• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০১:১২ অপরাহ্ন |

রংপুরে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রল বোমায় শিশুসহ নিহত ৫

image_113836_0.pngরংপুর: বুধবার রংপুরের মিঠাপুকুরে একটি যাত্রীবাহী বাসে দুর্বৃত্তদের ছোড়া পেট্রলবোমার আগুনে পুড়ে শিশুসহ নিহত পাঁচ যাত্রী নিহত হয়েছেন। অগ্নিদগ্ধ হয়ে আহত হয়েছেন ১৯ জন। আহতদের মধ্যে গত রাত সোয়া ১১টার দিকে তসিরুন বেগম (৬০) ও মিনার বেগমকে (২৩) ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সালাউদ্দিন তসিরুনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ ছাড়া মিনারা বেগমকে বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসক জানিয়েছেন, মিনারার অবস্থাও আশঙ্কাজনক।তিনটি লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে। নিহতের স্বজনেরা লাশ তিনটি তাদের বলে দাবি করলেও পুলিশ ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে সেগুলো হস্তান্তরের কথা জানিয়েছে। চরম নাশকতামূলক এ ঘটনায় আরো আট যাত্রী দগ্ধ ও ছয় যাত্রী আহত হয়েছেন। তাদের রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। হতাহতরা সবাই কুড়িগ্রামের উলিপুর ও চিলমারীর বাসিন্দা। এ ঘটনার পর ঘটনাস্থলের আশপাশের গ্রামগুলোতে চলছে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযান ও তল্লাশি। ভাঙচুর করা হয় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা আবদুল বাছেত মারজানের বাড়ি। বেলা ২টা পর্যন্ত গ্রেফতার করা হয়েছে আটজনকে। বিপুল পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে মিঠাপুকুরজুড়ে। ওই এলাকায় মানুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। রংপুর বিভাগীয় কমিশনার, ডিআইজি, ডিসি, এসপিসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তাব্যক্তিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। রংপুর পুলিশ সুপার আবদুর রাজ্জাক বিষয়টি নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, দুর্বৃত্তরা মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে কুড়িগ্রামের চিলমারী থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী নৈশ কোচ রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুরের বাতাসন ফতেহপুরে পৌঁছামাত্রই গাড়িতে পেট্রলবোমা ছুড়ে দেয়। এতে মুহূর্তেই পুরো কোচটিতে আগুন ধরে যায়। অগ্নিদগ্ধ হয়ে শিশুসহ মারা যান চারজন। তাদের শরীর পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে। লাশ রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্ত করার জন্য রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় আটজন অগ্নিদগ্ধসহ ১৪ জন আহত হয়েছেন। তিনি জানান, চরম নাশকতামূলক এ ঘটনায় জড়িত দুর্বৃত্তদের গ্রেফতারে সাঁড়াশি অভিযান চলছে।

বড়দরগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই নাজমুল হক জানান, মহাসড়কের মিঠাপুকুরের জায়গীরহাটের দক্ষিণপার্শে ফতেহপুর ঝাউলাদীঘি এলাকায় চিলমারী থেকে ছেড়ে আসা খলিল এন্টারপ্রাইজের (ঢাকা মেটো-ব-১১-৬৮৬০) নৈশকোচে মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে পেট্রলবোমা ছুড়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। এতে তিনজন ঘটনাস্থলেই অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান। এ ছাড়াও আগুনে দগ্ধ হয়ে এবং জানালা দিয়ে নামতে গিয়ে আহত হন ১৪ জন। তাদের রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও রংপুর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে একজন সেনাসদস্যের স্ত্রীসহ তার পরিবারের বেশ কয়েকজন আছেন। বাসের চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছে।

হাসপাতালের রেজিস্টার থেকে পাওয়া তথ্য এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা মতে অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে একই পরিবারের আট সদস্য রয়েছেন। এর মধ্যে সেনাসদস্য নুর আলমের স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা মনোয়ারা বেগম, মেয়ে নুসরাত, নাদিয়া এবং বোন তছিরন ও আলেয়া, নাতনী ফারজানা, ভাগনে বউ মিনারা, ভাগনে আল আমিন, আনজুমান আরা রয়েছেন। তাদের মধ্যে অবস্থার অবনতি হওয়ায় গুরুতর অগ্নিদগ্ধ তছিরন ও মিনারাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। এ ছাড়াও অন্য আহতরা হলেন, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের কাশিমবাজারের লিয়াকত আলী, ভুরুঙ্গামারীর আন্ধারীঝার গ্রামের মোসলেমা, আবুবকর সিদ্দিক, উলিপুরের খামার গ্রামের আলমগীর, ধনিরাম গ্রামের মাহবুব, রাশেদা, ময়মনসিংহের সাবানিয়ার আমির হোসেন, রাজারহাটের পূর্ব বালাপাড়া এলাকার আনোয়ারা, রংপুরের পীরগঞ্জের মদনখালির বজলুল হক, সদরের মুনশীপাড়ার সালমান। তাদের মধ্যে রাতেই সেনাসদস্যের স্ত্রী মনোয়ারা, মেয়ে নুসরাত ও নাদিয়াকে রংপুর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। তাদের সবার বাড়ি কুড়িগ্রামের উলিপুর এলাকায় বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। তারা ঢাকা যাচ্ছিলেন। এ ছাড়াও আরো চার-পাঁচজন হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভর্তি আছেন।

মঙ্গলবার মধ্য রাতে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে কর্মরত ইন্টার্নি চিকিৎসক আমিমুল আহসান রাফি জানান, রাত দেড়টা থেকেই বার্ন ইউনিটে সব চিকিৎসক অগ্নিদগ্ধদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করেন। অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে তছিরনের ৯০ শতাংশ এবং আনজুমান আরার ৬০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে শুধু কান্না-আহাজারি আর চিৎকার। অগ্নিদগ্ধ যাত্রীরা জানান, তখন বাসের সব যাত্রী গভীর ঘুমে মগ্ন। হঠাৎ বিকট শব্দে দেখা যায় বাসের ভেতরে আগুন। কোনো কূলকিনারা না পেয়ে বাঁচার জন্য শুরু হয় মরণপণ দৌড়াদৌড়ি। দরজাও ছিল বন্ধ। দরজা জানালা ভেঙে পুরুষরা বেরিয়ে আসতে পারলেও মহিলা এবং শিশুরা দগ্ধ হন বেশি। ঘটে হতাহতের ঘটনা। তবে কে বা কারা, কোন দিক থেকে পেট্রল বোমা ছুড়ে দেয় তা জানাতে পারেননি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যাত্রীরা।

বুধবার সকালে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার দিলোয়ার বখত ও ডিসি ফরিদ আহম্মেদ হাসপাতালে গিয়ে আহতদের চিকিৎসা ও শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজের হাসপাতালের পরিচালক ভারপ্রাপ্ত ডা: আবদুল কাদের খান জানান, বার্ন ইউনিটে পাঁচজন রোগী ভর্তি হয়েছে। এরই মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি তাদের সারিয়ে তোলার। সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে পড়ে আছে পুড়ে যাওয়া অসংখ্য জুতা, স্যান্ডেল, শিশু, মহিলা ও পুরুষের পরিধেয় পুড়ে যাওয়া জামা, অঙ্গার হয়ে যাওয়া পোশাকের অবশিষ্ট, ট্রাংক, ব্যাগসহ বিভিন্ন বস্তু।

এ দিকে ঘটনার পর রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুর অংশসহ বিভিন্ন এলাকায় র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলাবাহিনী পুরো এলাকায় কড়া নজরদারি তৈরি করেছেন। সকালে ঘটনাস্থলে ছুটে যান রংপুর রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত ডিআইজি হুমায়ুন কবির, ডিসি ফরীদ আহাম্মদ, এসপি আব্দুর রাজ্জাকসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। পরে মিঠাপুকুর ইউএনও অফিসে তারা রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। দুপুরে বৈঠক শেষে ডিসি ফরীদ আহাম্মেদ বলেন, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি ও সিভিল প্রশাসনের যৌথ সভা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে আটজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতার অভিযান চলছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ডিআইজি (ভারপ্রাপ্ত) হুমায়ুন কবির জানান, সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার এবং শাস্তি নিশ্চিত করতে যা যা করা দরকার তার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এ দিকে যৌথবাহিনীর অভিযান শুরুর আগেই ঘটনাস্থলের আশপাশের গ্রামগুলো পুরুষশূন্য হয়ে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ