• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০১:০৪ অপরাহ্ন |

সংকট উত্তরণে দুই নেত্রীর সমঝোতা জরুরি: টিআইবি

untitled-1_65811ঢাকা : দেশে বর্তমান সংকটময় পরিস্থিতিতে গণতন্ত্র ও সাধারণ মানুষের স্বার্থরক্ষায় দুই নেত্রীর (শেখ হাসিনা-বেগম খালেদা জিয়া) মধ্যে পারস্পারিক সমঝোতা অত্যন্ত জরুরি বলে মনে করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। সংকট থেকে উত্তরণের চাবিকাঠি দুই নেত্রীর হাতেই রয়েছে বলেও মনে করে সংস্থাটি।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টিআইবি’র পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এসব কথা জানানো হয়।
বিবৃতিতে বলা হয়, উভয় পক্ষের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সংহত ও দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে। বাস্তবে রাজনীতি যে জনগণের স্বার্থে ও তাদের অধিকার রক্ষায় তার প্রমাণ দেয়ার এখনই সময়।
সংস্থাটি মনে করে, ক্ষমতা কেন্দ্রিক রাজনৈতিক সহিংসতা এবং বলপ্রয়োগের অসুস্থ’ প্রতিযোগিতা অমানবিক ও নৃশংস রূপ ধারণ করেছে। সাধারণ নাগরিকের মৌলিক অধিকার হরণ করা হচ্ছে। দেশে সুশাসন ও গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রার পথে ঝুঁকি বাড়ায় টিআইবি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। এ পরিস্থিতিতে সকল প্রকার বলপ্রয়োগ, সহিংস ও অগণতান্ত্রিক আচরণ পরিহার করে শান্তিপূর্ণ উপায়ে সমঝোতার পথ অনুসন্ধানের আহ্বানও জানিয়েছে সংস্থাটি।
বিবৃতিতে টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, গণতন্ত্রের নামে দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক পক্ষ শক্তি প্রদর্শনের প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়েছে। এতে শিশু, নারী ও তরুণসহ সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার নিষ্ঠুরভাবে খর্ব হচ্ছে। জনগণের স্বাভাবিক জীবন যাপন থেকে শুরু করে স্বাভাবিক মৃত্যুর অধিকার ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে।
আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ জবাবদিহিতা ও আইনের শাসনের মৌলিক প্রতিষ্ঠানগুলোর নিরপেক্ষতা ও পেশাদারিত্ব ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে। যা দেশের গণতন্ত্র ও সুশাসনের সম্ভাবনার জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ।
ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন- জনসভা, মিছিল ও মানববন্ধনসহ সকল শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করা প্রত্যেক নাগরিক ও সংগঠনের গণতান্ত্রিক অধিকার। তবে সাধারণ মানুষের জীবনকে বিপন্ন করে আন্দোলনের নামে একদিকে সহিংস কর্মসূচি পালান করা হচ্ছে। অন্যদিকে পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাবের মতো আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকর্তৃক আইনের ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া হুমকিই শুধু নয়, লাখো শহীদের রক্তে অর্জিত স্বাধীনতার চেতনার পরিপন্থী ও রাজনৈতিক অঙ্গনে উগ্র অগণতান্ত্রিক শক্তির বিকাশের চাবিকাঠি।
ড. জামান বলেন, দেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট দেশের সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রাকে শুধু পেছনে ঠেলে দিচ্ছে না, বরং সুস্থ’ রাজনৈতিক সংস্কৃতির চর্চার অভাবে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো আজ অকার্যকর হয়ে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম ও স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছে রাজনীতি এক বিভৎস রূপে উপস্থাপিত হচ্ছে।
রাজনৈতিক অঙ্গনে এ ধরনের কর্মকা- উগ্র, সহিংস এবং অগণতান্ত্রিক শক্তিকে আরো বিকাশের সুযোগ করে দেবে উল্লেখ করে তিনি দেশের স্বার্থে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোকে (বিশেষ করে বড় দুটি দল)  সমঝোতা ও শান্তিপূর্ণ উপায়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের আহ্বান জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ