• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০২:০৬ পূর্বাহ্ন |

ভারতের পররাষ্ট্রসচিব সেই সুজাতা সিং বরখাস্ত

sujata-shing_66898আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বাংলাদেশে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত একতরফা নির্বাচনে বিতর্কিত ভূমিকার কারণে বহুল আলোচিত সমালোচিত ভারতের পররাষ্ট্রসচিব সেই সুজাতা সিংকে বরখাস্ত করেছে নরেন্দ্র মোদির সরকার। টাইমস অব ইন্ডিয়ার অনলাইন প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানানো হয়।
বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার রাতে সরকারের কাছ থেকে এই অপ্রত্যাশিত ঘোষণাটি আসে। নতুন পররাষ্ট্রসচিব হিসেবে সুজাতা সিংয়ের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর।
সরকারি ঘোষণায় জানানো হয়, পররাষ্ট্রসচিব সুজাতা সিংয়ের মেয়াদ কাটছাঁটের সিদ্ধান্ত তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হচ্ছে।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনের প্রাক্কালে বিশেষ দূতিয়ালির জন্য এক সংক্ষিপ্ত সফরে বাংলাদেশে আসেন সদ্য বরখাস্ত হওয়া ভারতের পররাষ্ট্রসচিব সুজাতা সিং। বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে তখন তার ভূমিকা এতই বিতর্কিত ছিল যে কূটনৈতিক মহলে তা সমালোচনার ঝড় বইয়ে দেয়। অনেকেই মনে করেন তার বিতর্কিত ভূমিকার কারণেই ‘একতরফা’ সেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশেষ করে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে নির্বাচন নিয়ে তার কথোপকথনকে বিশ্লেষকরা কূটনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত আচরণ বলে অভিহিত করেন। সেই সময় এরশাদের সঙ্গে আলাপকালে করা তার সেই উক্তি ‘তাহলে তো জামায়াত-শিবির ক্ষমতায় আসবে, আপনি কি চান তারা আসুক?’ রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক সমালোচিত হয়েছিল।
নির্বাচন অনুষ্ঠান নিয়ে এরশাদের সঙ্গে তার যে আলোচনা হয়েছিল পরে এরশাদ সংবাদ সম্মেলন করে তা গণমাধ্যমকে জানিয়ে দেন। এরশাদের ভাষায়- ‘উনি (সুজাতা সিং) আমাকে বলেছেন-আপনারা নির্বাচনে থাকুন’। জবাবে আমি বলেছি ‘দেশের এখন যে অবস্থা তাতে নির্বাচন করা সম্ভব হবে না, নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই। সারাদেশে, গ্রামে-গঞ্জে সন্ত্রাস ছড়িয়ে পড়েছে। আমরা সবাই নিরাপত্তাহীনতায়, আমার দলের নেতা ও প্রার্থীরা নিরাপত্তাহীনতায়, কেউ নির্বাচনি এলাকায় যেতে পারছি না।’ সুজাতা সিং আমাকে বলেছেন ‘কেন, এই সরকার তো ভালো কাজ করেছে, আপনি থাকুন’। জবাবে তাকে আমি বলেছি-আপনি রাস্তায় গিয়ে একশজন মানুষকে জিজ্ঞাসা করুন, কেউ এ সরকারের পক্ষে বলবে না, তারা সবাইকে শত্রু বানিয়ে ফেলেছে। তাদের বাক্সে কোনো ভোট পড়বে না। সঠিক নির্বাচন হলে এক শতাংশ ভোটও পাবে না। আমরা সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচনে যাবো না।’ তখন তিনি এরশাদকে জামায়াত-শিবিরের উত্থানের ভয় দেখান।
একদিকে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে আলাপ করে বলেছিলেন ভারত বাংলাদেশে স্থিতিশীল পরিবেশ চায়, অপরদিকে আওয়ামী লীগকে যেকোনো মূল্যে নির্বাচন অনুষ্ঠান এবং সহিংসতা ও বিরোধী দলকে দমনের জন্য পাশে থাকার নিশ্চয়তা দেন।
সুজাতা সিংয়ের ব্যাপারে মোদি সরকারের পদক্ষেপকে অস্বাভাবিক হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। কারণ স্বাভাবিক অবসরের সাত মাস আগেই তাকে বরখাস্ত করা হলো। চলতি বছরের ৩১ আগস্ট তার স্বাভাবিক অবসরে যাওয়ার কথা ছিল।
২৮ বছর আগে ১৯৮৭ সালে পররাষ্ট্রসচিবের পদ থেকে এপি ভেঙ্কটেশ্বরণকে আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই অপসারণ করেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী। ওই ঘটনার পর এই প্রথম আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া আরেক পররাষ্ট্রসচিবকে অপসারণ করল মোদির সরকার। টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনের ভাষ্য, সুজাতা সিংয়ের ওপর অসন্তুষ্ট ছিলেন মোদি। বিগত
সময়ে প্রধানমন্ত্রীর এ অসন্তুষ্টি ঢাকা থাকেনি। যেকোনো সময় পররাষ্ট্রসচিবের পদে পরিবর্তনের একটা আলোচনা আগেই ছিল। তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ চাইছিলেন সুজাতা সিং শেষ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করুন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ভারত সফর শেষ হওয়ার এক দিন পরই পররাষ্ট্রসচিবের বিষয়ে মোদি সরকার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিল।
বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকার প্রতিবেদনে জানানো হয়, দুই বছরের মেয়াদকাল শেষ হওয়ার আগেই সুজাতা সিংকে বরখাস্ত করা হলো। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভার নিয়োগ কমিটি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভারতের পররাষ্ট্রসচিবের পদে সুজাতা ছিলেন তৃতীয় কোনো নারী।
মন্ত্রিসভার নিয়োগ কমিটির সিদ্ধান্তে উল্লেখ করা হয়, সুজাতা সিংয়ের স্থলে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্করকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।
সুজাতার বাবা সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা টিভি রাজেশ্বর রাজীব গান্ধীর আমলে গোয়েন্দা সংস্থার (ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো) পরিচালক ছিলেন। উত্তর প্রদেশের সাবেক এই গভর্নর কংগ্রেসের অনুগত বলে পরিচিত।
২০১৩ সালের আগস্টে পররাষ্ট্রসচিব পদে নিয়োগ পান সুজাতা। তার নিয়োগ নিয়ে তৎকালীন সরকারের মধ্যে বিভক্তি ছিল। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের পছন্দে ছিলেন জয়শঙ্কর। অন্যরা ছিলেন সুজাতার পক্ষে। শেষ পর্যন্ত পেরে ওঠেননি মনমোহন। কারণ সুজাতাকে নিয়োগের পক্ষে সিদ্ধান্তটা আসে খোদ কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর কাছ থেকে।
ভারতের পররাষ্ট্র বিভাগের চাকরিতে ১৯৭৬ ব্যাচের কর্মকর্তা ছিলেন সুজাতা সিং। তার এক ব্যাচ কনিষ্ঠ জয়শঙ্কর। তিনি ১৯৭৭ ব্যাচের কর্মকর্তা। অবসরে যাওয়ার মাত্র তিন দিন আগে পররাষ্ট্রসচিব পদে নিয়োগ পেলেন তিনি। ৩১ জানুয়ারি তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ