া হয়।
এদিকে শহরের মুন্সিপাড়া, জেলরোড, পৌরসভা মোড় ও মর্ডাণ মোড়ে পুলিশের সাথে বিএনপির নেতাকর্মীদের সাথে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। মুন্সিপাড়া হেমায়েত আলী হলের সামনে নেতাকর্মীরা রাস্তায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করার সময় পুলিশ ৫/৬ রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় শহরের সকল দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। পুরো শহর নিমিষেই অচল হয়ে পড়ে।
বেলা সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশ ব্যারিকেড উপেক্ষা করে জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক মুকুর চৌধুরী, জামায়াতের জেলা এসিস্টেন্ট সেক্রেটারী মাওঃ আব্দুল মাতিন ও সাবেক যুবদল নেতা আমিনুল ইসলাম মুন্নার নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোটের বিশাল বিক্ষোভ মিছিল শহর প্রদক্ষিণ করে। মিছিলটি লিলির মোড়, পৌরসভার মোড়, সদর হাসপাতাল মোড়, মুন্সিপাড়া হয়ে নিমতলা মোড়ের দিকে গেলে পুলিশ ব্যারিকেট দিয়ে মিছিলকে আটকে দেয়। এক পর্যায়ে লাঠিচার্জ করে মিছিলকে ছত্রভঙ্গ করে।
SAM_7129এদিকে বেলা পৌনে ৩টার দিকে কোতয়ালী বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক ও সাধারণ সম্পাদক মুরাদ আহম্মেদ, সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান এ্যাড. কোফাজ্জল হোসেন দুলাল, ভাইস চেয়ারম্যান মোকাররম হোসেনসহ কোতয়ালী বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের পৌরসভার মোড় থেকে বের হয়ে দলীয় কার্যালয়ে যাওয়ার পথে পুলিশ লিলির মোড়ে মিছিলটি ব্যারিকেট দিয়ে আটকে দেয়। পড়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে দলীয় কার্যালয়সহ বিভিন্ন দিকে চলে যায়। এর কিচুক্ষন পর পৌর মহিলাদলের অঅহবায়ক ও পৌর কাউন্সিল শাহিন সুলতানা বিউটির নেতৃত্বে অপর একটি মিছিল বের হয়ে লিলির মোড়ে পৌঁছলে ওই মিছিলটিকেও পুলিশ আটকে দেয়।
জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোকাররম হোসেন জানান, কোতয়ালী বিএনপি নেতা শামীমসহ ৮ নেতা-কর্মী আহত হয়েছে। সরকার অন্যায়ভাবে আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে বাধা দিয়েছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম খালেকুজ্জামান জানান, বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশের উপর ইট-পাটকেল ছুড়লে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে ৫/৬ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করা হয়। রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়েছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি জানি না। আমার ফোর্স বিভিন্ন জায়গায় আছে, পরবর্তীতে খবর পেলে আপনাদের জানানো হবে।
এদিকে বোচাগঞ্জে পৌর বিএনপি অফিস ও জামায়াতের অফিসে আওয়ামী লীগ কর্মীরা আগুন দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে বিএনপি জামায়াতের ২০ কর্মী আহত হয়েছে।
SAM_7134প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর সাড়ে ১২টায় বিএনপি শহরের চৌরাস্তার দলীয় কার্যালয় থেকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে কালো পতাকা মিছিল বের করে। অপরদিকে ছাত্রলীগ তাদের প্রতিষ্ঠাবাষির্কী এবং গণতন্ত্র রক্ষা দিবস উপলক্ষে স্কুল রোড থেকে একটি মিছিল চৌরাস্তা দিকে যাওয়ার পথে উভয় দলের মিছিল মুখোমুখি হয়। এ সময় দুপক্ষেই মিছিলে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে সংঘর্ষ বেধে যায়। মুহুর্তে পুরো শহর রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্তনে আনে। দুপুর দেড়টায় আওয়ামী লীগ পৌর বিএনপির কার্যালয়ে অগ্নিসংযোগ করে। সংবাদ  পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিভিয়ে ফেলে। এ ঘটনায় আওয়ামীলীগ-বিএনপি পরস্পরকে দায়ী করেছেন।  ােচাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুল হক প্রধান  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
এছাড়া দিনাজপুর শহরের লিলির মোড়ে একদল পুলিশ ফটো সাংবাদিক নুর ইসলাম ফটো তুলতে গেলে বাধা দেয় ও শাসিয়ে দেয়।
বর্তমানে দিনাজপুর শহরজুড়ে জুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সব দোকান-পাট বন্ধ রয়েছে। শহরে নিরাপত্ত ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। শহরে বিজিবির টহলদল নিয়মিত টহল দিচ্ছে। এছাড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ