• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০১:০৬ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে হাবিপ্রবির ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ২০

songorsoদিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিকপ্রবি) ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অরুণ কান্তি রায় সিটনসহ উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ আট রাউন্ড টিয়ারসেল ও সাত রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। হাবিপ্রবির ছাত্রলীগের সভাপতিসহ ৪ নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
রোববার দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত এই সংঘর্ষ চলে। এ সময় বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা শহীদ তাজউদ্দীন হল, জিয়া হল, শেখ রাসেল হলসহ কয়েকটি হল ভাঙচুর করেছে। এছাড়া ক্যাম্পাসে দু’টি মোটরসাইকেল জ্বালিয়ে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা।
আহতদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা অরুণ কান্তি রায় সিটন, হাবিব, সিফাত, অন্তু, জাকারিয়াকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ত্রাসীদের হাত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়কে বাঁচানোর দাবিতে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের উদ্যোগে রোববার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়কে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে শিক্ষকদের পক্ষ নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাহিদ আহমেদ নয়নের নেতৃত্বে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরাও মানববন্ধন করে। এর কিছুক্ষণ পর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ইফতেখার আহমেদ রিয়েল ও সাধারণ সম্পাদক (বহিষ্কৃত ছাত্র) অরুণ কান্তি রায়ের নেতৃত্বে পাল্টা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।
এর জের ধরে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন। এ সময় বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা শহীদ তাজউদ্দীন হল, জিয়া হল, শেখ রাসেল হলসহ কয়েকটি হল ভাঙচুর করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ আট রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।
সংঘর্ষের পর বিপুল সংখ্যক পুলিশ হলে অভিযান চালিয়ে বিকেল ৫টায় ছাত্রলীগের সভাপতি ডা. ইফতেখারুল ইসলাম রিয়েল, ছাত্রলীগ নেতা এসএম জাহিদ হাসান, প্রত্যুষ রায় ও মিল্টনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় শিক্ষক পেটানোর মামলা রয়েছে। মামলার আরেক আসামী বহিস্কৃত ছাত্র ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অরুন কান্তি রায়কে গ্রেফতার করা হবে বলে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দাবীদার আসাদুজ্জামান জেমির গ্রুপের দাবী ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অরুন কান্তি রায় অরুনকে স্থায়ীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয়েছে সুতরাং সে কোন ভাবেই ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকতে পারে না। সে জন্যই দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জেমি ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।
দিনাজপুর কোতয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম খালেকুজ্জামান জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ তিন রাউন্ড টিয়ারসেল ও পাঁচ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে।
উল্লেখ্য, ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে ছাত্রলীগের তিন নেতাকর্মীকে বহিষ্কারের পর ছাত্রলীগ বিশ্বদ্যিালয়ে আন্দোলনে নামে। ফলে বিশ্ববিদ্যালয় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এই বিশৃঙ্খল পরিস্তিতি এড়াতে গত ৩০ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। প্রায় দেড় মাস পর গত ১১ জানুয়ারি খুলে দেয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়টি আবাসিক হল।
বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর ওইদিনই কয়েকজন শিক্ষককে লাঞ্ছনার অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার প্রতিবাদে একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হওয়ার আগেই অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ডাক দেয় হাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি। এরই মধ্যে ছাত্রলীগ দু’টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাহিদ আহমেদ নয়নের  নেতৃত্বে একটি গ্রুপ শিক্ষকদের পক্ষে অবস্থান নেয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ