• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০২:১২ পূর্বাহ্ন |

রোগীর দুয়ারে হাসপাতাল

11হাবিবুর রহমান, চিলমারী (কুড়িগ্রাম): দিন বদলে গেছে। পাল্টে গেছে সবকিছুই। এই পাল্টে যাওয়ার ধরন এক নয়। একেক বিষয়ে পাল্টানোর রঙ ও গতি একেক রকম। এক সময় যা ছিল কল্পনায়, এখন তা হচ্ছে বাস্তব। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের যাত্রা শুরু পর থেকে রোগীকেই যেতে হতো চিকিৎসকের কাছে। হেকিমরা যেতেন রাজা-বাদশার দরবারে। কিন্তু কখনও সাধারণ মানুষের কাছে যেতেন না হেকিম সাহেবরা। আধুনিক যুগে কেউ ভাবতেই পারেনি, চিকিৎসার জন্য বিনা পারিশ্রমিকে চিকিৎসক সেবা দেবেন এবং হাসপাতাল পৌঁছে যাবে রোগীর দুয়ারে। তাও একদিন নয় প্রতিদিন। এখন সেই কল্পনাই হয়েছে বাস্তবে। হাসপাতাল ও ডাক্তার হেকিমরা এখন রোগীর দরবারে। কোন গ্রামে, কোন পাড়ায়, কোন মহল্লায় আর বস্তিতে রোগী আছেন কিনা তা খুঁজে বের করছেন তারা। এখানেই শেষ নয়। তাকে নিয়ে আসা হচ্ছে চিকিৎসার আওতায়। এই কল্পনাকে বাস্তবে রূপ দিয়েছে এ্যামিরেটস্ ফ্রেন্ডশীফ হাসপাতাল। এই প্রোগ্রামের কাজ দেশের যেখানে রোগী আছে, সেখান থেকে তাদের খুঁজে বের করে চিকিৎসা দেয়া। শুধু বেসরকারি উদ্যোগে পরিচালিত হচ্ছে ফ্রেন্ডশীফ ভাসমান হাসপাতাল। এতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাটি পালন করছে বেসরকারি এ্যামিরেটস্ ফ্রেন্ডশীফ হাসপাতাল। সমপ্রতি উপজেলার চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকার চোখ, তালুকাট, ঠোটকাটা, গলাগন্ড, মেয়েদের যৌন অপারেশন রোগীদের সঙ্গে কথা বলে এ সেবা সম্পর্কে জানা গেছে। এখন রোগীরা ডাক্তার ও হাসপাতাল খুঁজে বের করছেন না। বরং হাসপাতাল আর ডাক্তার খুঁজে বের করছে তাদেরকে। এমনকি ডাক্তার আর হাসপাতাল পৌঁছে যাচ্ছেন রোগীদের দুয়ারে দুয়ারে। উপজেলার প্রত্যন্ত মনতোলা চরাঞ্চলের সুজনী (৪০) নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছেন। তিনি বলেন, আল্লাহ আমাদের দিকে চোখ তুলে দেখেছেন গলাগ- অপারেশ করবো তা কখনো ভাবেনি কারন ছিল টাকার অভাব। ২৫ বছর পর তা সম্ভব হলো ফ্রেন্ডশীফ হাসপাতালের কারনে। তাও আবার চিকিৎসা দিল ঘরের দুয়ারে এসে। রমনা ঘাট এলাকার আমিনুল ইসলাম জানায় তার ছোট মেয়েটি আর্জিনা (৭) প্রায় ১ বছর আগে তার শরীরের বেশির ভাগ অংশ পুরে গিয়েছিল। টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারেনি। তিনি আরো জানান, ভেবে ছিলাম মেয়েটি হয়তো আর বাঁচবে না। সেখানে এখন শুধু বেঁচে আছে তাই নয়, ভালভাবেই বেঁচে আছে। বিশ্বাস করিনি কখনো হাসপাতাল, যন্ত্রপাতি আর ডাক্তার যে, বাড়ির দুয়ারে এসে বিনা পয়সায় চিকিৎসা দিবে। শুধু সুজনী আর বিজলী নয় তাদের মতো হাজারো মানুষের চিকিৎসা দিতে রোগীর দুয়ারে দুয়ারে চিকিৎসা সামগ্রী নিয়ে হাজির হচ্ছে এই হাসপাতাল। এ প্রসঙ্গে মেডিকেল অফিসার ডাঃ রতন কুমার খিসা বলেন, চাকরির প্রয়োজনে কাজ করতে এসে আমরা রোগীর পাশে দাঁড়াই। কিন্তু এক সময় তারাই হয়ে ওঠেন আমাদের আপনজন। সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালিয়ে তাদের সুস্থ করে তোলা তখন আমাদের একমাত্র দায়িত্ব হয়ে পড়ে। রোগী পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেলে যে আনন্দ অনুভব করি তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ আলি বলেন, মানুষ এখন জেনেছে আর নয় বহুদুর চিকিৎসাসেবা এখন ঘরের দুয়ারে এসেছে। ফ্রেন্ডশীফ মানুষের ভুল ধারণা পাল্টে দিচ্ছে। ভাসমান হাসপাতালটি ডাক্তার, ঔষধসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। মাঠপর্যায়ে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, রোগী কমছে না, বাড়ছে। শুধু চিলমারীতে নয়, বাংলাদেশের অনেক এলাকার চিত্র এখন এটি। গ্রামগঞ্জে রোগ নির্মূল কর্মসূচি পরিচালিত হওয়ায় নতুন নতুন রোগীর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে। তবে এটাকে রোগী বেড়ে যাওয়া বলতে রাজি নন সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, কর্মসূচির ব্যাপকতা বাড়ায় নতুন রোগী ধরা পড়ছে। আর জনসংখ্যা ও পরিবেশ এবং মানুষের অভ্যাস পরিবর্তন হওয়ায় অনেকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। টাকার অভাবে এক সময় দরিদ্র রোগীরা সেবার আওতায় আসতেন না। পরীক্ষা-নিরীক্ষায় অনেক খরচ। তা বহন করতে না পেরে তারা সেবার বাইরে থেকে যেতেন। ফ্রেন্ডশীফ ভাসমান হাসপাতাল এখন তাদের ব্যয়ভার বহন করে সেবা নিশ্চিত করছে। ফলে যারা বঞ্চিত থাকতেন সেই সব জনগোষ্ঠীও এখন সেবার আওতায় এসেছেন। চলতি মাসে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন প্রায় ৬হাজার জন রোগী। প্রতি মাসে গড়ে রোগী বাড়ছে ১শত থেকে দেড়শত জন করে। ফ্রেন্ডশীফ ভাসমান হাসপাতাল চিলমারীতে কাজ শুরু করে ২০১০ সালের ফ্রেবুয়ারী মাসে। ঐ বছরে ৪৭ হাজার ১৪৬ জন সেবা নিতে এসেছিলেন। ২০১৩ সালে রোগীর সংখ্যা ছিল ৫৭ হাজার ৬০৭ জন। আর ২০১৪ বছরের নভেম্বর মাস পর্যন্ত বিভিন্ন রোগের সেবা নিতে আসেন ৬৭ হাজার ২৫৬ জন। ফ্রেন্ডশীফ সহকারী ব্যাস্থাপক ও ফিল্ড অপারেশন মোঃ শফিয়ার রহমান বলেন, যখন এই প্রোগ্রাম শুরু হয় তখন প্রচার সেরকম ছিল না। কিন্তু এখন প্রচার, সেবা ও সুবিধা বাড়ায় রোগী বাড়ছে। অফিস সূত্রে জানা গেছে, মেডিসিন, ডেন্টাল, আই, ওটি, প্যারামেডিকেল বিভাগে সেবা দেয়ার জন্য ডাক্তারসহ ১৭জন সেবিকার মাধ্যমে সেবা দেয়া হচ্ছে। ভাসমান এই হাসপাতালটি পুরো উপজেলার মনতোলারচর, শাখাহাতির চর, নাওশালারচর, বজরাদিয়ার খাতা, সরদারপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবাসহ ঔষধ বিতরন করছে। এছাড়াও দুর্দুরান্তের ১ম বারের সেবা নেয়া রোগীদের নিজেদের নৌকা ও নৌ-এ্যামবুলেন্স দিয়ে হাসপাতালে এনেও চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এব্যাপারে ফ্রেন্ডশীফ নির্বাহী পরিচালক রুনা খানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমাদের উদ্দেশ্য জনগনের দ্বারে দ্বারে সেবা পৌঁছানো। উল্লেখ্য এই হাসপাতাল ছাড়াও আরো দু’টি লাইফবয় ফ্রেন্ডশীফ ও রংধনু ফ্রেন্ডশীফ ভাসমান হাসপাতাল দেশের বিভিন্ন জায়গায় মানুষের দ্বারে দ্বারে সেবা দিয়ে যাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ