• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন |

ঝুঁকি নিতে ভয় পাননা আনুশকা

anushka-sharma-2_13026_2বিনোদন ডেস্ক: তাই তিনি এবার প্রযোজনার দায়িত্বটাও নিয়ে ফেলেছেন৷ কিন্তু অভিনয়-কেরিয়ারের চূড়ায় থেকেও হঠাত্‍ বাড়তি দায়িত্ব নিলেন কেন? উত্তর ভারতের এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে নতুন ছবি ‘ওনএইচ ১০’-এর শ্যুটিংয়ে ব্যস্ত আনুশকা শর্মার কাছে সেটাই বোঝার চেষ্টা করি।

ট্যুইট্যার অ্যাকাউন্টে ক্ল্যাপস্টিক-এর ছবি৷ সঙ্গের বাক্যে উজাড় করা উত্তেজনা! এই তো ক’দিন আগের কথা৷ অ্যাকাউন্টটি বলিউডের যে নায়িকার, তাঁর নাম আনুশকা শর্মা৷ ট্যুইটার অ্যাকাউন্টটিই বলছে, বলিউডের নতুন ছবি ‘এনএইচ ১০’-এর কাজ শুরু করে দিয়েছেন আনুশকা৷ কাজ মানে? অভিনয়৷ এবং প্রযোজনা৷ দু’টোই৷ আর কন্যার উত্তেজনা সেখানেই৷ ভাবখানা – এই দেখ, এবার প্রযোজক হয়ে গেলাম! নতুন কিছু করার আনন্দে তিনি টগবগ করে ফুটছেন৷ এখন আনুশকা শ্যুটিং ফ্লোরে পা রাখেন যখন তাঁর কাঁধে অনেক দায়িত্ব৷ নভদীপ সিং-এর ছবিতে তিনি শুধুই নায়িকা নন, ‘ফ্যানটম ফিল্মস’-এর সঙ্গে যৌথ প্রযোজকও বটে৷ অবশ্য ঝুঁকি নিতে তাঁর কোনও ভয় নেই৷ তিনি মনে করছেন, একজন অভিনেতা হিসেবেও সময়, এনার্জি, কেরিয়ারের একটা অংশ সবই তো ইনভেস্ট করতে হয় রোজ৷ তাতেই বা ঝুঁকি কম কোথায়? তাই নিজের আত্মবিশ্বাসকে আর টলাতে চান না তিনি৷ বরং নিজেকে আরও একটু স্পেস দিতে চান৷

আনুশকা বলেন, ‘আমি সব কিছুই করতে চেয়েছি ইন মাই ওয়ে৷ এমন কিছু করতে চাই না, যেটা আমায় অখুশী করবে৷ কিন্তু কেবলমাত্র নায়িকা থাকলে যে একটাই অপশন অ্যাভেলেবল থাকে৷’ পর্দায় শাহরুখ খানের বুকে মাথা রেখেছেন বহুবার৷ আদিত্য চোপড়ার ঘরের মেয়ে৷ বয়স মোটে ২৫৷ বাজারদরও ভালো৷ তা হলে? কী ঘটল যে হঠাত্‍ প্রযোজনা?
আনুশকা আরও বলেন, ‘প্রযোজক যে হবো, তা ভাবিনি৷ কিন্ত্ত এই ছবিটার চিত্রনাট্য যখন শুনছিলাম, মনে হল আর একটা ধাপ এগোলে কেমন হয়! আমার মনে হল, একটা ছবির জন্য আমি আরেকটু বেশি কিছু করতে পারি, আরও একটু কনট্রিবিউট করতে পারি৷ ইট ওয়াজ মোর অফ অ্যান ইনসটিঙ্কট৷ কিন্ত্ত একবার প্রযোজক হয়ে যাওয়ার পর মনে হচ্ছে এটা ভালো আইডিয়া ছিল৷’ তাঁর প্রযোজনা সংস্থার নাম ক্লিনস্লেট ফিল্মস৷ তবে কি দেখভালের দায়িত্ব তাঁর একার? আনুশকা বলছেন,’না, না৷ আমার সঙ্গে আমার ভাই কার্নেশও আছে এটায়৷ তবে ও আমার চেয়েও চার বছরের ছোট৷’ তারপর যোগ করছেন, ‘কিন্ত্ত ছোট হলে কী হবে, এখনও পর্যন্ত যেসব চিত্রনাট্য আমার কাছে আসে, সব তো আমি ওকেই শুনিয়েছি৷’ তার মানে প্রযোজকদ্বয় কেউ-ই ৩০-এর ঘরে পা রাখেননি৷ শুনে আনুশকা  বলছেন, ‘তাতে কী! এই ইন্ডাস্ট্রিতে এমন কেউ নেই যাঁর সঙ্গে আমি কথা বলেছি কেরিয়ার নিয়ে ফাইনাল ডিসিশন নেওয়ার আগে৷ একমাত্র আমার ভাই আমার জন্য ডিসিশন নিয়েছে৷ হি হ্যাজ আ গুড আই, অ্যান্ড নলেজ ফর স্ক্রিপ্টস৷ আর প্রোডাকশনের কিছু খুঁটিনাটি হয়তো আমি বুঝব না, কিন্ত ওগুলো ভাই দেখে নেবে৷’
 এ আবার কেমন কথা? যাকে হাত ধরে বলিউডে এনেছেন যশ রাজের আদিত্য চোপড়া, যিনি এই সেদিন পর্যন্ত ছিলেন সেই স্টুডিয়োর ঘরের মেয়ে, প্রায় সব ছবির নায়িকা, তাঁর হয়ে স্ক্রিপ্ট পছন্দ করে দিয়েছেন তাঁর থেকে চার বছরের ছোট ভাই? অনুষ্কা বলছেন, ‘হ্যাঁ, ওর সঙ্গে আলোচনা করেই কেরিয়ারের যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ চিত্রনাট্যতে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি৷’ অনুষ্কার প্রযোজনা সংস্থা এই মুহূর্তে সব ধরনের ছবি বানাতে চায়৷ প্রতিভাবান লেখক এবং পরিচালকদের সঙ্গে কাজ করতে চায়৷ বলিউডে নায়করা তো প্রযোজনা সংস্থা খুলতে শুরু করেছেন অনেক আগে থেকেই৷ আর বলাই বাহুল্য সেখানে তাঁদের মত চলে৷ তবে কি এবার আনুশকা শর্মাও তেমনই কিছু করবেন? নাকি তাঁদের জবাব দিতে কিছু? আনুশকা বলছেন, ‘আমি যখন রাজু হিরানিকে বললাম যে আমি এই ছবিটা প্রযোজনা করার কথা ভাবছি, উনি বললেন, এরকমই একটা কিছু উনি আমায় বলতে চাইছিলেন৷ কারণ এমন চিত্রনাট্য আমার খুঁজে বের করা দরকার যেখানে নায়িকা একটি ভালো চরিত্র করতে পারেন৷ সেটা কিন্ত্ত সবসময় বলিউডে পাওয়া যায় না৷ অনেক সময়ই দেখা যায়, মেয়েরা চিত্রনাট্যে যে ঘটনাটা ঘটছে তার একটা কারণ মাত্র, বা ছবিটায় মেয়েদের জীবনের কথা বলা হচ্ছে মাত্র৷ কিন্তু একজন নায়িকা হিসেবে আমার ইন্ডাস্ট্রিতে যতটুকু ওজন আছে, তাতে একটা চিত্রনাট্য পছন্দ হলে, এবং যদি মনে হয়, ছবিটি ভালো হতে পারে, তা হলে আমি কাজটাকে কিছুটা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি প্রযোজক হিসেবে৷ এটা আমার জন্যও সেল্ফ-এমপাওয়ারমেন্ট৷’
নায়কশাসিত বলিউডে, এবার নায়িকা নিজের জন্য যোগ্য চরিত্র খুঁজতে চান, আর সেই স্বপ্নকে গড়তে চান নিজের প্রযোজনায়৷ নাহ! কেরিয়ারের শেষ পর্যায়ে পৌঁছে নয়৷ বলিউডে পায়ের তলার মাটিটা সবেমাত্র শক্ত হতে শুরু করেছে যখন, ঠিক তখন থেকেই! হ্যাঁ, কেরিয়ারটাই পাখির চোখ তাঁর৷ যতই ‘বিরাট চর্চা’ হোক, ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কোনও খবর তিনি গ্রাহ্যও করেন না, সে সব প্রশ্নের উত্তরও দেন না৷


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ