• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৬:৫৪ অপরাহ্ন |

অবরোধের রেলের আয় কমেছে ৪ কোটি টাকা

Trainসিসি ডেস্ক: টানা অবরোধে নাশকতা রোধে ট্রেনের গতি কমিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রায় অর্ধেক গতিতে ট্রেন চলায় দেখা দিয়েছে শিডিউল বিপর্যয়। আর এতে আয় কমে গেছে রেলের। ১০ থেকে ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত ১২ দিনে সংস্থাটির আয় কম হয়েছে প্রায় ৪ কোটি টাকা। পাশাপাশি রেলপথে পণ্য ও কনটেইনার পরিবহনও বন্ধের উপক্রম।

জানা গেছে, ৬ জানুয়ারি অবরোধ শুরু হলেও রেলপথে ১০ জানুয়ারি থেকে নাশকতা শুরু হয়। এতে দুটি ট্রেন লাইনচ্যুতসহ কয়েকজন হতাহত হয়। ফলে বাধ্য হয়ে ট্রেনের গতি কমিয়ে দেয় রেলওয়ে। স্বাভাবিক সময়ে ৫০-৬০ কিলোমিটার গতিতে ট্রেন চালানো হলেও বর্তমানে চলছে ২০-৩০ কিলোমিটার গতিতে। এর পরিপ্রেক্ষিতে রেলে শিডিউল বিপর্যয় চরম আকার ধারণ করেছে। ১০-১৬ ঘণ্টা বিলম্বে চলছে বিভিন্ন ট্রেন। এমনকি একদিনের ট্রেন অনেক সময় পরের দিনও যাচ্ছে। বাধ্য হয়ে কয়েকটি ট্রেনের যাত্রা বাতিলও করা হয়েছে। এর প্রভাব পড়েছে সংস্থাটির আয়ে।

চলতি বছর ১০ থেকে ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত ১২ দিনে রেলওয়ের ঢাকা ডিভিশনে ২৭টি স্টেশনে টিকিট বিক্রি হয় প্রায় ৭ কোটি টাকার। গত বছর একই সময়ে তা ছিল প্রায় ৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা। অর্থাত্ এ সময়ে ঢাকা ডিভিশনেই আয় কমেছে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। একইভাবে ১২ দিনে চট্টগ্রাম ডিভিশনে আয় কমে প্রায় ১ কোটি টাকা, লালমনিরহাট ডিভিশনে ৮০ লাখ ও পাকশী ডিভিশনে ৮০ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে আয় কমেছে প্রায় ৪ কোটি টাকা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. আমজাদ হোসেন বলেন, অবরোধে প্রথমে ট্রেন চালু রাখাকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। আর নাশকতায় ক্ষয়ক্ষতি ও হতাহতের ঝুঁকি এড়াতে গতি কমিয়ে দেয়া হয়েছে। এর প্রভাব পড়েছে রেলের আয়ে। তবে রেলওয়ে একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। তাই আয়ের চেয়ে সেবাকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

রেলওয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রেলের পিক সিজন। বিভিন্ন স্কুলে বার্ষিক পরীক্ষা শেষ হওয়ায় অনেকেই এ সময় গ্রামের বাড়িতে যান। বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা সফরও হয় এ সময়। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানও বেশি হওয়ায় ট্রেনে যাত্রীদের যাতায়াত বাড়ে। এছাড়া পর্যটনের জন্য উপযুক্ত সময় হওয়ায় ও পরিবেশ ভালো থাকায় বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠানের নানা রকমের প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয় ঢাকার বাইরে। এসবের প্রভাবে দুই ঈদ ছাড়া নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি সময়ে রেলে যাত্রী ও মালপত্র— দুটিই সবচেয়ে বেশি পরিবহন করা হয়। এ সময় প্রচুর অনুরোধ থাকে। কিন্তু টানা অবরোধ আর রেলপথ ঘিরে নাশকতায় টিকিট বরাদ্দ দেয়ার জন্য এবার কোনো অনুরোধ আসছে না। বাতিলও হয়েছে বেশকিছু বুকিং।

সূত্র জানায়, শিক্ষা সফরের জন্য ঢাকার স্কলাস্টিকা স্কুল থেকে ঢাকা-সিলেট রুটের তিনটি কোচ বুকিং দেয়া হয়। ১৫ জানুয়ারি ঢাকা থেকে রওনা ও ১৯ জানুয়ারি সিলেট থেকে ফেরার জন্য বুকিং ছিল। কিন্তু অবরোধের কারণে বুকিং বাতিল করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। একইভাবে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের ১৮০টি আসন বুকিং বাতিল করেছে বেসরকারি ওষুধ কোম্পানি সানোফি।

দুই সপ্তাহ ধরে টানা অবরোধে যাত্রী পরিবহনে নিম্নমুখী প্রবণতা চলছে রেলওয়েতে। এজন্য রেলের বিভিন্ন বিভাগ ও গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনের হিসাব পর্যালোচনা করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ সারা দেশের একটি চিত্র তৈরি করেছে। এতে রেল কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত হয়েছে যে, অবরোধে ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত সারা দেশে রেলের যাত্রী ও আয় প্রায় অর্ধেকের নিচে নেমে গেছে। এ ধরনের প্রবণতা অব্যাহত থাকলে আয় চলতি অর্থবছর রেলের লোকসান অনেক বেড়ে যাবে বলে কর্মকর্তারা মনে করছেন।

এদিকে নাশকতায় রেলের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সারা দেশে ঝুঁকিপূর্ণ ১ হাজার ৪১টি পয়েন্টের ৮ হাজার ৩২৮টিতে লোকবল নিয়োগ করা হয়েছে। এতে নাশকতা অনেকটাই কমে এসেছে। পাশাপাশি রাতে পাইলট ট্রেন চালানো হচ্ছে। এখন শিডিউল ঠিক করতে ট্রেনের গতি বাড়ানোর বিষয়টি বিবেচনা করছে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক বলেন, অবরোধে কোনো ট্রেন বন্ধ করা হয়নি। ৩৩৪টি ট্রেন চলছে। তবে শিডিউল বিপর্যয়ে যাত্রীদের কষ্ট হচ্ছে। বর্তমানে রেলপথে নাশকতা কমে আসায় দিনে গতি বাড়ানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে। আশা করা যায়, এতে পরিস্থিতি অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে আসবে।-বণিক বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ