• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন |

মরুর কবি আল খাদরা

মরুর-কবি-আল-খাদরাসাহিত্য ডেস্ক: সাহরাউই এর মহিলা চারণকবি আল খাদরা সাহারার মধ্যিখানে পলিসারিও মধ্যস্থ একটি ক্যাম্পে নির্বাসিত জীবনযাপন করছেন। যারা সাহরাউই সম্বন্ধে জানে না, তারা এইটুকু অন্তত জ্ঞান রাখতে পারেন যে পশ্চিম সাহারার নাগরিকরা শুধু স্প্যানিশ উপনিবেশেরই শিকার হয়নি: একসময় তারা স্বাধীনভাবে নিজেদের পরিচালিত করতে চেয়েছে, তারপর মরোক্কোবাসীরা তাদের ভেতর ঢুকে পড়ে তাদের নিজ এলাকা থেকে উচ্ছেদ করে এবং তিন হাজার কিলোমিটার জায়গাজুড়ে নির্মাণ করে স্ব-রক্ষিত দেয়াল। এমনকি সাহরাউইরা যাতে তাদের ডেরার মধ্যে পুনরায় প্রবেশ না করতে পারে সেজন্যে প্রায় আট লাখ মাইন পুঁতে রাখা হয় আশপাশের ভূমিতে।

আলজেরিয়া তাদের সাহরাউই স্বাধীনতা আন্দোলন দিয়েছে, উদ্বাস্তুদের থাকার জন্য পলিসারিও ফ্রন্টে  তৈরি করেছে বেশ কিছু ক্যাম্প যেখানে তাদের থেকে যাওয়ার ইতিহাস গত ৩৫ বছরের। কূটনৈতিক চালের বদলে সামরিক পদক্ষেপে কেটে গেছে তাদের যুদ্ধ, আর সেই যুদ্ধপরবর্তী সময়ে এখন তারা শান্তিতেই যাপন করে যাচ্ছেন বর্তমান জীবন। যদিও তারা আন্তর্জাতিক সাহায্য সহযোগিতার ওপর এখনও নির্ভরশীলতা এড়াতে পারেনি।

তাদের পরিস্থিতির সমস্ত দিক বিবেচনা করলে আল খাদরার সৃষ্টিই তৃণমূল কবিতার নিখুঁত উদাহরণ হিসেবে বিবেচিত হবে। সমস্ত বিপ্লবী, প্রতিবাদী লেখক-কবিদের ক্ষেত্রেই যা হয়েছে সেটা আল খাদরার ক্ষেত্রেও বিদ্যমান। টিকে থাকা মূলক মৌলিক অস্তিত্বে যখন মরোক্কোবাসীর আক্রমণ সহ্য করতে হয়, মেনে নিতে হয় উদ্বাস্তু জীবন; তখন শরীরে, মনে-মননের অলিতে গলিতে যে রাগ লাভা হয়ে বেরিয়ে এসে হাতে অস্ত্র তুলে নিতে বাধ্য করে, ঠিক সেই মুহূর্তে তিনি অস্ত্রের বদলে নিক্ষেপ করতে থাকেন একটা পর একটা কবিতা, অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার যাতনা মিশ্রিত কবিতা।

খাদরা বলেন, ‘আমি বুড়ো হয়ে গেছি আমার সম্মুখের লক্ষ্য এখন মৃত্যু! কিন্তু এখনো, এখানকার সবাই যেন স্বাধীনভাবে জীবন যাপন করতে পারে সেই স্বপ্নই জিইয়ে রেখেছি অন্তরে। নিজ ভূখণ্ড ব্যাতীত জীবন কখনো কোনদিনই ‘জীবন’ বলে বিবেচিত হতে পারে না। আমরা যেখানটায় আছি এটা কোনো শহর নয়, আমরাও শহুরে আদিবাসী নই। কিন্তু শীতে আমরা শহরে যাই, আর গ্রীষ্মে যাই পূবে এবং সেখানটায় শরৎকাল পর্যন্ত থাকি। আর সেখানেই আমার ছেলেবেলা কেটেছে এক বেদুঈন মেয়ে হিসেবে। তারপর স্প্যানিশ উপনিবেশের শিকার হই। কিন্তু তারা আমাদের ওপর এমন কিছুই করেনি যা করেছে মরক্কোবাসীরা। তারা আমাদের তাঁবুতে পর্যন্ত আক্রমণ চালিয়েছে! সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়েছে নির্বিচারে যা আগে কখনো হয়নি। কি ছেলে, কি মেয়ে, কি শিশু, কি বৃদ্ধ তারা এসবের কোনো পরোয়াই করত না; আমরা আসলে এমন কিছু আগে কখনো দেখিনি।

দীর্ঘ একটি কবিতার অংশবিশেষ

সাহসীরা সব যুদ্ধে গেছে, অপরপক্ষের ট্যাংক নেমেছে
ভূমিতে আলো রোপণের বিমান উড়ছে…

সেখানে প্রেস দূরবর্তী কিছু নয়- তাদের চোখ সাক্ষী!
তাদের পাঁপড়িকে ঢাল বানিয়ে, সে চোখের সম্মুখ উঠোনে…
ধ্বংসের আলপনা এঁকে দিল শত্রুপক্ষের সেনাবাহিনী।

তারা ধরে নিয়ে গেল, চিরতরে শুইয়ে দিল
এসবের যেন কোনই তাৎপর্য নেই
যেন এভাবেই হওয়ার কথা ছিল, যা দেয়ার সব আল্লাহ্‌ই দিল…

তার নাতনী আজিজা বারাহিম বলেন, ‘আমি আমার নানিকে দিয়ে অনুপ্রাণিত, আমার বয়স যখন ছয় কি সাত তখন থেকেই তার কবিতা গাইতে শুরু করি। এবং এখনো গাইছি… এতে আমার মনে অদ্ভুত এক প্রশান্তি আসে। নানির গাওয়া কবিতা আমাকে উদ্বেলিত করে আর মনে হয় কবিতা এমনি হওয়া উচিৎ। কেননা তার কবিতায়– আমরা যেমনটি চালিয়ে নিচ্ছি আমাদের জীবন সেই জীবনেরই ছাপ স্পষ্ট প্রতিফলিত হয়।’

আল খাদরা শুধু যুদ্ধ, সংগ্রামের জন্যই ছন্দ বেঁধেছেন তা নয়। তিনি নারীদের অধিকার আদায়ের জন্যেও বলেছেন পুরো স্পৃহা নিয়ে। তার ভাষ্যমতে, ‘আমরা (নারীরা) সম্মুখে যাইনি, আমরা যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে যে স্থানটিতে ফিরে আসতে চেয়েছি ঠিক সেখানেই অবস্থান নিয়েছিলাম। আমরা নিঃসঙ্গ এবং নিবিড়ভাবে বিমর্ষ ছিলাম আমাদের ঘরগুলোতে। কারণ সেখানে কোনো পুরুষ থাকতো না, সব পুরুষ তখন যুদ্ধে। আপনি যদি কারো দুয়ারে যান এবং জিজ্ঞেস করেন- এটা কার বসত ভিটা? উত্তর আসবে কোনো এক নারীর নাম, কেননা এখানে পুরুষেরা উধাও!’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ