• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৬:৪০ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক চালাতে নারাজ

Dinajpur Map-1মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুরের ট্রাক মালিক ও ট্রাক চালকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক চালাতে অনিহা প্রকাশ করছে। অবরোধের কারণে গণপরিবহন চলাচল না করায় দিনাজপুর থেকে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় চাল, আলুসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। এদিকে বাজারে প্রতিটি পণ্যের দাম কয়েক গুন বৃদ্ধি পেয়েছে। রবিশষ্য ও সব্জি উৎপাদনকারী কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের মূল্য না পাওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। এদিকে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক বলছেন, সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুয়ায়ী ক্ষতিগ্রস্থদের ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে।
দিনাজপুর খাদ্য শস্য আড়তদার সমিতির সাধারন সম্পাদক প্রতাব কুমার সাহা পানু জানান, প্রতিদিন কমপক্ষে ২’শ ট্রাকে ৩ হাজার মেট্রিক টন চাল ঢাকা, চট্টগ্রামে পাঠানো হতো। ১৫ টন বাহী একটি ট্রাকের ঢাকা পর্যন্ত ভাড়া ছিল ১৬ হাজার টাকা। অবরোধের কারনে সেই ভাড়া ৩১ হাজার টাকা হয়েছে। চট্টগ্রামের ভাড়া ছিল প্রতি ট্রাক ২৮ হাজার টাকা সেই ভাড়া এখন ৫১ হাজার টাকায় দাড়িয়েছে। এরপরেও অবরোধের মধ্যে দ্বিগুন ভাড়া দিয়ে ও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গত কয়েক দিনে ১০-১২টি চাল বোঝাই ট্রাক পাঠানো হয়েছে। গড়ে ১৮০ টন করে চাল গেছে কিন্তু ট্রাক না পাওয়ায় চাল ও আলু পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। ফলে দিনাজপুরের বিভিন্ন অটো রাইস ও হাসকিং মিলে বিপুল পরিমাণ চাল মজুদ হয়ে আছে। মিল ব্যবসায়ীরা ধান ক্রয় না করায় হাট-বাজারে ধান বিক্রি করতে না পেরে কৃষকরা সর্বশান্ত হচ্ছেন।
দিনাজপুর ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি শহিদুল ইসলাম জানান, সরকারের নির্দেশে প্রতিদিন ১০-১২টি ট্রাক  পাঠানো হয়েছে।ইতিমধ্যেই ২৮-৩০টি ট্রাক দূর্বত্তরা জ্বালিয়ে দিয়েছে। ক্ষতিপূরনের জন্য দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের কাছে গিয়েছিলাম কিন্তু পর্যন্ত ক্ষতিপূরনের কোন চিঠি তিনি পাননি। তবে ক্ষতিগ্রস্থ ট্রাকগুলোর ছবি তুলে রাখার পরার্মশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। শহিদুল ইসলাম আরো বলেন, ক্ষতিপূরন না পেলে ট্রাক আর ছাড়া হবে না।
এদিকে ট্রাক ও ট্যাংলড়ী শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও দিনাজপুর জেলা ট্রাক ও ট্যাংলড়ী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক মোজ্জামেল হোসেন জানান, চালকরা ট্রাক চালাতে ইচ্ছুক কিন্তু অবরোধের কারনে সম্ভব হচ্ছে না। পরিবহনের ক্ষতিপূরনের ঘোষনা দিলেও চালকদের ব্যাপারে কোন ঘোষনা দেয়া হয়নি। ক্ষতিগ্রস্থ প্রতি চালককে ১৫ লক্ষ ও হেলপারকে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরন দেয়ার ঘোষনা না আসলে ট্রাক চলাচল বন্ধ থাকবে।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী বলেন, সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুয়ায়ী ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। তালিকা তৈরী করে ঢাকায় পাঠানোর পর চিঠি আসবে। তবে ট্রাক, চালক ও পণ্যোর ক্ষতিপূনের প্রক্রিয়া কি হবে চিঠি আসলেই তা পরিষ্কার হবে বলে তিনি জানান।
অপরদিকে অবরোধের নবম দিন অতিবাহিত হয়েছে। যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় বাইরে থেকে দিনাজপুরে কোন পণ্য প্রবেশ করতে পারেনি। ফলে বাজারে প্রতিটি পণ্যের দাম বেড়েছে কয়েক গুন। বাজার পরিদর্শন করে দেখা গেছে, মাছের দাম প্রতি কেজিতে বেড়েছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। ইলিশ মাছের দাম বেড়েছে প্রতি কেজিতে ২০০ টাকা। স্থানীয় মাছের দাম বেড়েছে প্রতি কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা।  দেশী মুরগীর দাম ছিল প্রতি কেজি ২৩৫ থেকে ২৪০ টাকা, বর্তমানে বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকা থেকে ২৭০ টাকা কেজি। বয়লার মরগীর দাম ছিল প্রতি কেজি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা। বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১৩৫ থেকে ১৪৫ টাকা। গরুর গোসত ছিল ২৫০ টাকা, কিন্তু বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ২৭০-২৮০ টাকা। সোয়াবিন তেল প্রতি লিটারে ২০-২৫ টাকা বেড়েছে। বর্তমানে প্রতি লিটার সোয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১১০-১১৫ টাকা। এভাবে প্রতিটি পন্যের দাম বেড়েছে প্রতি কেজি বা লিটারে ১০ থেকে ২০ টাকা প্রর্যন্ত। চালের দাম বেড়েছে প্রতি কেজিতে ৩ থেকে ৫ টাকা। আটার দাম বেড়েছে প্রতি কেজিতে ৫ থেকে ৮ টাকা। আমদানীকৃত প্রতিটি পণ্যের দাম বেড়েছে। ফলে সাধারন মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। তবে ডিজেল, পেট্রোল ও কেরোসিন তেলের দাম বৃদ্ধি পায়নি। এছাড়া অবরোধের ফলে দিনাজপুরের কৃষকদের উৎপাদিত সব্জির দাম পাচ্ছে না। তারা লোকসান দিয়ে এসব সব্জি বিক্রি করছে। ফলে তাদের উৎপাদন খরচই উটছে না।
দিনাজপুর থেকে প্রতি দিন আলু, ফুল কপি, পাতা কপি, বেগুন, সিম, গাজরসহ প্রচুর পরিমান শাক-সব্জি বিভিন্ন কাচাঁমাল ঢাকা ও দেশের অন্যান্য জেলায় সরবরাহ করা হতো। অবরোধের ফলে এখন দিনাজপুরে এসব কাঁচা শাক-সব্জির অর্ধেক দামে বিক্রি করতে হচ্ছে স্থানীয় বাজারে। ফুল কপি বিক্রি হচ্ছে জোড়া ১০-১২ টাকা, বেগুন ৭ থেকে ৮ টাকা, সিম বিক্রি হচ্ছে ৮ থেকে ১০ টাকা  কেজি। আবার অনেক পণ্য বিক্রি না হওয়ার ফলে পঁচে যাচ্ছে।কৃষক উৎপাদিত পণ্যের নায্য মূল্য না পাওয়ায় ব্যাপকভাবে আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। এর প্রভাব পড়বে বোরো আবাদে।
দিনাজপুরের কৃষক সর্বশান্ত হওয়ার ভয়ে হতাশায় পড়েছেন। সদর উপজেলার উলিপুরের সব্জি ও আলু চাষী মনিরুল ইসলাম জানান, “যে টাকা খরচ করি কপি, সিম, পালন শাক ও আলু আবাদ করিছু বেচিবা না পারিলে মুই শেষ হই জাম। ইরি আবাদ করিবা পারিম নাই।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ