• রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন |

কিশোরগঞ্জে নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে হুমকির মুখে গাইড ওয়াল ও বাঁধ

11সিসি নিউজ: নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বাহাগিলী ইউনিয়নের বাহাগিলী ঘাটের নিচ থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করায় বাহাগিলী ঘাটের উপর দিয়ে কিশোরগঞ্জ-তারাগঞ্জ একমাত্র ব্রীজটি এখন হুমকির মুখে।
কিশোরগঞ্জ থেকে তারাগঞ্জ, রংপুর, সৈয়দপুর, দিনাজপুর যাওয়া আসার একমাত্র সহজ পথ হিসাবে ১৯৮৬ সালে বাহাগিলী ঘাটের উপরে নির্মান করা হয় সড়ক পথে চলাচল করার জন্য ষ্টীল ব্রীজটি। ব্রীজটি নির্মানের ফলে নিয়মিত ভাবে সেই ষ্টীল ব্রীজের উপর দিয়ে নিয়মিত ভাবে চলাচল করছে অসংখ্য বাস, ট্রাক সহ নানান পেশার মানুষজন। কিছু অসাধু বালু ব্যবসায়ী ও কিছু স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে ব্রীজের পশ্চিম পার্শ্বের বাঁধ ধীরে ধীরে ভেঙ্গে পড়ছে নদী গর্ভে। এখনই অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করা না হলে সরকারী ভাবে আবার অনেক টাকা ব্যয়ে নির্মান করতে হবে ব্রীজের বাঁধ। চলাচলের জন্য ব্রীজটি হুমকির মুখে পড়বে বলে মনে করছে বিশিষ্টজনেরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,সকাল থেকে ৩ টন মালামাল বহনকারী ট্রলি দিয়ে সারাদিন কমপক্ষে ৮০/৯০ ট্রলি বালু বিক্রি করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে কিছু অসাধু বালু ব্যবসায়ী ও কিছু স্বার্থন্বেষী মহলের কয়েকজন প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধি। বালু বহনকারী ট্রলির ছবি সংগ্রহ করতে গেলে বাহাগিলী ঘাট এলাকার সন্ন্যাসী পাড়ার বালু ব্যবসায়ী যুগলের কাকা  নিন্দালু দৌড় দিয়ে এসে বালুর ভর্তি ট্রলির ছবি তুলতে দেখে সংবাদ কর্মীদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, আমরা বালু বিক্রি করার জন্য ঘাটের এলাকা ইজারা নিয়েছি। কার কাছে ইজারা নিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি এসব জানি না- সব কিছু যুগল জানে।
চাঁদখানা শাহ্ পাড়া গ্রামের কাশেম আলীর ছেলে বালু ব্যবসায়ী মামুন বলেন, আমার বাবা বালুর চর ইজারা নিয়েছেন। তাই বালু বিক্রি করি। প্রতি ট্রলি বালু কত টাকায় বিক্রি হয় জিজ্ঞেস করলে মামুন জানান, প্রতি ট্রলি ৫০/৮০টাকায় বিক্রি হয়। আর ভাই ভাই ইটের ভাটার মালিকের বালু বহনকারী ট্রলির চালক জানান, প্রতি ট্রলি বালু ১২০/১৫০ টাকায় নেয়া হয়।
বালু ব্যবসায়ী যুগলের সাথে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি জানান, আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে দরখাস্ত দিয়েছি এবং আমাদের জমির বালু আমরা বিক্রি করছি তাতে আপনাদের কি? বালু বিক্রি করার কারণে নদীর বা ব্রিজের ক্ষতি হলে সেটা পানি উন্নয়ন বোর্ডের ইএক্সএন বুঝবে। বালু উত্তোলনের অনুমতি আপনার কাছে আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি প্রতিনিধিকে জানান, যেহেতু দুই ইউনিয়নে নদীটি পড়েছে সেই কারণে দুই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের কাছে ১ বছরে ২০হাজার টাকা দিয়ে বালুর ইজারা নিয়েছি। তবে ইজারার কাগজ চেয়ারম্যানের কাছে আছে।
চাঁদখানা ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ব আলী জানান, আমি কারো কাছে কোন টাকা নেইনি। একই কথা বলেন বাহাগিলী ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান শাহ।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বালু ব্যবসায়ীদের ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ৫০হাজার টাকা করে জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তারপরেও যদি তারা আবার বালু উত্তোলণ করে তাদের ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জের দায়িত্বে থাকা ইএক্সএন মমিনুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমরা এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে সহযোগীতা চাইবো, তারপরও যদি বালু উত্তোলন করা বন্ধ না হয় তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ