• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন |

চট্টগ্রামে দুই হাজার সবজি চাষির মাথায় হাত

CFREW-1420941169সিসি ডেস্ক : চট্টগ্রাম জেলার সবজি উৎপাদনের জন্য বিখ্যাত দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রায় দুই হাজার সবজি চাষি এবার পথে বসার উপক্রম হয়েছে। চলমান টানা অবরোধে ক্ষেতে উৎপাদিত সবজি উপযুক্ত দামে বিক্রি করতে না পারায় কৃষকদের মাথায় হাত পড়েছে। অবরোধের ফলে শহরের বাজারে সবজির ঘাটতি ও মূল্য বৃদ্ধি পেলেও গ্রামের হাঁটে সবজি বিক্রি করার ক্রেতা পাচ্ছেন না চাষিরা। ট্রাকে সবজি পরিবহণে অবরোধ প্রতিবন্ধকতা থাকায় শহরের পাইকারী সবজি ক্রেতারা গ্রামের হাঁট থেকে সবজি কিনতে যাচ্ছে না। ফলে হাটে এসে অর্ধেক মূল্যে, অনেক সময় নামমাত্র মূল্যে সবজি বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন কৃষকরা।
জানা যায়, দক্ষিণ চট্টগ্রামের দোহাজারী, সাতকানিয়া, চন্দনাইশ, পটিয়া এই ৪ উপজেলায় সাত হাজারের অধিক হেক্টর জমিতে সবজি উৎপাদন হয়। এর সবজি উৎপাদনের সঙ্গে ৫ হাজারের বেশি কৃষক সম্পৃক্ত। চন্দনাইশ উপজেলার কৃষি বিভাগের পরিসংখ্যান মতে এই উপজেলার এক হাজার আটশ’ হেক্টর জমিতে সবজির চাষাবাদ করা হয়েছে। সবজির বাম্পার উৎপাদনে ছাড়িয়ে গেছে লক্ষ্যমাত্রা।
দক্ষিণ চট্টগ্রামের শঙ্খ তীরবর্তী দোহাজারী লালুটিয়া, দিয়াকুল, ধোপাছড়ি, বৈলতলী, জাফরাবাদ, বরমা, চর বরমা, পার্শ্ববর্তী সাতকানিয়া উপজেলার আমিলাইশ, নলুয়া, চরতী, ধর্মপুর, বাজালিয়া, পুরানগড়সহ চন্দনাইশ, সাতকানিয়ার ১১টি ইউনিয়নের ২০টি গ্রাম জুড়ে সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। কিন্তু সবজির ফলন নিয়ে কৃষকরা খুশি হলেও উপযুক্ত মূল্য না পেয়ে কৃষকরা চরমভাবে হতাশ হয়ে পড়েছেন। বিএনপির ডাকা টানা অবরোধে গ্রামীণ হাটে সবজির মূল্য অর্ধেকে নেমে গেছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রতিটি মাঠে সবজির উৎপাদনে টুই টুম্বুর অবস্থা। বিশাল চরগুলোর কোথাও যেন এক চিলতে জমি খালি নেই। সর্বত্রই শোভা পাচ্ছে শীতকালীন সবজি ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম, বরবটি, মুলা, মিষ্টি কুমড়া, লালশাক, পালং শাক, বেগুন, টমেটো, গাজর, লাউ, ওলকচু, তিতকরলা, ঢেড়শ, ঝিঙা, চিচিংগা, পুইঁশাকের বিচিসহ বিভিন্ন প্রজাতির শীতকালীন সবজি। বর্তমানে দোহাজারী বাজারে মুলা প্রতি কেজি ২ থেকে ৩ টাকা, বাধাকপি ৩ থেকে ৪ টাকা, ফুলকপি ৪ থেকে ৫ টাকা, শিম ১৮ থেকে ২০ টাকা, বেগুন ৪ থেকে ৫ টাকা, টমেটো ২০ থেকে ২৫ টাকা, ধনিয়া পাতা ৭ থেকে ৮ টাকা, কাঁচা মরিচ ১৫ থেকে ২০ টাকা, লাউ প্রতিটি ১৪ থেকে ১৫ টাকা, শাক প্রতি ভার একশ’ থেকে দেড়শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গ্রামের হাটে এতো কম মূল্যে এ সব সবজি বিক্রি হলেও শহরের বড় বড় বাজারগুলোতে এ সব সবজি তিন থেকে চারগুণ বেশি দামে বিক্রি করতে দেখা যাচ্ছে। উৎপাদিত ফলনের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে কৃষকরা মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়েছেন।
পটিয়া এলাকার সবজি চাষি কৃষক সালামত উল্লাহ বলেন,  ‘অবরোধের ফলে পাইকারী বাজারে আমাদের উৎপাদিত সবজির ক্রেতা মিলছে না। যে সব পাইকার আসছেন তারা অর্ধেক মুল্যেও সবজি কিনতে সম্মত হচ্ছে না। ফলে আমরা পানির দামে সবজি বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছি।’
তিনি আরো বলেন,  ‘আমি বিভিন্ন সংস্থা থেকে ২ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে ১৫ কানি জমিতে লাউ, শিম, বরবটি, ধনিয়া পাতা, ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুনসহ বিভিন্ন প্রজাতির সবজির চাষ করি। ইতিমধ্যে এ সকল সবজি থেকে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকার সবজি বিক্রি হলেও এখনো আমার ঋণের টাকা উঠেনি। মাঠে যেসব সবজি আছে তা পানির দামে বিক্রি করতে বাধ্য হবো।’
ধর্মপুরের কৃষক জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আমি প্রত্যাশী নামের একটি সংস্থা থেকে ৭০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে ৫ কানি জমিতে ফুলকপি, বাঁধাকপি, ধনিয়া পাতা, টমেটোর চাষ করেছি। ইতিমধ্যে ২৮ হাজার টাকার সবজি বিক্রি করলেও বাকি টাকা উঠাতে না পেরে বিশাল অংকের লোকসান গুনতে হচ্ছে।’
এ দিকে দক্ষিণ চট্টগ্রামের কয়েকটি গ্রামীণ হাট পরিদর্শন করে দেখা গেছে হাটে শত শত কৃষক সবজি নিয়ে অপেক্ষমাণ থাকলেও ক্রেতা মিলছে না। যে সব পাইকারী ক্রেতা আছেন তারাও উপযুক্ত মূল্য দিয়ে সবজি কিনতে নারাজ।
চট্টগ্রাম শহর থেকে যাওয়া পাইকারী সবজি ক্রেতা নুরুল ইসলাম জানান, অবরোধের কারণে সবজির পরিবহণ দুরূহ হয়ে পড়েছে। গ্রামের বাজার থেকে কম মূল্যে সবজি কিনলেও যানবাহন সঙ্কটে পরিবহণ খরচ কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে অতিকম মূল্যে গ্রাম থেকে সবজি কিনলেও অতিরিক্ত পরিবহণ খরচের কারণে শহরে নিয়ে কয়েকগুণ বেশি দামের এ সব সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ