• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৪:৩২ অপরাহ্ন |

সরকার আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে: জামায়াত

Jamat-2015ঢাকা: সরকারের ‘রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসী তাণ্ডব’ উপেক্ষা করে ২০ দলীয় জোটের ঘোষিত দেশব্যাপী মিছিল, সমাবেশ ও অবরোধ কর্মসূচি শানিত্মপূর্ণভাবে অব্যাহত রেখে ‘জালেম সরকারের’ পতন ঘটানোর জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী  জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান।
সোমবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ২০ দলীয় জোটের শান্তিপূর্ণ মিছিল, সমাবেশ ও গণঅবরোধ কর্মসূচির প্রতি ব্যাপক জনসম্পৃক্ততার কারণে সরকার আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। আতঙ্কিত সরকার সাড়ে ১৬ কোটি মানুষের বাঁচার অধিকার আদায়ের আন্দোলনের বিরুদ্ধে দলীয় ক্যাডার ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ব্যবহার করে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস সৃষ্টি করে দেশকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।
বিবৃতিতে বলা হয়, বিরোধীদলকে গণতান্ত্রিক পন্থায় রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলায় ব্যর্থ হয়ে সরকার হত্যা, খুন ও দমন-পীড়নের পথ বেছে নিয়েছে। রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এখন অস্ত্রের ভাষায় কথা বলতে শুরু করেছেন।
১৮ জানুয়ারি ঢাকার বিয়াম মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপে আওয়ামী লীগ নেতা ও খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ‘অস্ত্র দিয়েই আন্দোলন দমন করার ঘোষণা দিয়ে’ প্রমাণ করেছেন যে, তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না। গত ১৮ জানুয়ারী চট্টগ্রামের এক মতবিনিময় সভায় চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার এম. হাফিজ আক্তার ‘অর্পিত ক্ষমতা বলে পুলিশ অবশ্যই গুলি করবে’ বলে বেআইনী মন্তব্য করে খাদ্যমন্ত্রীর বক্তব্যেরই প্রতিধ্বনি করেছেন।
বিবৃতিতে বলা হয়, এর আগে বিজিবি মহাপরিচালক ও আইজিপি জনগণের বুকে গুলি চালানোর প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়েছেন। তাদের বক্তব্য দেশের সাড়ে ১৬ কোটি মানুষের বিরুদ্ধে। আমি তাদের এ ধরনের অন্যায়, অযৌক্তিক, উস্কানীমূলক, অসাংবিধানিক এবং বেআইনী বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তারা এ ধরনের দায়িত্বহীন ও অনৈতিক বক্তব্য দিয়ে সহিংসতাকেই উস্কে দিচ্ছেন।
বিবৃতিতে বলা হয়, ২০ দলীয় জোটের শানিত্মপূর্ণ আন্দোলনে দিশেহারা সরকার আন্দোলন দমনের জন্য আওয়ামী ক্যাডার ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ব্যবহার করে সারাদেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে ও জ্বালিয়ে দিয়ে এবং লুটপাট করে গ্রামগুলো জনশূন্য করে বিরানভূমিতে পরিণত করছে। ঐ উপজেলায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। সরকার নিজেই যদি তাণ্ডব সৃষ্টি করে তাহলে মানুষ কোথায় যাবে? আমরা সরকারের এ ধরনের সন্ত্রাসী তাণ্ডব বন্ধের জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।
বিবৃতিতে ডা: শফিকুর রহমান বলেন, সরকারের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসী তাণ্ডব ও গণগ্রেপ্তার অভিযান উপেক্ষা করে ২০ দলীয় জোটের ঘোষিত মিছিল, সমাবেশ ও অবরোধ কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে অব্যাহত রেখে এ জালেম সরকারের পতন ঘটানোর জন্য আমি দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।
গুমের পর জামায়াত নেতাকে হত্যার অভিযোগ
নড়াইল পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড জামায়াতে ইসলামীর সভাপতি এবং ১ নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত কাউন্সিলার অ্যাডভোকেট ইমরুল কায়েসকে অপহরণ করে হত্যা করার ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান।
সোমবার এক বিবৃতিতে বলা হয়, অ্যাডভোকেট ইমরুল কায়েস উচ্চ আদালত থেকে মামলার জামিন নেয়ার জন্য কয়েকদিন আগে ঢাকায় আসেন। তিনি তার এক স্বজনের বাসায় অবস্থান করছিলেন। ১৭ জানুয়ারী শনিবার ডিবি পুলিশ উক্ত বাসা থেকে তাকে উঠিয়ে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাওয়া যচ্ছিল না। আজ ১৯ জানুয়ারী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে তার লাশের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। ডিবি পুলিশ উঠিয়ে নেয়ার পর মেডিকেল কলেজ থেকে তার লাশ প্রাপ্তি থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে, সরকারের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাকে অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে।
বিবৃতিতে অ্যাডভোকেট ইমরুল কায়েসকে অপহরণ করে হত্যা করার ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের আহ্বান জানানো হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ