• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০১:২০ অপরাহ্ন |

অবরোধে ভেঙে পড়েছে জ্বালানি তেল সরবরাহ ব্যবস্থা

oilসিসি ডেস্ক: রেলের ওয়াগন সংকট পুরনো। টানা অবরোধের কারণে নতুন করে যোগ হয়েছে শিডিউল বিপর্যয়। সব মিলিয়ে ভেঙে পড়েছে জ্বালানি তেল সরবরাহ ব্যবস্থা। পর্যাপ্ত ওয়াগন না পাওয়ায় চট্টগ্রাম থেকে রংপুর ও সিলেট অঞ্চলে তেল পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না। পুলিশ প্রহরায় কিছু এলাকায় জ্বালানি তেল সরবরাহ করা গেলেও চাহিদার তুলনায় তা অপ্রতুল।

সরবরাহ না থাকায় উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোয় জ্বালানি তেলের সংকট প্রকট হয়ে উঠেছে। সেচ মৌসুমে এ ধরনের সংকট দুশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনকেও (বিপিসি)। সংকট উত্তরণে এরই মধ্যে সারা দেশের জেলা প্রসাশনিক (ডিসি) ও জেলা পুলিশ সুপারদের (এসপি) সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। আর ওয়াগন সংকট মোকাবেলায় রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে আজ জরুরি বৈঠকে বসছে বিপিসি ও রাষ্ট্রায়ত্ত তিন তেল বিপণন কোম্পানি।

এ বিষয়ে বিপিসির পরিচালক (বিপণন) মীর আলী রেজা বলেন, জ্বালানি তেল পরিবহন স্বাভাবিক রাখতে এরই মধ্যে সিলেট ও রংপুর জোনের ডিসি-এসপির কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে জ্বালানি মন্ত্রণালয় থেকেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ওয়াগন সংকট মেটাতে আজ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের কার্যালয়ে বৈঠক করা হবে। এখানে বিপিসি প্রতিনিধি ছাড়াও তেল বিপণনের তিন কোম্পানির প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।

জানা গেছে, বাঘাবাড়ী রুটে তেল সরবরাহে অন্য সময় সমস্যা না হলেও শীতে এসে নৌপথে নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় সমস্যা দেখা দেয়। এ সময়ে তেলবাহী জাহাজ উত্তরবঙ্গে যেতে পারে না। আবার খুলনার দৌলতপুর হয়ে পার্বতীপুর পর্যন্ত ট্রেনে কিছুটা তেল পরিবহন করা হয়। কিন্তু পার্বতীপুর থেকে রংপুর পর্যন্ত ৪২ কিলোমিটার রেলপথ ব্রড গেজ হওয়ার কারণে সেখান থেকে তেল আর রংপুরে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না। তবে পুলিশ পাহারায় রাতে কিছু ট্রাকে তেল পরিবহন করা হচ্ছে। যদিও তা খুব সীমিত।

রংপুর জেলা পেট্রল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী বলেন, জেলায় এখন কোনো অকটেন পাওয়া যাচ্ছে না। বাঘাবাড়ী থেকে পেট্রল সরবরাহ হচ্ছে না একেবারেই। পার্বতীপুর থেকেও পাঁচদিন ধরে পেট্রল আসছে না।

তিনি জানান, জেলায় ৪৫টি পাম্পে পেট্রলের দৈনিক চাহিদা ৪২ হাজার লিটার। অবরোধের কারণে প্রায় সব পাম্পে পেট্রল নেই। দু-একটিতে থাকলেও তা কেবল প্রশাসনের লোকজনকে দেয়া হচ্ছে।

বিপিসি সূত্র বলছে, উত্তরবঙ্গে সব মিলিয়ে এখন ১৮টি বিদ্যুকেন্দ্র রয়েছে। সেচ মৌসুমে বিদ্যুেকন্দ্রে জ্বালানি সরবরাহের পাশাপাশি সেচের তেলও সরবরাহ করতে হয়। কিন্তু টানা অবরোধের কারণে সেখানে তেল পৌঁছানো যাচ্ছে না। এতে সেচ কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সেচ মৌসুমের জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ এ তিন মাসে জ্বালানি তেলের চাহিদা থাকে সর্বাধিক। মৌসুমের ডিসেম্বর, এপ্রিল ও মে মাসে তেলের চাহিদা একই থাকে। সেচ মৌসুমে সারা দেশে আগামী ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন) ১৮ লাখ টন ডিজেলের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে জানুয়ারিতে জ্বালানি তেলের প্রয়োজন প্রায় সাড়ে তিন লাখ টন, ফেব্রুয়ারিতে প্রায় তিন লাখ ও মার্চে সোয়া তিন লাখ টন। এছাড়া সেচ মৌসুমের বাকি তিন মাসে সমানভাবে তেলের প্রয়োজন হয়। এ তিন মাসে তেলের প্রয়োজন প্রায় সাড়ে আট লাখ টন। দেশের উত্তরাঞ্চলকে ধান উৎপাদনের কেন্দ্র হিসেবে গুরুত্ব দিয়ে ওই অঞ্চলে পৃথকভাবে সেচের জন্য দুই লাখ টনের বেশি চাহিদা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ মৌসুমে জ্বালানি তেল সরবরাহ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে স্বয়ং বিপিসি। তেল ক্রয়ে অর্থ সংকট না থাকলেও রেলেওয়ের ওয়াগন সংকট আর অবরোধে পরিবহন না চলায় তেল সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে। এর সঙ্গে নদীর নাব্যতা হ্রাসের কারণে নৌ-চলাচল বাধাগ্রস্ত হওয়ায় বিকল্প উপায়েও তেল সরবরাহ ব্যাহত হচ্ছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, দেশে ধান আবাদ হয় প্রতি বছর গড়ে প্রায় এক কোটি হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে বোরো আবাদ হয় ৪৭-৪৮ লাখ হেক্টরে। এ বোরো আবাদেই সেচের প্রয়োজন হয় সবচেয়ে বেশি। এর বাইরে গম ও ভুট্টা আবাদেও সেচ দরকার পড়ে। এ কাজে ব্যবহার হচ্ছে প্রায় ১৪ লাখ গভীর ও অগভীর নলকূপ। এর মধ্যে ১১ লাখই ডিজেলচালিত। বাকি ৩ লাখ চলে বিদ্যুতে। বোরো মৌসুমের শুরুতে এ ধরনের তেলের সংকট আবাদ ও উৎপাদনে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।সূত্র:বণিক বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ