• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন |

সেনানিবাসের কয়লা খোলা বাজারে বিক্রির চেষ্টায় বরাদ্দ স্থগিত

Koyla একরামুল হক বেলাল:  দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে রংপুর সেনানিবাসের নামে দেড় হাজার টন কয়লার বরাদ্দ নিয়ে তা খোলা বাজারে বিক্রির চেস্টা করেছে। বিষয়টি জানতে পেয়ে খনি কর্তৃপক্ষ মঙ্গলবার ওই বরাদ্দপত্র স্থগিত করেছে। বরাদ্দপত্রটি বিক্রি করতে পারলে মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজের মালিক মোহসিন আলী রাতিরাতি কোটিপতি বনে যেতেন বলে একধিক সুত্র জানা গেছে।
পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া খনি কর্তৃপক্ষ দ্বিতীয় ধাপে সারাদেশের ইটভাটা ও বয়লার চালিত শিল্প কারখানার নিকট পুনরায় কয়লা বিক্রি শুরু হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপে সাড়ে ৪ শতাধিক ইটভাটা ও বয়লার চালিত শিল্প কারখানার বিপরীতে প্রায় ১ লাখ মেট্রিক টন কয়লা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এবারে প্রতি মেট্রিক টন কয়লার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩ হাজার ৫০০ টাকা। এর আগে গত বছরের ডিসেম্বর মাসের দ্বিতীয়ার্ধে প্রতি মেট্রিক টন ১২ হাজার টাকা দরে সারাদেশের ৪২৭টি ইটভাটাসহ ৫৯৪টি প্রতিষ্টানের নিকট প্রায় ৬০ হাজার মেট্রিক টন কয়লা বিক্রি করা হয়।
জানা গেছে, রংপুর সেনানিবাস কর্তৃপক্ষ আর্মি মেডিকেল কলেজ, নার্সিং কজেল ও প্রতিবন্ধি স্কুল নির্মানের জন্য তাদের নির্ধারিত ঠিকাদার ও ইটভাটা মালিকের নিকট ৬ হাজার টন কয়লা চেয়ে গত ৩০ ডিসেম্বর জ্বালানি মন্ত্রণালয়, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ও বড়পুকুরিয়া খনির জেনারেল ম্যানেজার (অর্থ ও হিসাব) বরাবরে একটি পত্র দেয়। সেনানিবাস কর্তৃপক্ষ দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজ ও জে.এন ব্রিক্সকে ওই কয়লা সরবরাহ করার জন্য গত ৬ জানুয়ারী আরেকটি পত্র দেয়। এর প্রেক্ষিতে কয়লা খনির বোর্ড সভায় রংপুর সেনানিবাস কর্তৃপক্ষকে দুই ধাপে ৩ হাজার করে ৬ হাজার টন কয়লা সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সে মোতাবেক গত সোমবার (১৯ জানুয়ারী) খনি কর্তৃপক্ষ মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজ ও জে এন ব্রিক্সকে দেড় হাজার টন করে তিন হাজার টন কয়লার দুটি বরাদ্দপত্র দেয়। গতকাল দুপুরে মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজের মালিক মোহসিন আলী তার বরাদ্দপত্রটি নিয়ে খনি গেটে এসে সেখানে উপস্থিত বিভিন্ন ইটভাটা মালিকের নিকট তা বিক্রির চেষ্টা করলে স্থানীয় লোকজন বাধা দেয়। তাৎক্ষনিক ভাবে বিষয়টি খনি কর্তৃপক্ষ, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সাংসদ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমানকে জানানো হয়। পরে খনি কর্তৃপক্ষ ওই বরাদ্দটি স্থগিত করে।
সুত্রমতে, দেশে তীব্র কয়লা সংকট চলছে। কয়লার অভাবে অনেক ইটভাটা চালু হয়নি। পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া খনির কয়লা উৎপাদন সাতমাস বন্ধ থাকায় এ সংকট দেখা দেয়। এর ফলে, খনি কর্তৃপক্ষ যে কয়লা প্রতিটন সাড়ে তের হাজার টাকায় বিক্রি করছে, সেই কয়লা খোলা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৮ হাজার থেকে ২২ হাজার টাকায়। অনেক ইটভাটা মালিক খনি কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে কয়লা না পেয়ে ইটভাটা তথা ব্যবসা চালু রাখার সার্থে উচ্চমুলে তা কিনছেন। মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজের মালিক মোহসিন আলী দেড় হাজার টনের বরাদ্দপত্রটি বিক্রি করতে পারলে প্রায় এক কোটি টাকা মুনাফা করতেন বলে সুত্র জানায়। এ ব্যাপারে মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজের মালিক মোহসিন আলীর সাথে মোবাইলফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি খোলা বাজারে কয়লা বিক্রির অভিযোগ অস্বিকার করেন।
বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনুজ্জামান রংপুর সেনানিবাসের পক্ষে মেসার্স তানহা এন্টারপ্রাইজের নামে ইস্যুকৃত বরাদ্দপত্রটি স্থগিত করার বিষয়টি সিসি নিউজকে নিশ্চিত করে জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন-পাশর্^বর্তী পার্বতীপুর বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য পর্যাপ্ত মজুদ রেখে দ্বিতীয় ধাপে সাড়ে ৪ শতাধিক ইটভাটা ও বয়লার চালিত শিল্প কারখানার প্রত্যেককে ২০০ টন হিসেবে প্রায় ১ লাখ মেট্রিক টন কয়লা বিক্রির জন্য গ্রাহকদের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ