• রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৯:১১ পূর্বাহ্ন |

মোদির প্রশংসা করে বিতর্কের কেন্দ্রে প্রধান বিচারপতি

image_113582_0আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের প্রধান বিচারপতি এইচ এল দাত্তু প্রকাশ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দরাজ প্রশংসা করার পর তার সেই মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক দানা বাঁধছে।
সাংবাদিকদের কাছে প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, মি. মোদি একজন ‘ভাল মানুষ’ ও ‘দূরদৃষ্টিসম্পন্ন’ ব্যক্তি – যার সরকার বিচারবিভাগের সব প্রস্তাবেই দারুণ ইতিবাচক সাড়া দিচ্ছে।
সরকার-প্রধান সম্বন্ধে প্রধান বিচারপতির এধরনের মতামত ভারতে প্রায় নজিরবিহীন – এবং বিরোধী দল কংগ্রেস বলছে, এটা যেন বিচারপতি দাত্তুর ব্যক্তিগত মতামতই হয়, বিচারে তার যেন কোনো প্রভাব না-পড়ে!

ভারতে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিরা সংবাদমাধ্যমে মুখ খোলেন না বললেই চলে, ফলে দুদিন আগে দেশের প্রধান বিচারপতি এইচ এল দাত্তু যখন মিডিয়ার সঙ্গে নানা বিষয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন তা অবাক করেছিল অনেককেই।
আর তার মুখে প্রধানমন্ত্রীর এই উচ্ছ্বসিত প্রশংসাই ভাবিয়ে তুলেছে দেশের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসকে। কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা দিগ্বিজয় সিং বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন, ‘প্রধান বিচারপতি কারও সম্পর্কে কোনও ধারণা পোষণ করতেই পারেন, কিন্তু আমরা আশা করব বিচারের রায়ে তার কোনো প্রভাব যেন না-পড়ে।’
তিনি আরও বলেন, ‘বিচারবিভাগ যাতে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ থাকে সেই বিচক্ষণতা আশা করি তিনি দেখাবেন। সত্তরের দশকে একবার একজন প্রধান বিচারপতি দেশের প্রধানমন্ত্রী সম্বন্ধে কিছু লিখেছিলেন, কিন্তু আমরা মনে করি এ ধরনের মন্তব্য এড়ানোই বাঞ্ছনীয়!’
গুজরাট দাঙ্গায় তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভূমিকা খতিয়ে দেখে সুপ্রিম কোর্টের নিযুক্ত বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট মি মোদিকে অব্যাহতি দিয়েছে ঠিকই – কিন্তু শীর্ষ আদালতের নির্দেশেই এখনও সেই তদন্ত প্রতিবেদন খুঁটিয়ে দেখা হচ্ছে।
তা ছাড়া সুপ্রিম কোর্টে বহু গুরুত্বপূর্ণ মামলাতেই মূল বাদী বা বিবাদী হলো সরকার – যার প্রধান হিসেবে নরেন্দ্র মোদিও সেই মামলার পক্ষ। এই কারণেই প্রধান বিচারপতির মুখে মি. মোদির তারিফ অনেকেই ঠিক হজম করতে পারছেন না।
দেশের প্রধান সংবিধান-বিশেষজ্ঞদের অন্যতম ও লোকসভার সাবেক স্পিকার সোমনাথ চ্যাটার্জির কাছে জানতে চেয়েছিলাম প্রধান বিচারপতির কি কোনও ব্যক্তিগত মতো থাকতে পারে না?
মি. চ্যাটার্জি তার জবাবে বলছেন, ‘একজন মানুষ হিসেবে নিশ্চয় তারও ব্যক্তিগত মতামত থাকতে পারে – কিন্তু বিচারবিভাগের প্রধান হিসেবে তার এমন কিছু করা বা বলা উচিত নয় যাতে মানুষের মনে সন্দেহ তৈরি হয়!’
সোমনাথ চ্যাটার্জি প্রধান বিচারপতিকে বেনিফিট অব ডাউট দিতে রাজি – কারণ তিনি মনে করছেন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি হয়তো নিরীহ কিছু উত্তর দিয়েছেন মাত্র।
সুপ্রিম কোর্টের বরিষ্ঠ আইনজীবীদের একজন, কে টি তুলসী আবার বলছেন তিনি প্রধান বিচারপতির বক্তব্যে অসুবিধার কিছু দেখছেন না।
মি. তুলসীর যুক্তি, ‘এর মধ্যে কী অনুচিত আছে? উনি তো আর সরকারের কোনও নীতি, কোনও আইন বা সরকারের পারফরম্যান্স নিয়ে মন্তব্য করেননি – ব্যক্তি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী সম্বন্ধে তার কীরকম ধারণা তৈরি হয়েছে সেটাই শুধু শেয়ার করেছেন। আমি তো বুঝতে পারছি না, এর মধ্যে আপত্তির কী আছে?’
ভারতের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো অবশ্য বিষয়টিকে এত সরলভাবে দেখতে রাজি নয় – যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে তারা কেউই এখনও বিবৃতি দিয়ে প্রধান বিচারপতির মন্তব্যের নিন্দা জানায়নি।
কিন্তু অবসরের আগে চলতি বছরের প্রায় পুরোটাই প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করবেন মি দাত্তু, এই সময়কালে শীর্ষ আদালতের কোনও রায়ে যেন মি মোদির প্রতি পক্ষপাত দেখানো না-হয় – সেটা নিশ্চিত করা দরকার বলেই বলছে কংগ্রেস ও বামপন্থী দলগুলো!- বিবিসি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ