• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন |

অবরোধে রপ্তানি বন্ধ: সৈয়দপুরে কাঁচা সব্জির বাজারে ধস

imagesএম আর মহসিন: সপ্তাহব্যাপি টানা অবরোধে সৈয়দপুরসহ এ অঞ্চলের কাঁচা সব্জির বাজার দরে ধস নেমেছে। এতে চাষিরা বিপাকে পড়েছে উৎপাদিত সব্জির বাজার দর না পেয়ে। অপরদিকে ক্রেতাশূন্য বাজারে রপ্তানিকারকরা সব্জি না কেনায় সরাসরি কৃষকরা স্বল্প দরেই বাজারে বিক্রয় করছেন তাদের পণ্য। তাই এ অবস্থা কাটাতে সরকারসহ রাজনৈতিকদল গুলোর কাছে বিকল্প ও সহনশীল আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষনার দাবি করছেন এ জনপদের কৃষকসহ সব্জি ব্যবসায়িরা।
সৈয়দপুর শহরের নয়াবাজারস্থ পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা যায়, কৃষকরা সরাসরি তাদের উৎপাদিত আলু, বেগুন, ফুলকপি ও বাধাকপি এবং বিভিন্ন জাতের শাক নিয়ে বাজারে এসেছেন। আর স্বল্প মূল্যে তারা তাদের সব্জি বিক্রয় করছেন। তবে কোন রপ্তানিকারক তাদের এ কৃষিজ কাঁচা পণ্য কিনছেন না। হামিদুল নামে মধ্যস্বত্ত ব্যবসায়ি জানান, নতুন আলু ৫ টাকা, কপি ৪ টাকা, ধুনিয়া পাতা ১০ টাকা, গাজর ১০টাকা, ক্ষিরা ৫টাকা দরে বিক্রয় করছি। আর কৃষকদের কাছ থেকে ১ থেকে ২ টাকা কম দরে কিনছি। আঃ আজিজ নামে এক কৃষক জানান, দেড় বিঘা জমিতে আগাম আলু চাষ করেছি। যা উঠানোর পর উৎপাদন ব্যয় ওঠেনি। মিলন নামে রপ্তানিকারক জানান, বর্তমানে এ অঞ্চলের আলু, ক্ষিরা, বেগুন ও কপি চট্টগ্রাম এবং ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ চলছিল। অবোরোধে তা বন্ধ হয়ে গেছে। ঝুকি নিয়ে দিনে না হলেও রাতে সব্জি পাঠানো যায়। এ ক্ষেত্রে পরিবহন ব্যয় দ্বিগুনের চেয়েও বেশি। এরপর বাইরের কমিশন ব্যবসায়িরা পর্যাপ্ত দর না দিলে পুজি হারাতে হয়। একই কথা বলেন, আমদানি কারক সম্রাট। রাজশাহি থেকে দ্বিগুণ মূল্য দিয়ে রাতে শ্যালো চালিত নছিমন পরিবহনে এনেছে টমেটো, কাচামরিচ, মটরশুটি, পিয়াজ। কিন্তু সৈয়দপুর বাজারে ক্রেতা না থাকায় ওইসব পণ্য নিয়ে বিপাকে পড়েছে। শেষে কেনা দরেই বিক্রি করতে হয়েছে।
গোল্ডেন আড়ৎ এর মালিক মাকসুদ আলম গোল্ডেনসহ অন্যান্য ব্যবসায়ীরা মনে করেন, এখন অবোরোধের কারণে কৃষি পণ্যের সাথে জড়িত একটি বৃহৎ জনগোষ্টি লোকসানের কবলে পড়েছেন। তাদের স্বার্থে সরকার কিংবা বিরোধীদলকে হরতাল-অবোরোধের বিকল্প এবং সহনশীল কর্মসূচি দেয়া উচিত ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ