• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন |

সরকারের উসকানিতে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড : ২০ দল

20সিসি নিউজ: বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে উসকানি দেওয়া হচ্ছে বলে  অভিযোগ করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। একই সঙ্গে এসব ঘটনায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠানগুলোরও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এ জোটের নেতারা।

তারা বলছেন,‘ক্ষমতাসীনদের শীর্ষ পর্যায় থেকে শান্তি রক্ষার নামে দেখামাত্র গুলি, বিচার ছাড়াই হত্যা এবং দলীয় সন্ত্রাসীদের আইন হাতে তুলে নেওয়ার ক্ষেত্রে উসকানি দেওয়া হচ্ছে। যৌথ অভিযানের নামে বিভিন্ন জনপদে বিরোধীদের বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ-লুট করা হচ্ছে। তাদের পরিবারের সদস্যদের লাঞ্ছিত করার ঘৃণ্য ঘটনাও ঘটছে।’

বুধবার সন্ধ্যায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতি এই অভিযোগ আনা হয়।

বিবচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডকে ‘হানাদারি কার্যকলাপ’ আখ্যা দিয়ে অবিলম্বে তা বন্ধেরও দাবি জানানো হয় ওই বিবৃতিতে। তা না করলে পরিস্থিতির আরো নৈরাজ্যকর অবনতি ঘটবে এবং এর দায় পুরোপুরি হুকুমদাতা ও পরিকল্পনাকারীদেরই বহন করতে হবে বলে হুঁশিয়ার করা হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিবৃতিতে জোটের নেতারা বলেন, ‘নিরপেক্ষভাবে কর্তব্য পালনের ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহ্য রয়েছে। সুবিধাভোগী, দলবাজ ও পক্ষাপাতদুষ্ট অল্প কিছু কর্মকর্তার অতি উৎসাহ ও বাড়াবাড়ির কারণে সে সুনাম ক্ষুণ্ণ হতে পারে না।’

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের নিরপেক্ষভাবে আইনসম্মত পন্থায় কর্তব্য পালনের আহ্বান জানিয়ে জোট নেতারা বলেন, ‘তারা আমাদের প্রতিপক্ষ নন। আমরাও তাদের বিরুদ্ধে নই। আমরা আশা করি, এ দেশের সন্তান হিসেবে জনগণের প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান বজায় রেখে দেশবাসীর আশা-আকাক্সক্ষা ও অনুভূতির পক্ষে দাঁড়াবেন এবং কোনো অন্যায় ও বেআইনি আদেশ-নির্দেশ পালন থেকে বিরত থাকবেন।’

ক্ষমতা হারাবার ভয়ে স্বৈরাচারী শাসকগোষ্ঠী রক্তের নেশায় উন্মাদ হয়ে উঠেছে, এ মন্তব্য করে জোটের শীর্ষ নেতারা বলেন, ‘জুলুম-নির্যাতন, মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার, অপহরণ-গুম-খুন চালিয়েও শেষরক্ষা হচ্ছে না দেখে তারা (সরকার) এখন তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধের নির্মম নিষ্ঠুর নাটক সাজিয়ে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ধরে নিয়ে হত্যার তাণ্ডবে মেতে উঠেছে।’

রাজধানীর খিলগাঁও এলাকায় ছাত্রদল নেতা নুরুজ্জামান জনি, মতিঝিলে নড়াইলের পৌর কাউন্সিলর ইমরুল কায়েস ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় ছাত্রদল নেতা মতিউর রহমানকে গুলি করে হত্যার ঘটনা বিচারবহির্ভূত বেআইনি হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ উদাহরণ বলে উল্লেখ করেন তারা।

জোট নেতাদের অভিযোগ, এর আগে কর্মসূচি চলাকালে নাটোরে ছাত্রদল নেতা রাকিব হোসেন, সিংড়ায় ছাত্রদল কর্মী রায়হান আলী, রাজশাহীতে বিএনপি কর্মী মজিরউদ্দীন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে বিএনপি কর্মী মন্তাজ আলী, নোয়াখালীর সেনবাগে যুবদল কর্মী মিজানুর রহমান রুবেল, বেগমগঞ্জে ছাত্রদল কর্মী মহসিনউদ্দীন, সোনাইমুড়িতে ছাত্রদল কর্মী মোরশেদ আলম পারভেজ এবং চুয়াডাঙ্গায় বিএনপি নেতা সিরাজুল ইসলামকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও আওয়ামী  লীগের কর্মীরা নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে।

এসব বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘প্রতিটি হত্যাকা-ের জন্য ক্ষমতাসীনদের অবশ্যই দায়ী থাকতে হবে এবং জড়িত সবার বিরুদ্ধে আগামীতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনা এবং একটি জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার কায়েমের লক্ষ্যে জনগণের চলমান আন্দোলনকে সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ ও নিয়মতান্ত্রিক বলে দাবি করেন তারা।

বিবৃতিতে জোট নেতারা বলেন, ‘রাজনৈতিক আন্দোলনের নামে অতীত সন্ত্রাসী তৎপরতার হুকুমদাতাদেরও আগামীতে আইনের আওতায় আনার সুযোগ সৃষ্টি হবে। কাজেই সবাইকে সংযত ও পরিণামদর্শী হবার আহ্বান জানাই। হানাহানি ও দমন-পীড়নের পথ ছেড়ে সমঝোতার লক্ষ্যে পরিস্থিতিকে দ্রুত স্বাভাবিক করার দাবি করছি।’

নিরপরাধ মানুষের ওপর হামলার প্রতিকার ও বিচার দাবি করে তারা বলেন, ‘এজন্য সত্যিকার অপরাধীদের গ্রেফতার এবং সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় বিচারের মাধ্যমে তাদেরকে শাস্তি দিতে হবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ