• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৬:২৭ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে ভাওয়াইয়ার কিংবদন্তি মহেশ চন্দ্রের মৃত্যূবার্ষিকী পালিত

Photo From Gopal Saidpur 29-01-2015সিসি নিউজ: ভাওয়াইয়া গানের কিংবদন্তি প্রয়াত মহেশ চন্দ্র রায়কে শ্রদ্ধা জানাতে বৃহস্পতিবার গানে গানে উদযাপিত হল তাঁর ২২তম মৃত্যূবার্ষিকী। দিবসটি পালনে নীলফামারীর সৈয়দপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বসেছিল শিল্পীর স্বরচিত ভাওয়াইয়া গানের আসর। ওই আসরে গীতিকার, সুরকার ও সংগীত শিল্পী মহেশ চন্দ্র রায়ের গান পরিবেশন করেন, রংপুর বেতারের ভাওয়াইয়া শিল্পী তরুণ কুমার রায়, কৃষ্ণ কমল রায়, বিনয় কুমার রায়, হোসনে আরা লিপি, দীঘলডাঙ্গী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা কল্পনা রানী রায়, সাবেক ছাত্রী দ্বিপাম্বিতা রায় মুক্তিসহ ভাওয়াইয়া পরিষদ ও মহেশ স্মৃতি সংসদের শিল্পীবৃন্দ। এর আগে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহর প্রদক্ষিণ করে। পরে সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও মহেশ চন্দ্র রায়ের মৃত্যুবার্ষিকী উদযাপন কমিটির আহবায়ক মো. জাওয়াদুল হক সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় মহেশ চন্দ্র রায়ের জীবন ও কর্মের ওপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সৈয়দপুর মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. হাফিজুল ইসলাম হাফিজ। পরে আলোচনায় অংশ নেন, সাবেক সাংসদ মো. আলিম উদ্দিন, সৈয়দপুর সরকারি কারিগরী মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ড. মো. আমির আলী আজাদ, সৈয়দপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি আমিনুল হক, মৃত্যুবার্ষিকী উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও প্রয়াত শিল্পীর নাতি প্রভাষক রঞ্জন কুমার রায় ও সৈয়দপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আনোয়ারুল ইসলাম প্রমূখ। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ছিলেন সৈয়দপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাকির হোসেন বাদল।
উল্লেখ্য, ১৯৯৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর প্রয়াত মহেশ চন্দ্র রায় রচিত “ধীরে বোলাও গাড়ী” (প্রথম খন্ড) নামে একটি গানের বই নীলফামারী শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে প্রকাশ পায়। ২০০৩ সালে বাংলা একাডেমি থেকে “মহেশ চন্দ্র রায়ের গান” এবং ২০০৭ সালে শিল্পকলা একাডেমিও একটি গানের বই প্রকাশ করে। এছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিষয়ে পাঠ্যসূচীতে অন্তর্ভুক্ত করা হয় শিল্পীর গান ও জীবনী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ