• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৭:০৭ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে রেলগাড়ির হাসপাতাল ও চোরাইমাল

indexফেরদৌস জামান: ঢাকা থেকে নীলফামারীগামী একমাত্র ট্রেন ‘নীলসাগর’। বিমানবন্দর স্টেশনে এসে দাঁড়ায় সকাল সাড়ে আটটায়। জার্নিটা ভীষণ একঘেয়ে থেকে যেত, যদি আসন ছেড়ে দরজায় গিয়ে না দাঁড়াতাম। জানালায় কাঁচের নিচের অংশ ফিক্সড করা, তাতে কয়েক পড়তের তেল চিটচিটে ময়লা। প্রকৃতির সৌন্দর্যে মুগ্ধ যাত্রী চারপাশটা দেখে গুনগুন করে গেয়ে উঠতে চাইলে, হয় তাকে আসনে দাঁড়িয়ে বাইরে মাথা বের করে দিতে হবে, নয়তো কোদাল দিয়ে কাঁচের ময়লা পরিষ্কার করে জানালায় চোখ রাখতে হবে। যদিও শেষ পর্যন্ত এমন ইঞ্জিনিয়ারিং-এর হেতুটা বুঝে উঠতে পারিনি! বিকেল পাঁচটা নাগাদ গিয়ে নামলাম সৈয়দপুর স্টেশনে। ঢাকা থেকে রওনা দিয়েছিলাম আমি এবং বন্ধুবর ফয়সাল ভাই। পথে শান্তাহার থেকে যোগ দিলেন ফয়জুর রহমান ভাই।
২০১০ সালে এক সপ্তাহের উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়ে সৈয়দপুর ঘণ্টা তিনেক অবস্থান করলেও রেলওয়ে কারখানা পরিদর্শনের সুযোগ করে নিতে ব্যর্থ হয়েছিলাম। তারপর থেকেই ব্রিটিশ ভারতের বৃহত্তম এই রেল কারখানা দেখার বড় ইচ্ছা ছিল। এবারের উত্তরবঙ্গ ভ্রমণের এটা ছিল অন্যতম উদ্দেশ্য। রাতে শহরেই থাকার ব্যবস্থা হলো।  পর দিন সকালে নাস্তা করে বেরিয়ে পড়লাম কারখানা দেখতে। স্টেশনের পাশের রাস্তাটা ধরে হাঁটছি আর লোকজনের কাছে জিজ্ঞেস করছি- কারখানার প্রবেশ পথ কোন দিকে? কিন্তু তথ্য সংগ্রহে সামান্য বিভ্রাট ঘটায় কেবল হাঁটছি আর হাঁটছি।
আমাদের এভাবে ঘোরাঘুরি করতে দেখেই বোধ হয় স্থানীয় এক যুবক এগিয়ে এসে জানতে চাইলেন আমাদের উদ্দেশ্য। পেশায় সে কারখানার শ্রমিক। আমাদের ইচ্ছার কথা জেনে সে নিজ উদ্যোগে আমাদের কারখানা দেখাতে নিয়ে চললো। সেদিন ছিল সরকারি ছুটি, বিশেষ ব্যবস্থায় আমাদের প্রবেশাধিকার সেই আদায় করল। আমরা আশ্বস্ত হলাম এই ভেবে যে, যাক্ এবার অন্তত না দেখেই ফিরে যেতে হবে না।  কারখানার প্রধান গেট দিয়ে প্রবেশ করে বাম দিকের পথ ধরলাম। শুনলাম কারখানার গেট প্রধানত ৪৩টি। বর্তমানে চালু রয়েছে মাত্র ১৩টি। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী জানলাম মেরামতের পাশাপাশি কারখানায় ৬৪ ধরনের যন্ত্রাংশ তৈরি হয়ে থাকে।

এক সময় এখানে হাজার হাজার শ্রমিক কাজ করত। তাদের কর্মচঞ্চলতায় মুখর থাকত পুরো এলাকা। বর্তমানে মাত্র ৫০০ থেকে ৬০০ শ্রমিক কাজ করে। ছুটি থাকার কারণে নির্ভরযোগ্য কাউকে না পেয়ে তার দেয়া তথ্যের উপরেই নির্ভর করতে হলো। কারখানার আয়তন কত? জানতে চাইলে তিনি জানালেন, দৈর্ঘ্য প্রায় আট কি.মি. হবে। পুরনো কড়ই গাছে ঢাকা পিচঢালা পথ, জঙ্গলাকীর্ণ এলাকায় মেরামতের অপেক্ষায় এলোমেলো রাখা সারি সারি রেলের বগি। সেগুলো থেকে লোহালক্কর খসে পড়েছে। কিছু বগির শরীরে রং নেই, আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাওয়া কঙ্কালের মতো। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং জাতীয় সংসদের গত নির্বাচন-পূর্ব সংঘর্ষের শিকার এগুলো। কেউ জানে না কবে আবার নতুন রং চড়বে এই বগিগুলোর গায়ে।
চারপাশটা নীরব। আমরা চারজন ছাড়া অন্য কোন মানুষ নেই। প্রবেশ করলাম  ব্রডগেজ বগি সারাই ছাউনির ভেতর। ছাউনির নিচে যেন কয়েকটা আস্ত ট্রেন ঢুকিয়ে রাখা হয়েছে। অনেক বগির সারাই কাজ চলছে। এত বড় একটি শিল্প, এক সময় যার সম্পূর্ণটাই সচল ছিল অথচ আজ তা অনেকটাই ম্রিয়মাণ। একটার পর একটা বিভাগ খুঁটিয়ে খঁটিয়ে দেখার চেষ্টা করছি, ওদিকে বর্ণনা দিয়ে যাচ্ছেন আমাদের পথপ্রদর্শক গাইড। বেশ মজার মানুষ তিনি। অভিজ্ঞতা থেকে জানালেন, কয়েক বছর আগে দূরের ক্যান্টিনের নিকটে প্রস্রাব করতে গিয়ে সে এমন একটা জিনিস দেখেছে যা আজ পর্যন্ত কেউ দেখেনি। তার কথা শুনে আমরা কৌতূহলী হলাম। জিনিসটা কী? জানতে চাইলে চোখ-মুখের ভঙ্গি সিরিয়াস করে তিনি জানালেন, দাড়িওয়ালা সাপ! লেদ বিভাগ, ঢালাই বিভাগ, বগি ওয়ার্কশপ,  লরি বিভাগ, ক্রেন বিভাগ এবং আরও একাধিক বিভাগ পরিদর্শন শেষে পথপ্রদর্শকের নিজ বিভাগ কামারশালায় প্রবেশ করলাম।

কামারশালায় স্প্রিং, রেলের পাত, শাড়াশি, চেন, ছোট-বড় হাতুরি ইত্যাদি তৈরি হয়। অন্যান্য বিভাগের তুলনায় এই বিভাগ অধিক মনোযোগসহ দেখালেন তিনি- নিজ কর্মক্ষেত্র বলে কথা! অনেক কিছুর বর্ণনা করেও যেন সে তৃপ্ত হতে পারল না। অবশেষে তার নিজ মেশিনে আমাদের এক এক করে বসিয়ে ইচ্ছামত ছবি তুললো। কর্মদিবস না হওয়ায় অনেক কিPinac1-1419999130ছু কাছে গিয়ে বা স্পর্শ করে দেখা সম্ভব হয়েছে। এরই মধ্যে অতিবাহিত হয়ে গেছে বেশ কয়েক ঘণ্টা। পুনরায় এসে উপস্থিত হলাম গেটের কাছে যেখান দিয়ে আমরা প্রবেশ করেছিলাম। সময় স্বল্পতার কারণে সেতু বিভাগসহ একাধিক বিভাগ দেখা সম্ভব হলো না।

প্রবেশদ্বারের সামনে কারখানার বিভাগীয় কর্মকর্তার কার্যালয়। তার সামনে পাশাপাশি সাজানো রয়েছে পুরনো দুটি কয়লার ইঞ্জিন। অল্প দূরে তুলনামূলক কম যত্নে রাখা আছে পরিত্যাক্ত আরেকটি ইঞ্জিন, যা আমদানি করা হয়েছিল সুদূর হাঙ্গেরি থেকে। এরপর বাম দিকে তাকালে চোখে পড়ে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষাণবিশদের বিদ্যালয়। গেটের কাছাকাছি মুক্তিযুদ্ধে নিহতদের স্মরণে নির্মিত স্মৃতিফলকটা দাঁড়িয়ে রয়েছে। ডান পাশেই ঝুলছে লাল রং করা কয়েক মণ ওজনের ঘণ্টা। এটা শুধু প্রদর্শনের জন্য রেখে দেয়া হয়েছে। এক সময় এই ঘণ্টার ঢং ঢং শব্দে কর্মমুখোর হতো কারখানা। আবার দিন শেষে শ্রমিকেরা কান পেতে থাকতো কখন বেজে উঠবে ঘণ্টা। বাজলেই ঘরে ফিরে যেত তারা। সব মিলিয়ে কারখানার ভেতরের পরিবেশে ছড়িয়ে রয়েছে এক অসাধারণ নন্দনকলা। যত্রতত্র এগিয়ে গেছে অজস্র রেললাইন, পড়ে রয়েছে ভাঙা-পোড়া বগি, নষ্ট পুরনো চাকা, গাছের ছায়ায় ফেলে রাখা অকেজো ইঞ্জিন। দেখে মনে হয় এখনই বুঝি হুইসেল বাজিয়ে ঝিক্ঝিক্শব্দে চলতে শুরু করবে। লোহালক্করের নিষ্প্রাণ ঘ্রাণ, পাখির ডাক পুরো এলাকায় ছায়া ফেলেছে।

দেখলাম বিভাগগুলোর সংস্কার কাজ চলছে। নিন্মমানের টিন দিয়ে ছাওয়া হচ্ছে প্রতিটা বিভাগের ছাউনি। মেঝে মেরামতের কাজে কীভাবে ফাঁকি দেয়া হয়েছে একজন নিরাপত্তাকর্মী আমাদের তা জানালেন।  কাজের ঠিকা বাগিয়ে নিয়েছে যে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাদের হাত নাকি অনেক উঁচুতে। এ কাজে বরাদ্দ রয়েছে ৪৫০ কোটি টাকা কিন্তু এর অর্ধেকও ব্যয় করা হবে কিনা এ সন্দেহ অনেকেই করলেন।  রাত এগারোটায় একই ট্রেনে সৈয়দপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হলাম।  আসনে বসতেই দুই চোখে ঘুম ঠেসে ধরল। খানিক পর হঠাৎ চিৎকার, চেঁচামেচিতে ঘুম ভেঙে গেল। ট্রেনের বাইরে গুন্ডাপ্রকৃতির কিছু লোকের দৌড়াদৌড়ি ও চিৎকার- ‘এই ছাড়ি দিল রে’, ‘চলি গেল’, ‘এই দুয়োরত (দরজা) আয়’, ‘ টানে তোল’ ইত্যাদি কথা শুনলাম। আতঙ্কে এদিক-সেদিক তাকিয়ে বুঝলাম হিলি স্টেশন।

মনে পড়ে গেল এটা চোরাচালানের অন্যতম রুট। শাড়িকাপড় থেকে শুরু করে নেশাজাত দ্রব্য ভারত থেকে বাংলাদেশে নিরাপদে আসে এই রুট দিয়ে। ট্রেন হালকা গতিতে চলতে শুরু করল। এই সময় চলন্ত ট্রেনেই উঠানো হলো  চোরাই মালের বস্তা। প্রথমে সেগুলো রাখা হলো টয়লেটে। সমস্ত টয়লেট বন্ধ, প্রয়োজন পড়লেও ঢোকার সাধ্য নেই। এরপর তাদের দৌড়াদৌড়ি শুরু হলো ট্রেনের ভেতরে। অর্থাৎ সব ঠিকঠাক মতো উঠেছে কিনা তারা দেখে নিলেন। যাত্রীরা তাদের কাছে যেন অসহায়। এভাবে চললো সারারাত। পথের প্রায় সব স্টেশনে নামল সেই বস্তা। এর সঙ্গে কারা জড়িত তা আর বললাম না, পাঠক নিশ্চয়ই বুঝে নেবেন। প্রকাশ্যেই দেখলাম, চোরাকারবারীদের নিকট থেকে রীতিমত দর কষাকষি করে পাওনা আদায় করে নিল প্রশাসনের লোকজন। পাশের যাত্রী তার ৯ বছরের অভিজ্ঞতা থেকে জানালেন, তারা এসব দেখতে দেখতে অভ্যস্থ হয়ে গেছেন। এদের হাত অনেক লম্বা, প্রতিবাদ করলে লাথি মেরে ট্রেন থেকে ফেলে দেবে! লাথির চেয়ে ঘুম উত্তম। কিন্তু অনভ্যস্থ চোখ যা দেখেছে তাতে আর ঘুম সহজে এলো না।

সংগৃহিত: রাইজিং বিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ