• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১০:৪৮ অপরাহ্ন |

সর্ষে ফুলে ভরে গেছে চিলমারীর মাঠ

45f279acd6aa098744e094b1ce2cfa33-10হাবিবুর রহমান, চিলমারী: কুড়িগ্রামের চিলমারীতে বিস্তৃর্ণ সর্ষে ক্ষেতে শিশির ভেজা হলুদ ফুলে রোদের ঝিলিক ছড়িয়েছে কৃষকের চোখে মুখে। অনুকুল আবহাওয়ায় অধিক ফলনের আশায় নিয়মিত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন তারা।
একসময় এ অঞ্চলে প্রসিদ্ধ ছিল ঘানিতে ভাঙ্গা সর্ষের তেল। প্রতিটি পরিবারে ভোজ্য তেল হিসেবে ব্যবহার হত সর্ষের তেল। তেল উৎপন্ন শেষে ঘানিতে সর্ষের অবশিষ্টাংশ খৈল ব্যবহৃত হত গবাদী পশুর খাবার ও জমির উর্বরতা বৃদ্ধিতে। গ্রামের গৃহবধুরা মাথার চুল পরিস্কারেও খৈল ব্যবহার করত। সে সময় প্রতিটি কৃষক পরিবার নিজেদের প্রয়োজনে সর্ষের চাষ করত। সময়ের ব্যবধানে বাজারে এর বিকল্প নানা প্রকারের ভোজ্য তেল আসায় এবং কৃষক ধান চাষে ঝুকে পরায় কমে গেছে সর্ষের চাষ। শ্রম ও উৎপাদন খরচ কম এবং বাজার মূল্য বেশি হওয়ায় নতুন আগাম জাতের ধান কেটে একই জমিতে সর্ষেসহ তিনবার ফসল ফলানোর সবিধায় এ অঞ্চলে বেড়ে গেছে সর্ষের চাষ। বেলেরভিটা এলাকার মাওঃ মহফুজুর রহমান, মাটি কাটা এলাকার আঃ করিম, পাত্রখাতা এলাকার আলিপুদ্দিন, লাল মিয়া বলেন এক বিঘা জমিতে উৎপন্ন ধান বিক্রি করে যা আয় হয় তার চেয়ে কম শ্রম ও খরচে বেশি লাভবান হওয়া যায়। তাছাড়া একই জমিতে তিনবার ফসল ফলানো যায় বলেই আমরা আগের তুলনায় অধিক জমিতে সর্ষের চাষ করেছি। উপজেলা কৃষি অফিস জানায় অন্য ফসলের চেয়ে সর্ষে চাষে তুলনামূলক খরচ কম হওয়ায় আগাম জাতের ধান কেটে কৃষক এবারে বারি-৫৩০, বিনা ২৫ জাতের বীজ ৩৫৫ হেক্টর জমিতে সর্ষের চাষ করেছে। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯শত হেক্টর জমিতে। অর্জিত হয়েছে ৯১০ হেক্টর জমিতে। সঠিক পরিচর্যা ও অনুকুল আবহাওয়ায় তা আরো ছাড়িয়ে যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ