• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন |

চিলমারীতে অরক্ষিত রেলগেট : ঝুকিপূর্ণ জনজীবন

chilmari-30-1-15-rহাবিবুর রহমান, চিলমারী : সাবধান এই গেটে কোন গেট ম্যান নেই। পথচারী ও সকল যানবাহনের চালক নিজ দায়িত্বে পারাপার করিবেন। কোন রুপ দুর্ঘটনার জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য থাকিবেনা রেল কর্তৃপক্ষ। এমন সাইন বোর্ড লাগিয়ে রেল কর্র্তপক্ষ যুগ যুগ ধরে ফাঁকা রেখেছে কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার জনবহুল এলাকার তিনটি রেলগেট। উপজেলার প্রধান সড়ক চিলমারী কুড়িগ্রাম সড়ক, রাজারভিটা সড়ক ও খোঁদ রমনা রেল ষ্টেশন সড়কে যুগ যুগ ধরে অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে। ফলে এ সড়ক গুলোর উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যাত্রীবাহী বাস, কোচ, মাইক্রোবাস, অট, নছিমন, মটরগাড়ি, ট্রাকসহ বিভিন্ন ধরনের শতশত যানবাহন। চালক অসাবধান হলে যেকোন মুহূর্তে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।
জানা গেছে, ১৯৬৫ সালে ঐতিহ্যবাহী চিলমারী বন্দরের সাথে যোগাযোগের জন্য এই রুটে ট্রেন যোগাযোগ শুরু হয়। ঐ সময় এই রুটে ভোট ৪টায় লোকাল, সকাল ১০ টায় মেইল, দুপুর ১টা কাঞ্চন মেইল, রাত ১০টায় মোট ৪টি ট্রেন চলাচল করত কিন্তু কালের বর্তমানে চিলমারীর ঐতিহ্যবাহী নৌ-বন্দর বিলীন হয়ে যাওয়ার পর এই রুটে দুইটি লোকাল ট্রেন চলাচল অব্যাহত থাকে। কিন্তু যুগের পর যুগ কেটে গেলেও এই উপজেলার গুরুত্ব পূর্ন চারটি পয়েন্ট অথ্যাৎ রমনা রেল ষ্টেশন রোড, রমনাঘাট রোড, বালাবাড়ি রোড ও চিলমারী কুড়িগ্রাম সড়কের চারটি স্থনে এখন পর্যন্ত কোন রেলগেট বা গেটম্যান না দেয়ায়। প্রায় সময় ঘটছে দূর্ঘনা। মাটিকাটা এলাকার ঘুমটিঘরে রেলগেট ছাড়াই একজন গেটম্যান দেয়া থাকলেও এলাকাবাসী তা জানে না। উক্ত গেটম্যান জাকির হোসেন দায়িত্ব পালন না করে নিজেই আবার এলাকার বুলু কামারকে ঐ স্থানে নিয়োগ দেয় মাসিক ৭শত টাকার চুক্তিতে। এদিকে দীর্ঘদিন পর প্রায় ২মাস আগে মাটিকাটা রেল ক্রোচিংয়ে ঘুমটি ঘর ও রোড ব্যারিয়াল নির্মান হলেও তা প্রথম দিন থেকেই অচল হয়ে পড়ে আছে। এ সড়কের নাবিল কোচ চালক আবু বক্কর বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ চিলমারী-ঢাকা সড়কে কোচ চালিয়ে আসছি কিন্তু মাটিকাটা রেলগেটটি খুবই ঝুকিপূর্ণ। অট চালক হামিদুল জানান, চিলমারী রমনা ঘাট যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ দুটি রাস্তা রমনা, রাজার ভিটা ও থানাহাট বাজার সড়কে দুটি রেলগেট রয়েছে কিন্তু কোন রেলগেট বা গেটম্যান নেই ফলে চালক ও যাত্রীদের সাবধান থাকতে হয়। ট্রেনের হর্ণ শুনলেন দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। আর সাবধান না থাকলে দূর্ঘনার পড়তে হয়। রেল-নৌ যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়ন গন কমিটি কুড়িগ্রাম প্রধান সমন্বয়ক নাহিদ হাসান নলেজ বলেন, এই ৪টি প্রয়েন্টে রেলগেট ও গেটম্যান না থাকায় চরম নিরাপত্তায় পড়েছেন এই এলাকার মানুষজন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ