• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন |

ফুলবাড়ীতে তহবিল গঠনের নামে শিক্ষক সমিতির কমিশন বাণিজ্য

Durদিনাজপুর প্রতিনিধি : সরকারী সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে দিনাজপুরে শিক্ষার্থীদের উপর অতিরিক্ত বই কিনতে বাধ্য করে উপজেলা শিক্ষক সমিতিগুলো কমিশন বাণিজ্যে মেতে উঠেছে।
সরকারী ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত বিনামূল্যের সব সরবরাহ করে থাকে। যাতে করে শিক্ষার্থীকের বই কিনতে না হয়। কিন্তু সরকারের এই নিদ্ধান্ত মানছেন না জেলার কোন শিক্ষক সমিতি। বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপর চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে এই অনৈতিক সিদ্ধান্ত।
শিক্ষকরা জানায়, শিক্ষক সমিতির সিদ্ধান্ত না মানলে তাদেরকে বিভিন্নভাবে হয়রানী করা হচ্ছে। ফলে বাধ্য হয়ে তারা নিম্নমানের গাইড বই কিনতে বাধ্য হচ্ছে।
ফুলবাড়ী উপজেলা শিক্ষক সমিতি এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে গোপন চুক্তিতে ষষ্ঠ শ্রেণি হতে নবম শ্রেণি পর্যন্ন শিক্ষার্থীদের গাইড বইসহ অতিরিক্ত সহায়ক বই হিসেবে একটি তালিকা চাপিয়ে দিয়েছে। শিক্ষক সমিতির দেয়ার বইয়ের তালিকায় একটি বিশেষ প্রকাশনীর নাম দিয়ে ওই প্রকাশনী সহায়ক গাইড বই কেনার জন্য শিক্ষার্থীদের বাদ্য করাচ্ছে শিক্ষকরা।
এর কারণ হিসেবে জানা যায়, ফুলবাড়ী উপজেলার শিক্ষক সমিতি পার্বতীপুর উপজেলার দু’টি প্রকাশনা মালিকের সাথে ৮ লাখ টাকার চুক্তিতে আবদ্ধ হয়ে ওই প্রকাশনীর গাইড বই কিনতে বাধ্য করছে শিক্ষার্থীদের।
এদিকে শিক্ষক সমিতি দেয়া সহায়ক বইয়ের তালিকার বইগুলো নিম্নমানের হওয়ায় সেই বই বর্জন করেছেন ফুলবাড়ী উপজেলার স্বনামধন্য ফুলবাড়ী জিএম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও সুজাপুর উচ্চ বিদ্যালয়। এই প্রতিষ্ঠান দু’টি শিক্ষকরা জানান, শিক্ষক সমিতি দেয়া তালিকায় যে বই কেনার তাগিদ দেয়া হয়েছে, তা বাজারে প্রচলিত সহায়ক অন্যান্য বইয়ের তুলনায় ন্মিœমানের তাই তারা ওই তালিকার বই বর্জন করেছেন।
শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা জানান, সরকার যেখানে বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের বই সরবরাহ করছে, সেখানে কতিপয় কমিশনভোগি শিক্ষক কমিশিনের লোভে নামমাত্র প্রকাশনীর অতিরিক্ত সহায়ক বই হিসেবে চাপিয়ে দিয়ে কমিশন নিচ্ছেন। আর প্রকাশনী মালিকরা সেই টাকা তুলে নিচ্ছেন ইচ্ছেমত মূল্য লিখে দিয়ে। এতে করে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন গরিব-হতদরিদ্র শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাকেরা।
ফুলবাড়ী শিক্ষক সমিতির দেয়া তালিকায় “ফিউচার ইএনজি এন্ড ডটকম ফিউচার পাবলিকেশন” এর বাংলাদেশ ও বিশ্ব সাধারণ জ্ঞান, ফিউচার বাংলা ব্যাকরণ ও সিমিত এবং জুপিটার একের ভিতর সব নামক গাইড বই কেনার জন্য শিক্ষার্থীদের বাধ্য করা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে শিক্ষক সমিতির নেতা মিলন জানান, সরকার আগে গাইড বই ছাপা বন্ধ করুক তার আমরা বন্ধ করব। সারা দেশে সহায়ক বই দেয়া হচ্ছে তাই আমরাও দিয়েছি। এদিকে ফুলবাড়ী শিক্ষক সমিতির সভাপতি ইসলাম উদ্দীন জানান, আমরা একটি তালিকা দিয়েছি এটা সত্য, তবে আমরা প্রকাশনীর মালিক থেকে অর্থ নেয়ার বিষয়টি ঠিক নয়।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর জেলা শিক্ষা অফিসার মো. এনায়েত হোসেন বলেন, সরকারীভাবে ষষ্ঠ শ্রেণি হতে নবম শ্রেণির সব বই বিনামূল্যে সরবরাহ করা হচ্ছে। সরকারীভাবে ষষ্ঠ শ্রেণি হতে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত গাইড বই বা নোট বই সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কেউ শিক্ষার্থীদের গাইড বই বা নোট বই কিনতে উৎসাহিত করছে এমন অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা শিক্ষক সমিতির চাপিয়ে দেয়া বইয়ের হাত থেকে রক্ষা পেতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ