• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৮:২৮ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে হাবিপ্রবির শিক্ষক সমিতির সংবাদ সম্মেলন

_DSC1011 copyদিনাজপুর প্রতিনিধি : ছাত্রলীগের নামে কতিপয় ছাত্রনেতা বিশ্ববিদ্যালয়কে জিম্মী করেছে এবং অপরাধের স্বর্গ রাজ্যে পরিনত করেছে।
মঙ্গলবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে হাবিপ্রবির শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ এ অভিযোগ করেন।
লিখিত বক্তব্যে হাবিপ্রবির শিক্ষক সমিতির সদস্য প্রফেসর ড. সফিকুল ইসলাম বলেন, ১১ জানুয়ারী একাডেমিক কাজ শুরু করলে ইফতেখারুল ইসলামের নেতৃত্বে বহিস্কৃত ছাত্র অরুণ, অনিন্দ্য, জাহিদ, হাবিব, লিটন, রানাসহ অন্যান্য সন্ত্রাসী ছাত্ররা দায়িত্বরত শিক্ষক প্রফেসর বলরাম রায়ের সাথে তর্কাতর্কি এবং এক পর্যায়ে জোরপূর্বক তাকে চেয়ার থেকে সরিয়ে দেয় এবং গেটের সামনে চেয়ার-টেবিল ছুড়ে ফেলে দেয় ও শিক্ষকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। ছাত্রলীগের এহেন সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বিশ্ববিদ্যালয়কে অচল করে রেখেছে। শিক্ষক, সাধারন ছাত্রছাত্রী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জিম্মী হয়ে পড়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে হাবিপ্রবির শিক্ষকরা সাংবাদিকদের কাছে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের একটি ফিরিস্তি তুলে ধরে বলেন, গত বছরের ২০ অক্টোবর ইংরেজি বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক নওশের ওয়ান ও ও ২২ অক্টোবর ডীন ড. মামুনুর রশিদসহ একাধিক শিক্ষককে শারিরীকভাবে প্রহার করে। অধ্যাপক মো. শামীম হাসন ও আতিকুল ইসলামকে অফিস কক্ষে শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করে। কৃষি অনুষদের শিক্ষক প্রফেসর মোবারক হোসেনের কক্ষে ঢুকে লাথি  মেরে চেয়ার থেকে ফেলে দিয়ে কপালে পিস্তল ঠেকিয়ে হুমকি দেয় ও কক্ষ ভাংচুর করে। এ সময় সহকারী অধ্যাপক মো. হানিফকে শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করে ও শিক্ষকদের নাম ফলক ভেঙ্গে এবং বিভিন্ন প্রকার হুমকি প্রদান। এছাড়াও শিক্ষক শেখ রাসেল ও মো. সরোয়ার হোসেন অভির কক্ষে প্রবেশ করে শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করে, বিএস অনুষদের কুতুব উদ্দিনকে একাডেমিক ভবনের রাস্তার সামনে একাধিকবার হুমকি প্রদর্শন এবং চাঁদা দাবী, ডিন এর অফিসে ঢুকে অফিস ভাংচুর করা ও ভীতি প্রদর্শন করা, মুক্তিযোদ্ধা ডা. ফজলুল হককে গুলি করে হত্যার হুমকি, পিস্তল ঠেকিয়ে প্রকৌশল শাখা থেকে চাঁদা আদায় করা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সভায় অতর্কিত হামলা করা, হল সুপারদের বিভিন্ন সময়ে হুমকি প্রদর্শন, টাকার বিনিময়ে সাধারন ছাত্রদেরকে হলে সিট দেয়া, শিক্ষকদেরকে কুরুচিপূর্ণ অকথ্য ভাষায় অহরহ গালিগালাজ করা, বিভিন্ন শিক্ষকের কুশ-পুত্তলিকা দাহ করা, ইচ্ছাকৃতভাবে শিক্ষকদেরকে অপমান করার উদ্দেশ্যে সিগারেট পান করে শিক্ষকদের মুখের উপর ধুয়া ছাড়াসহ অসংখ্য অপকর্মের হোতা ছাত্রলীগ নেতা ইফতেখারুল ইসলাম রিযেল। শিক্ষকরা ভবিষ্যতে ছাত্রলীগের আরো অপকর্ম প্রকাশ করা হবে বলে জানান। সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষকরা অবিলম্বে এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছাত্রদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। অন্যথায় তারা কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষনা করতে বাধ্য হবেন।
সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক সমিতির আহবায়ক কমিটির আহবায়ক প্রফেসর মোঃ মিজানুর রহমান ও সদস্য সচিব প্রফেসর ড. এটিএম শফিকুল ইসলাম, হাবিপ্রকির শিক্ষক প্রফেসর বলরাম রায়সহ অন্যান্য শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, দীর্ঘ দিন ধরেই হাবিপ্রবিতে ছাত্রলীগ নানা অপকর্ম চালিয়ে আসছে। প্রশাসন বা শিক্ষক কেউ প্রতিবাদ করেনি। অবশেষে গত ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে হাবিপ্রবি শাখার ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক অরুন কান্তি রায়কে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হলে শুরু হয় আওয়ামীপন্থী শিক্ষক ও ছাত্রলীগের দ্বন্দ। বহিস্কার আদেশ প্রত্যাহার ও ভিসিকে অপসানের দাবীতে ছাত্রলীগ প্রগতীশীল ছাত্র সংগঠনের নামে আন্দোলনে নামে। কিন্তু এতে ফল না হওয়ায় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে আন্দোলন করছে। অথচ ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সাথে অন্যান্য কোন ছাত্র সংগঠন নেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ