• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাট উপজেলা চেয়ারম্যানের অসহযোগিতায় উন্নয়ন কার্যক্রম বিঘ্নিত

kurigramরফিকুল ইসলাম, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হাশেমের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি এবং সরকারি কাজে অসহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে। বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে ভাইস চেয়ারম্যানসহ উপজেলা পরিষদের অন্য সদস্যরা। প্রত্যাশিত সেবা না পেয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে সেবা গ্রহিতারা। পাশাপাশি টানা চারমাস থেকে উন্নয়ন সমন্বয়সহ সকল নীতি নির্ধারনী সভায় অনুপস্থিত থাকায় সরকারের সকল প্রকার উন্নয়ন মুলক কর্মকান্ড স্থবির হয়ে পড়েছে। গোয়েন্দা বিভাগের তথ্য মতে, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা হওয়ায়, সরকারকে বিব্রত করতে নানা অপচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। অভিযোগে জানা যায়, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল হাশেম গত ৪ মাস থেকে উন্নয়ন সমন্বয়, আইন-শৃঙ্খলাসহ উপজেলা পরিষদের সকল প্রকার সভা কৌশলে এড়িয়ে চলছেন। সরকারের উন্নয়ন ও সেবা খাতের সিদ্ধান্তে স্বাক্ষর না করায় সরকারি কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। শুধু মাত্র তার স্বাক্ষর না হওয়ায় তিন মাস পূর্বে নিয়োগ চুড়ান্ত হলেও যোগদান করতে পারছেন না দু’জন অফিস সহায়ক। অথচ সিদ্ধান্ত ছাড়াই টিআর ও কাবিখার বরাদ্দ নিজের লোকজনের মধ্যে ভাগ করে দিয়েছেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল হাশেম। অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে তিনি বিদ্যানন্দ ইউনিয়নে তার বাড়ীর এলাকার মেম্বার ফকরুল ইসলামের নামে ১৫ মে. টন কাবিখার বরাদ্দ দিয়েছেন। কাজ না করেই পুরোটাই লোপাট হয়েছে। এসব অভিযোগ করেন রাজারহাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা মো. কফিল উদ্দিন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কোরাইশি লায়লা ফেরদৌসী বিথী। চাকির পশার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহিদ সরওয়ার্দ্দী বাপ্পী বলেন, উন্নয়ন সমন্বয় মিটিং হলো উপজেলা পরিষদের চাবিকাঠি। উপজেলা চেয়ারম্যানের খেয়াল-খুশি আচরনের কারনে গত চার মাস থেকে সরকারি উন্নয়ন কর্মকান্ড অচল হয়ে পড়েছে। নিজ স্বার্থের ব্যাঘাত ঘটায় নিয়োগ প্রক্রিয়া ঝুলে রেখেছেন। দ্বন্দ্বে জড়িয়ে গেছেন ইউএনও’র সাথে। ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে এলাকার মানুষ। বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তাইজুল ইসলাম জানান, উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রার্থী নিয়োগ পরীক্ষায় পাশ করতে না পারায় ক্ষুব্ধ হয়ে ৪ মাস থেকে উন্নয়ন সমন্বয় মিটিংএ অনুপস্থিত থাকছেন। ইউএনও সাজেদুর রহমানের নেতৃত্বে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ষষ্টি চন্দ্র রায়, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ নাজমূল হুদা, সমবায় কর্মকর্তা মাহবুবুল ইসলাম নিয়োগ বোর্ডে ছিলেন। যথাযথ প্রক্রিয়ায় নিয়োগ সম্পন্ন করা হয়। অথচ এখন এ নিয়োগ নিয়ে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। ছিনাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. সাদেকুল হক নুরু বলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউএনও’র দ্বন্দ্বের কারনে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে শুধু মাত্র একটি নিয়োগের কারনে সার্বিক কার্যক্রম স্থবির করে রাখা ঠিক হচ্ছে না। ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম জানান, নিয়োগে চেয়ারম্যানের পছন্দের প্রার্থী নির্বাচিত না হওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুনুর মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নানা অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। তিনি উপজেলা পরিষদের সরকারি গাড়ি দলীয় কাজে ব্যবহার করছেন দিনের পর দিন অথচ উন্নয়ন সমন্বয় মিটিং-এ অনুপস্থিত থাকছেন। ফলে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম বিঘিœত করছে পরিকল্পিত ভাবে। নিয়োগে দুর্নীতি করতে না পেরেই তিনি সরকারকে বিব্রত করতে নানা অপচেষ্টা চালাচ্ছেন।  এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাজেদুর রহমান উদ্ভূত পরিস্থিতির কথা স্বীকার করে জানান, ২জন অফিস সহায়ক নিয়োগে ৫৩জন প্রার্থী আবেদন করেন। নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেয় ৩৬জন। এর মধ্যে সুবল চন্দ্র রায় ও রঞ্জু আহমেদ প্রথম ও ২য় স্থান অধিকার করে। নিয়োগ কমিটি নির্বাচিত দুজনকে নিয়োগ দেয়ার জন্য চুড়ান্ত অনুমোদনের জন্য উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় উপস্থাপন করে। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যানের নিজস্ব প্রার্থী মিলন ইসলাম ও রোকনুজ্জামান রনি মেধা তালিকায় নির্বাচিত না হওয়ায় তিনি ক্ষুব্ধ হন। এ কারনে তিনি কয়েক মাস ধরে মিটিং-এ অনুপস্থিত এবং রেজুলেশনে স্বাক্ষর করা থেকে বিরত থাকছেন। ফলে সরকারের অন্য সকল উন্নয়ন ও সেবা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বিষয়টি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব,বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসককে লিখিত ভাবে অবহিত করা হয়েছে। রাজারহাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল হাশেম, তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ না হওয়ায় তিনি স্বাক্ষর করছেন না এবং সরকারকে বিব্রত করার কোন ইচ্ছা তাঁর নেই বলে জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ