• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৩:৩৩ অপরাহ্ন |

পড়ুন পাঠক পড়ুন

Sirajশাইখ সিরাজ : কেউ জানে না দেশ কোন দিকে যাচ্ছে। দিনের পর দিন ধ্বংস আর অচলাবস্থা বাড়ছে। মানুষের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা পৌঁছে গেছে চরমে। মৃতের সংখ্যা বাড়ছে, হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে ক্ষতবিক্ষত, দগ্ধ মানুষের ভিড়। চারদিকে যেন অনিশ্চয়তার আগুন জ্বলছে। সারা দেশে কৃষক তার শীতকালীন উৎপাদিত ফসল নিয়ে পড়েছে চরম বিপাকে। স্থানীয় বাজারগুলোতে পাইকার যেতে পারছে না। মূল্য না পাওয়ায় কৃষক ক্ষেত থেকে ফসল তোলাও বন্ধ করে রেখেছে। ক্ষেতের ফসল ক্ষেতেই পচে নষ্ট হচ্ছে। দেশের লাখ লাখ সবজি উৎপাদনকারী কৃষক পিছিয়ে যাচ্ছে বহুদিনের জন্য। প্রতিদিন শারীরিকভাবে যারা পঙ্গু, জখম হচ্ছে, তা তো নানাভাবে পত্রপত্রিকা, টেলিভিশনে দেখা যাচ্ছে; কিন্তু প্রান্তিক মানুষের লোকসান আর বহুমুখী ক্ষতির হিসাব বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই থেকে যাচ্ছে অজানা। দিনে দিনে দুর্ভোগ-দুর্দশা ছড়িয়ে পড়ছে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য। আজ আমি আমার ব্যক্তিগত কঠিন এক অভিজ্ঞতা তুলে ধরছি পাঠকের সামনে।

অনেকেই জানেন দেশে ব্রিটিশ কারিকুলাম পরিচালিত ‘এ’ লেভেল, ‘ও’ লেভেল পরীক্ষা চলছে। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষাও সামনে। দেশের টানা অস্থিতিশীল পরিবেশ ও অবরোধে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার প্রস্তুতি, ক্লাস, কোচিং সবই পৌঁছে গেছে চরম অনিশ্চয়তায়। মানুষের জীবন থেমে নেই; কিন্তু প্রতিদিনের ক্ষয়ক্ষতির চিত্রগুলো উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা, শঙ্কা বাড়িয়ে চলেছে। আমার ছোট ছেলে বিজয় এবারের ‘এ’ লেভেল পরীক্ষার্থী। বলে রাখি, ব্রিটিশ কারিকুলামে যারা পড়ছে তাদের জন্য ‘এ’ লেভেলের এই পরীক্ষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে এই পরীক্ষার সঙ্গে তার ভবিষ্যৎজীবনের সিদ্ধান্ত নির্ভর করে। এদের মধ্যে অনেকেই বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রস্তুতি নেয় এ পরীক্ষার সঙ্গে সঙ্গে।

২০ দলীয় জোটের ডাকে টানা অবরোধের ভেতরে গত ২১ জানুয়ারি সকাল থেকে শুরু হয় ৪৮ ঘণ্টার হরতাল। হরতালের কারণে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সিদ্ধান্তে ২১ তারিখের নির্ধারিত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। তারা শিক্ষার্থীদের জানিয়ে দেয়, হরতালের ভেতর কোনো পরীক্ষা হবে না। ওই দিন বিজয়ের কোনো পরীক্ষা ছিল না। পরদিন অর্থাৎ গতকাল ২২ তারিখ বিজয়ের পরীক্ষা। বিষয় ‘ইকোনমিকস ইউনিট-টু’। পরীক্ষা হবে ঢাকার বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে। পরীক্ষার্থী হিসেবে বিজয় প্রস্তুত। কিন্তু হরতাল থাকবে কি না, পরীক্ষা হবে কি না- সব মিলিয়ে নানা সংশয়। অভিভাবক বা বাবা হিসেবে ওর চেয়ে দ্বিগুণ সংশয় আমার। ব্রিটিশ কাউন্সিলের সঙ্গে শিক্ষা কারিকুলাম বিষয়ে যে প্রতিষ্ঠানগুলো নিবিড়ভাবে কাজ করে তাদের অন্যতম হচ্ছে ‘এডেক্সেল’ (ঊফবীপবষ)। এই প্রতিষ্ঠানের ঢাকার কর্মকর্তা সাইদুর রহমানের সঙ্গে আমার অনেক দিনের যোগাযোগ। বাধ্য হয়েই তাঁর শরণাপন্ন হলাম ২১ তারিখ দুপুরে। তিনি জানিয়ে দিলেন ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রথা ও নিয়ম অনুযায়ী এমন পরিস্থিতিতে পরীক্ষা না নেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা। বিশেষ করে ব্রিটিশ কাউন্সিলের একজামিনেশন সার্ভিসেস থেকে শিক্ষার্থীদের বরাবর পাঠানো এক ঘোষণায় জানানো আছে, লাগাতার হরতাল-অবরোধে ব্রিটিশ কাউন্সিল সবার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই পরীক্ষা বাতিল করবে। কিছুক্ষণ পর তিনি ফোন করে আমার জন্য একটি পথ বাতলে দিলেন। বললেন, যেহেতু চট্টগ্রামে হরতাল নেই, চাইলে ২২ তারিখের পরীক্ষায় বিজয়কে চট্টগ্রামের পেনিনসুলা কেন্দ্রে নিয়ে অংশগ্রহণ করাতে পারেন। আমার কাছে মনে হলো, যদি সম্ভব করা যায় শিক্ষাজীবনের জন্য এই সুযোগটুকুও হেলায় হারানো ঠিক হবে না। বাসায় আমার স্ত্রী সাহানা ও বড় ছেলে অয়নের সঙ্গে আলোচনা করলাম। পরীক্ষার্থী বিজয়ের মানসিক উৎকণ্ঠা আমি বুঝতে পারছি। চূড়ান্ত সময়ে এসে নতুন একটি কেন্দ্রে গিয়ে পরীক্ষা দেওয়ার সিদ্ধান্ত ওকে ফেলল অন্য রকম অনিশ্চয়তায়। তার পরও আশা, এত প্রতিবন্ধকতার পরও যদি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার সুযোগ পেলে একটি বছরের জন্য ও এগিয়ে গেল। না হলে তো বহু শিক্ষার্থীর মতো অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়তে হবে। যাহোক ২১ তারিখ বেলা শেষপ্রায়। চট্টগ্রাম যাওয়ার ব্যবস্থা করাটিই প্রথম কাজ। যেতে হলে রাতে বাস অথবা ট্রেন, সকালে ফ্লাইট অথবা হেলিকপ্টার। কথা বলে জানলাম, বাস-ট্রেন দুয়েরই কোনো নিশ্চয়তা নেই। ঝুঁকি শতভাগ। আমাদের ইমপ্রেস গ্রুপের আওতায় ইমপ্রেস এভিয়েশন নামে হেলিকপ্টার সার্ভিস রয়েছে। যোগাযোগ করলাম আমার ব্যবসায়িক পার্টনার মামুনের সঙ্গে। জানলাম, গত দুই দিন ঘন কুয়াশা ও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে ভিটিবিলিটি অসুবিধার কারণে হেলিকপ্টার ছাড়ছে না। বাধ্য হয়েই অপেক্ষাকৃত নির্ভরযোগ্য ও সময়ানুবর্তী অভ্যন্তরীণ এয়ারলাইনস ‘নভোএয়ার’-এ যোগাযোগ করলাম। টিকিটও পেয়ে গেলাম। সকাল ১০টায় ফ্লাইট। মনে মনে গোছানোর চেষ্টা করছি। সেই সঙ্গে চেষ্টা করছি বিজয়ের মানসিক চাপ কমানোরও। এর মধ্যে নিউজ রুমে বসা। সন্ধ্যায় হঠাৎ করে বিএনপি অফিস থেকে এক প্রেসনোট এলো। জানানো হলো, পরীক্ষার্থীদের পরিবহন হরতালের আওতামুক্ত থাকবে। এতে কিছুটা আশান্বিত হলেও পড়লাম নতুন ধন্দে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ব্রিটিশ কাউন্সিল কী সিদ্ধান্ত নিচ্ছে, তা জানতে বাংলাদেশের হাজার হাজার অভিভাবকের মতো আমিও উদ্বিগ্ন হয়ে উঠলাম। কিন্তু ব্রিটিশ কাউন্সিল রাতেও জানিয়ে দিল, পরীক্ষা হবে না। আমি সমাজের সামান্য সামর্থ্যবান একজন ব্যক্তি হিসেবে আমার সন্তানকে চট্টগ্রামে নিয়ে পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করছি; কিন্তু শত শত অভিভাবক তাঁদের সন্তান নিয়ে পড়েছেন চরম অনিশ্চয়তায়। আমার নিজেকে স্বার্থপর মনে হচ্ছে, কিছুটা অপরাধেও দগ্ধ হচ্ছি বৈকি। রাতে টেলিভিশনে স্ক্রল চলছে, নিউজে জানাচ্ছে। বিষয়গুলো নিয়ে আমার পরিবারের আবহই যেন পাল্টে গেছে। প্রায় অনিদ্রাতেই কাটল রাতটি। ২২ তারিখ সকালে উঠে গুছিয়ে ৯টার মধ্যে বিজয়কে নিয়ে আমি ও আমার স্ত্রী পৌঁছলাম এয়ারপোর্টে। নভোএয়ারের বোর্ডিং পাস নিলাম। প্লেন ছাড়ার নির্ধারিত সময়ের আগ মুহূর্তে পাইলট জানালেন, চট্টগ্রাম এয়ারপোর্টে হেভি ট্রাফিকের কারণে ছাড়তে ১০ মিনিট দেরি হবে। তারপর কেটে গেল ২০-২৫ মিনিট। আমাদের অপেক্ষা, ধৈর্যচ্যুতি, বিজয়ের মানসিক উত্তেজনা ও উৎকণ্ঠা সব মিলিয়ে অন্য রকম এক পরিস্থিতি। কারণ প্রতি মিনিট সময় হিসাব করা। চট্টগ্রামে ১১টায় পৌঁছব, সেখান থেকে হোটেলে পৌঁছতে কমপক্ষে এক ঘণ্টা লাগবে। তারপর দুপুরে খেয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে রওনা হব। পরীক্ষা শুরু হবে ৩টায়। কিন্তু এই মাপা সময়ের ভেতর এয়ারপোর্টেই কালক্ষেপণ। প্রতিটি সেকেন্ড যেন যাচ্ছে জানান দিয়ে। ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে এসে পাইলট জানালেন, ‘কারিগরি ত্রুটি’র (ঞবপযহরপধষ ঋধঁষঃ) কারণে ফ্লাইট ছাড়বে না। মাথায় যেন বাজ পড়ল। তখন রিজেন্টএয়ারের সকালের শেষ ফ্লাইটটি ছেড়ে যাবে। ছুটে গিয়ে চেষ্টা করলাম নভোএয়ারের টিকিট পাল্টে রিজেন্টের তিনটি টিকিট নিতে। এর মধ্যেই বারবার ফোন করছেন ‘এডেক্সেল’-এর সাইদুর রহমান। তিনি বলছেন, আপনারা যদি ফ্লাইটে না উঠে থাকেন, তাহলে আপনাদের না যাওয়াটাই ভালো। ঢাকায় পরীক্ষা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। অনেক অনিশ্চয়তার ভেতর আকস্মিক যেন আশার আলো ফিরে পেলাম। এয়ারপোর্ট থেকে বেরিয়ে গাড়িতে বাসায় ফিরছি। র‌্যাডিসন হোটেল পার হতেই আবারও সাইদুর রহমানের ফোন। জানালেন, না, পরীক্ষা হচ্ছে না। ব্রিটিশ কাউন্সিল মেইল করে প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে জানিয়ে দেবে পরীক্ষা স্থগিতের বার্তা। ততক্ষণে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী সকালের সব ফ্লাইট ছেড়ে গেছে। এক সকালের মধ্যে কত ঘটনা। কত রকমের মানসিক চাপ। প্লেনটি ওড়ার মুখে গিয়ে পাইলটের কাছে ধরা পড়ল কারিগরি ত্রুটি! শেষ পর্যন্ত উড়লই না। এই হচ্ছে অবস্থা। প্লেনে এমন কারিগরি ত্রুটি যেন নিত্যনৈমিত্তিক। সব কিছুতেই কেন এই বিচ্যুতি? একটি দেশের কোথাও নিষ্কণ্টক কোনো কিছু থাকবে না! আমাদের বয়স না হয় নানা রকম অনিশ্চয়তার মধ্যেই এত দূর পৌঁছল, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের স্বপ্নগুলোও কি এভাবেই দিনের পর দিন ম্লান হতে থাকবে?

যাহোক, একটি ব্যর্থ অভিযান শেষ করে গাড়িতে ফিরছি। ভাবছি হাজার হাজার শিক্ষার্থী আর অভিভাবকের কথা। নিশ্চয়ই সবাই আমার মতো এমন উৎকণ্ঠা আর অনিশ্চয়তায় সময় পার করছে। বছর দুই আগে এমনই এক অস্থিরতার ভেতর দিনে হরতাল থাকায় পরীক্ষা হয়েছিল গভীর রাতে। শত শত অভিভাবক তাঁদের সন্তানদের গভীর রাতে পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠিয়ে বাইরে অপেক্ষা করেছিলেন। সারা জীবন দেশের চিন্তা করে নিজের সন্তানদের বাইরের দেশে পড়ানোর চিন্তা কখনো করিনি। কিন্তু গাড়িতে বিজয় যখন বলল, ‘এই জন্যই তো বাইরে ভর্তি হতে চেয়েছিলাম’, তখন আমার আর জবাব নেই। নতুন উৎকণ্ঠা ও অনিশ্চয়তা বিজয়ের চোখে-মুখে। পরীক্ষা আদৌ কি হবে? আমি ভাবছি দেশটা এই উৎকণ্ঠা থেকে মুক্ত হবে কবে? লেখক : মিডিয়া ব্যক্তিত্ব। সূত্র: কালেরকণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ