• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০২:১৪ পূর্বাহ্ন |

আকাশ কন্যা!

107016_1সিসি নিউজ: উড়ন্ত বিমানেই সন্তান প্রসব করলেন ইয়াসমিন আক্তার। অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সের জি ৯-৫১৩ নম্বর একটি ফ্লাইটে লেবানন থেকে ঢাকার উদ্দেশে গতকাল যাত্রা করেন ওই তরুণী। হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছার আগেই চলন্ত বিমানে তার প্রসববেদনা ওঠে। এর পর কেবিন ক্রু ও অন্য যাত্রীদের সহায়তায় ককপিটের পেছনে কন্যাসন্তানের জন্ম দেন ইয়াসমিন। আকাশেই মায়ের কোলজুড়ে এলো ‘আকাশকন্যা’। মা ও নবজাতক সুস্থ। বাস-ট্রেনে সন্তান প্রসবের কথা অহরহ শোনা গেলেও চলন্ত বিমানের ক্ষেত্রে এ ধরনের নজির খুব বেশি নেই। সুন্দর, ছোট্ট শিশুটিকে নিয়ে মা বিমান থেকে নামার সময় অনেকে ওকে ‘আকাশমণি’, ‘বাতাসি’, ‘আকাশি’সহ নানা আদুরে নামে ডাকছিলেন।আকাশকন্যা!

লেবাননে একটি মার্কেটে কাজ করেন ইয়াসমিন। স্বামী নাসিরও লেবাবনে কর্মরত। ফেব্র্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ইয়াসমিন সন্তান প্রসব করতে পারেন- লেবাননের চিকিৎসকের এমন সার্টিফিকেট নিয়ে ফ্লাইটে ওঠেন এই তরুণী।ঢাকা কাস্টম হাউসের যুগ্ম কমিশনার কাজী জিয়াউদ্দিন সমকালকে বলেন, গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শাহজালাল বিমানবন্দরে এরাবিয়ান এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি অবতরণের পর বিমানবন্দর ও সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ জরুরিভাবে মা ও নবজাতককে বিমানবন্দর সংলগ্ন উত্তরার ১ নম্বর সেক্টরে জাহানারা ক্লিনিকে ভর্তি করেন। ফ্লাইট অবতরণের পর নবজাতক ও তার মাকে আগে নামাতে গিয়ে অন্য যাত্রীদের কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়। এই বিলম্বটুকু তারা উপভোগই করেছেন। হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে স্বজনের সঙ্গে নবজাতক ও মা বিকেল ৪টার দিকে গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উদ্দেশে যাত্রা করেন।জাহানারা ক্লিনিকের ব্যবস্থাপক বাদশা মিয়া সমকালকে জানান, মা ও নবজাতক সুস্থ আছেন। তারা ডা. আকিল আহমেদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নেন। ইয়াসমিনের চাচাতো ভাই দিদার সমকালকে বলেন, ২০১১ সালে লেবানন প্রবাসী নাসির উদ্দিনের সঙ্গে ইয়াসমিনের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর ইয়াসমিনও লেবানন যান। তাদের সংসারে এগারো বছর বয়সী আরেক কন্যাসন্তান রয়েছে। সমকাল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ