• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন |

নিঃস্ব মা-বাবার পাশে দাড়ালো নীলসাগর গ্রুপ

Nilphamari Pic 1সিসি নিউজ: নীলফামারীর ডিমলায় মেধাবী স্কুল ছাত্র মেহেবুব জাহেদীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে জমি-জমা বিক্রি আর ঋণগ্রস্ত হয়ে নিঃস্ব হওয়া মা-বাবার পাশে সহানুভুতির হাত বাড়ালো নীল সাগর গ্রুপ। নীলসাগর গ্রুপের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আহসান হাবিব লেলিনের প্রয়াত স্ত্রী  প্রকৌশলী শাহানা খানমের নামে করা শাহানা খানম ফাউন্ডেশনের পক্ষে থেকে ছেলের চিকিৎসা করাতে নিঃস্ব হওয়া মা-বাবার হাতে নগদ এক লক্ষ টাকা সহায়তা প্রদান করা হয়।
মঙ্গলবার দুপুরে ডিমলা উপজেলা শহরের কোরানীপাড়াস্থ মেধাবী স্কুল ছাত্র মেহেবুব জাহেদীর বাড়িতে মা মাজেদা বেগম ও বাবা আবু বেলাল সরকারের হাতে নগদ এক লক্ষ টাকা তুলে দেন শাহানা খানম ফাউন্ডেশনের পক্ষে নীলসাগর গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান অনুভব ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তামজিদুল আলম শাষন। এসময় অনুভব ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী শিশির রঞ্জন রায়, সমাজ সেবক  সাহিদ আহম্মেদ সান্তু, ডিমলা হিসাব রক্ষণ কার্যালয়ের অডিটর সাখাওয়াতুল ইসলাম।
অনুভব ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তামজিদুল আলম শাষন জানান, মেধাবী স্কুল ছাত্র মেহেবুব জাহেদীর চিকিৎসা করাতে জমি-জমা আর ঋণ করে নিঃস্ব হয়েছে তার মা-বাবা। এনিয়ে সম্প্রতি দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় ‘তবু মাথা নোয়াবার নয়’ শিরো নামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়।
এই প্রতিবেদনটি নীলসাগর গ্রুপের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আহসান হাবিব লেলিন দেখে প্রয়াত শাহান খানম ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে ওই ছাত্রটির মা-বাবার পাশে দাড়ানো চেষ্টা করেছেন।
ছেলের চিকিৎসা করাতে গিয়ে নিঃস্ব মা ওই উপজেলার কোরানী পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মাজেদা বেগম ও বাবা আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আবু বেলাল সরকার এই সহায়তা পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এসময় তারা বলেন‘
পৃথিবীতে এখনো কিছু মানুষের মানবতার কারণে মানুষ বেঁচে আছে, যার ফলে আজ আমি মানবতার সহযোগীতা পেলাম।’আপনারা আমার ছেলের পাশে দাড়িয়েছেন, আমি আপনাদের কাছে চিরকৃতজ্ঞ  থাকবো।
মা মাজেদা বেগম  জানান, ২০১০ সালে ছেলে মেহেবুব জাহেদীর কিডনী রোগ ধরা পড়ে। পরের বছর ২০১১ সালে ভারতের তামিলানাডু প্রদেশের ভেলোরের সিএমসি (খৃষ্টান মেডিক্যাল কলেজ) হাসপাতালে
কিডনী  সংযোযনের জন্য ভর্তি করা হয়। ওই বছরের ১ডিসেম্বর  কিডনী  সংযোযন করা হয়। ছেলের শরীরে কিডনী দেন  তার বাবা । ছেলের এই চিকিৎসা করাতে মোট ৪৩ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে। আর ৪৩লাখ টাকা সংগ্রহ করতে বিক্রি করা হয়েছে জমি। এছাড়্রা ঋণ নেওয়া হয়েছে বসতভিটা, স্বামী-স্ত্রীর চাকুরির জিপিএ ফান্ড থেকে। যা পরিশোধে স্বামী স্ত্রীর বেতনের টাকাতেও সাপ্তাহিক ও মাসিক কিস্তি  পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।
চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরলেও  চিকিৎসকের পরামর্শ  অনুযায়ী তিনমাস পর চেকআপের জন্য ভারতে যেতে হয়। প্রতিবার যাওয়া আসা ও চেকআপে ব্যায়  হয় প্রায় দুই লক্ষাধিক টাকা। এর বাইরেও মেহেবুব জাহেদীকে প্রতিমাসে খেতে হচ্ছে  প্রায় ২০ হাজার টাকার ওষুধ।
এক দিকে ঋণের বোঝা  অন্যদিকে ছেলের চিকিৎসা ব্যায়  নিয়ে উদ্দিগ্ন  মা মাজেদা খাতুন ও বাবা আবু বেলাল সরকার। তার পরেও হাল ছারতে নারাজ এই সন্তানের মা-বাবা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ