• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন |

খালেদা-অমিত ফোনালাপ বিতর্ক বিএনপির দেউলিয়াত্ব

Habiburপীর হাবিবুর রহমান ।।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে উদার গণতান্ত্রিক ভারতের ক্ষমতাসীন পার্টি বিজেপির সভাপতি অমিত শাহর টেলিফোন আলাপ নিয়ে তৈরি বিতর্ক বিএনপির রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে। কয়েক দফা ক্ষমতায় থাকা একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপির যে ভাবমূর্তি রয়েছে তা একটি টেলিফোন বিতর্কই নয়, নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ভ্রান্ত নীতি প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। বিএনপির পক্ষে যারা কথা বলতেন তারাও এখন কপালে ভ্রু তুলে প্রশ্ন করেন- এই দলটি অদূরভবিষ্যতে মুসলিম লীগের পরিণতি বহন করবে না তো? একইসঙ্গে যারা বিএনপিকে ডান নয়, বাম নয়, মধ্যপন্থি সোজাপথে গণতান্ত্রিক চেতনাবোধ নিয়ে জনগণের ওপর আস্থা রেখে চলতে পরামর্শ দিতেন তাদের আশঙ্কা- বিএনপি ব্যর্থ হলে সেখানে মৌলবাদী শক্তির উত্থান ঘটবে না তো?
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান বুধবার রাতে অবরুদ্ধ খালেদা জিয়াকে ভারতের বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ টেলিফোন করেছিলেন। সেই টেলিফোনের মাধ্যমে পিপার স্প্রের কারণে অসুস্থ সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার খোঁজখবর নেন এবং আশুসুস্থতা কামনা করেন। তিনি জানান, টেলিফোনে তারা কুশল বিনিময় করেন এবং বেগম খালেদা জিয়া তার খোঁজখবর নেওয়ার জন্য বিজেপি প্রধানকে ধন্যবাদ জানান। এদিকে বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল টুয়েন্টিফোর বিজেপি সভাপতি অমিত শাহর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ‘দিস ইজ টোটালি রিউমার।’ ৭১ টিভিকেও তিনি বলেছিলেন, ‘দিস ইজ এ ফেক নিউজ।’ বাংলাদেশের টিভি দর্শকরা তা দেখতে পান এবং অমিত শাহর কণ্ঠ শুনতে পান। এদিকে বিডি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম টেলিফোন করলে অমিত শাহ বলেন, ‘আরে ভাই, ম্যায়নে তো উনহে কল নেহি কিয়া, ইয়ে সব বাকোয়াজ খবর কিউ ছাপতে হ্যায়।’ (আমি তো উনাকে ফোন করিনি, এসব ভুয়া খবর কেন আসে)। বিএনপির রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ শাসক আওয়ামী লীগের হাতে তুরুপের তাসের মতো এটি চলে যায়। এর মধ্য দিয়ে বিএনপির সমাবেশ করতে না পারা এবং তাদের নেত্রীকে গুলশান কার্যালয়ে অবরোধের মুখে পড়ার ইস্যুটিই তলিয়ে যায়। এদিকে অমিত শাহ যতই বলছেন কথা হয়নি, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার প্রেসসচিব মারুফ কামাল খান শুক্রবার রাতে এক বিবৃতিতে বলেন, গণমাধ্যমে যাই আসুক, আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে আবারও সবাইকে জানাতে চাই গণমাধ্যমে তাদের দেওয়া তথ্যই সঠিক। যেন বাংলাদেশের গণমাধ্যমই নয়, ভারতের মতো বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশের শাসক পার্টির প্রধান অমিত শাহও মিথ্যাচার করছেন। মানুষের কাছে অমিত শাহর বক্তব্যই যে গ্রহণযোগ্য হচ্ছে বিএনপি সেটিও বুঝছে না। এমনকি পশ্চিমবাংলার আনন্দবাজার বলছে, বিএনপি কার্যালয় থেকে ফোন করা হয়েছিল কিন্তু অমিত শাহ বাইরে থাকায় কথা হয়নি। এখানে যার সঙ্গে কথা বলা হয়েছে বলে বিএনপি দাবি করছে সেখানে সেই অমিত শাহ যখন বলছেন কথা হয়নি তখন আমাদের তার বক্তব্যই বিশ্বাস করতে হবে। অথবা বিএনপি কোথায় বড় ধরনের ভুল করে বসেছে সেটি খতিয়ে দেখতে হবে। এদিকে অবরুদ্ধ বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসম্যানরা উদ্বেগ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বলে যুক্তরাজ্যভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস যে খবর প্রকাশ করেছিল তা তারা পরবর্তীতে প্রত্যাহার করে নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে। একইসঙ্গে তারা বলেছে, তারেক রহমানের সহকারী হুমায়ুন কবীরের মাধ্যমে ওই ভুয়া বিবৃতিটি তারা পেয়েছিল। ছয় কংগ্রেসম্যানের নামে দেওয়া ভুয়া বিবৃতিটিতে খালেদা জিয়াকে অবরুদ্ধ করা এবং উচ্চ আদালত কর্তৃক তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে নিন্দা জানানো হয়েছিল। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি পরিষদের পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান এড রয়েস ও কমিটির সদস্য এলিয়ট অ্যাঙ্গেল এক বিবৃতিতে বলেছেন, কোনো পক্ষের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য পূরণের জন্য যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের নামে ভুয়া বিবৃতি ব্যবহার কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তারা এই বিবৃতিকে বানোয়াট উল্লেখ করে বলেছেন, পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটি ও কংগ্রেস সদস্যদের অনেকে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এলেও কমিটি বা কোনো সদস্য এ ধরনের বিবৃতি দেননি। বিএনপির রাজনৈতিক নেতৃত্বের দেউলিয়াত্বই নয়, ক্ষমতায় আসা-যাওয়া একটি বড় রাজনৈতিক দলের নৈতিক ভিত্তিকেও জোরে ধাক্কা দিয়েছে এই দুটি ঘটনা।
এ ধরনের ঘটনা শুধু দলের জন্য বিপর্যয়ই ডেকে আনেনি, তার ক্রেডিবিলিটিকে প্রশ্নবিদ্ধই করেনি, রণকৌশল যে দেশের জনগণের ওপর থেকে সরে গিয়ে আস্থার জায়গায় বিদেশ-নির্ভর রাজনীতি ঠাঁই পেয়েছে তাই প্রতিফলিত হয়েছে। বাংলাদেশের রাজনীতিতে অতীতে এ ধরনের ঘটনা কখনো ঘটেনি। বিএনপি-জামায়াত শাসনামলে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার ওপর নৃশংস গ্রেনেড হামলার পর যুক্তরাষ্ট্র, ভারতসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দ তাকে টেলিফোন করেছিলেন এবং এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছিলেন। বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে ভারতের একজন রাজনীতিবিদ টেলিফোনে কুশল বিনিময় করতেই পারেন। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, করে থাকলে এটি হাঁকডাক করে গণমাধ্যমে দিতেই হবে কেন আর যখন ভারতের মতো গণতান্ত্রিক দেশের শাসক দলের প্রধান অস্বীকার করেন তখন আবার বিবৃতি দিয়ে অনড় অবস্থানে যেতেই হবে কেন?
বিএনপি বিশ্ব ইজতেমায় শরিক হওয়া মুসল্লিসহ জনদুর্ভোগের কথা কিংবা অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা অর্থহীন অবরোধ, যা মানুষ মানছে না তা কেন অব্যাহত রাখছে- সেই প্রশ্ন বিএনপির অভ্যন্তরেও দেখা দিচ্ছে।
আরও হরতাল-অবরোধের কর্মসূচির হাঁকডাক দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু ৫ জানুয়ারির উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে খালেদা জিয়া ও দলের সর্বশেষ অবস্থান খোলাসা করার জন্য এবং আগামী দিনের পরিকল্পনা সামনে নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন করতে পারতেন। দলের নেতা-কর্মীরা মাঠে নামতে পারছেন না, সাধারণ মানুষ এই হরতাল-অবরোধে অংশ নিচ্ছে না, জনগণের রাজনীতি জনগণকে নিয়ে করার পথটিই তো বিএনপিকে নিতে হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী গ্রেফতার হলেও সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে দলের অবস্থা বিচার বিশ্লেষণ করার জন্য কোনো বৈঠকও ডাকা হচ্ছে না। বিএনপির রাজনীতিতে একের পর এক ভুল রয়েছে। কিন্তু সেই ভুল শুধরে আত্মসমালোচনা, আত্মসংযম ও আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে জনমত পক্ষে নিয়ে আগামী দিনের রাজনীতিতে পথ হাঁটার কৌশল নিতে এখনো পারছে না। এখানে প্রশ্নটি বড় হয়ে দেখা দেয় কেন? প্রশ্ন উঠছে- বিএনপি আসলে চালায় কারা? এদের রাজনৈতিক প্রজ্ঞা কতটুকু, যারা বেগম খালেদা জিয়ার চারপাশে রয়েছেন? লন্ডনে নির্বাসিত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গেই বা কারা, যারা যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশের কংগ্রেসম্যানদের নামে বিবৃতি ছাপিয়ে দলকে ঝড়ের কবলে পতিত করেন? দুই জায়গায়ই যারা থাকুন না কেন তাদের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের গুণগত মান বলে যে কিছু নেই তা নতুন করে উন্মোচিত হয়েছে। একটি রাজনৈতিক দলের জন্য কঠিন পরিস্থিতির মুখে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জায়গাটি বড় হয়ে দেখা দেয়। এক্ষেত্রে সেনাশাসন জমানায় ভঙ্গুর বিএনপি এত বিপর্যয়ে না পড়লেও এখন পড়তে হচ্ছে। রাজনীতিটা রাজনীতিবিদদের নিয়ে করতে হয়। বিএনপিতে এখন রাজনীতিবিদের আকাল চলছে। এটি পরিষ্কার হয়েছে অনেক আগেই। ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে যেদিন শিবিরের হরতালের জন্য বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া বৈঠকসূচি বাতিল করেছিলেন সেদিন পর্যবেক্ষকরা বলছিলেন, এই হলো বিএনপির আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের নমুনা। তারপরও থামেনি। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে একের পর এক সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিশাল বিজয়ের পর জনজোয়ার পক্ষে থাকলেও সেটিকে নির্বাচনমুখী আন্দোলনে কাজে না লাগিয়ে জামায়াত-শিবিরের সহিংস হরতাল-অবরোধের ফাঁদে পা দেয় বিএনপি। শেখ হাসিনার গণভবনের দাওয়াত কবুল করতে ব্যর্থ হয়ে ভুলের পথেই পা বাড়িয়েছিল। জনমত ও দলের প্রার্থীরা ভোটলড়াইয়ে নেমে গেলেও ৫ জানুয়ারির নির্বাচন থেকে ছিটকে পড়ে বিএনপি। আন্দোলনের অংশ হিসেবেও সেটিতে অংশ নিতে পারত। সেই ভুলের খেসারত এখন বড় আকারে দিচ্ছে বিএনপি। ওইদিকে লন্ডনে বসে তারেক রহমানের জাতির ইতিহাসের মীমাংসিত সত্যকে নিয়ে নির্জলা মিথ্যাচার ও জাতির পিতাকে নিয়ে কটাক্ষ শাসকদেরকেই ক্ষুব্ধ করেনি, বিএনপি নেতৃত্বকেই প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। মানুষ যেখানে চাইছিল জাতির শোকাবহ ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়া একজন জাতীয় নেত্রী হিসেবে জন্মদিনের কেক কাটবেন না সেখানে উল্টো তারেক রহমানের বক্তব্য বিভক্তির রাজনীতির জখমের জ্বালা আরও বাড়িয়েছে। ’৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর আওয়ামী লীগের মতো রাজনৈতিক দলের ওপর অবর্ণনীয় নির্যাতন নেমে এসেছিল। জাতীয় নেতাদের হত্যার মধ্য দিয়ে সারা দেশের নেতা-কর্মীদের কারাগারে নিক্ষেপ করা হয়েছিল। একদিকে ছিল দমন, অন্যদিকে অপপ্রচার আর নেতাদের চরিত্রহনন, সেই পরিস্থিতি মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ মানুষের ওপর আস্থা অর্জনের অসীম ধৈর্যের পরীক্ষা দিয়ে পথ হেঁটেছে।
’৭৮ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ফলাফল জেনেও জেনারেল ওসমানীকে নিয়ে লড়েছে। ’৭৯ সালের সংসদ নির্বাচনে পার্টির ভাঙন নিয়েও অংশগ্রহণ করেছে এবং পরাজয় জেনেও ৩৯টি আসন নিয়ে সংসদে গেছে। ’৮১ সালের কাউন্সিলে দলীয় নেতৃত্ব দলকে যখন ভাঙনের মুখে ঠেলে দিয়েছিল তখন ভারতে নির্বাসিত মুজিবকন্যা শেখ হাসিনাকে ঐক্যের প্রতীক হিসেবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী নির্বাচিত করে নতুন সংগ্রাম শুরু করেছে। আন্দোলনের দীর্ঘ পথ হেঁটে শেখ হাসিনা নেতা-কর্মীদেরই সংগঠিত করেননি, জনমত পক্ষে টেনে দীর্ঘ ২১ বছর পর ’৯৬ সালের নির্বাচনে দলকে ক্ষমতায় এনেছেন। ২০০১ সালের নির্বাচনের পর সারা দেশের নেতা-কর্মীরা যখন শাসকদলের প্রতিহিংসার শিকার তখন আহত, পঙ্গু আর লাশের কফিনই টানেননি, একুশের গ্রেনেড হামলার মতো ঘটনাকে মোকাবিলা করে রাজনৈতিক নেতৃত্বের মেধা ও প্রজ্ঞার জোরে কৌশলী পথ হেঁটে ক্ষমতায় ফিরে এসেছেন। হঠকারী পথ আওয়ামী লীগ কখনো নেয়নি। তার পরের ঘটনাবলি সবার জানা। বিএনপিকেও রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, মেধার জোরে নেতা-কর্মীদের ভাষা শুনে রণকৌশল নির্ধারণ করেই আগামী দিনের রাজনীতির ছক তৈরি করতে হবে। না হয় এই দলের ভাগ্যে আরও করুণ পরিণতি হয়তো রয়েছে।
( বাংলাদেশ প্রতিদিন )


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ