• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১২:১৩ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে লাগাতার অবরোধে জেলার ৬০ ভাগ চালকল বন্ধ

Catal-L20141127201318মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর : বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোটের ডাকা লাগাতার অবরোধের কারণে খাদ্যে উদ্বৃত্ত ও চালকলসমৃদ্ধ দিনাজপুর জেলার চালকল মালিকরা বিপাকে পড়েছেন। চালকল মালিকরা তাদের উৎপাদিত চাল বিক্রি করতে না পারায় লোকসানের মুখে পড়েছেন। একদিকে অবরোধ অন্যদিকে ভারত থেকে চাল আমদানী করায় দিনাজপুরের প্রায় শতাধিক চালকল বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে ৭-৮টি চালকল ব্যাংক ঋন পরিশোধ করতে না পারায় নিলামে উঠেছে। অন্য চালকল মালিকরাও তাদের ব্যবসা করতে না পারায় মিল বিক্রির উদৌাগ নিয়েছেন। এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত মিল-চাতাল শ্রমিকরাও পড়েছেন বিপাকে। তারা বেকার বসে অলস সময় পাড় করছেন।
দিনাজপুর জেলা চালকল মালিক গ্রুপ সূত্রে জানা গেছে, জেলায় প্রায় দুই হাজার চালকল রয়েছে। এর মধ্যে অটো চালকল ১৩৫ টি ও আর এর সঙ্গে জড়িত রয়েছে প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক। আর এসব শ্রমিকের পরিবার মিলে প্রায় লক্ষাধিক লোক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিদিন এসব মিলের জন্য কয়েক হাজার মণ ধান সংগ্রহ করে দিনাজপুরে আনা হয়। জেলার চালকলগুলোতে উৎপাদিত চাল ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রাকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে। দিনাজপুর থেকে প্রতিদিন গড়ে ১০০ থেকে ১৫০টি চালভর্তি ট্রাক দেশের বিভিন্ন স্থানে ছেড়ে যেত। কিন্তু লাগাতার অবরোধের কারণে ট্রাকসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় ধান-চাল আনা-নেয়া করা যাচ্ছে না। বর্তমানে ঝুঁিক নিয়ে ৩০-৪০টি ট্রাক ছেড়ে ছেড়ে যাচ্ছে। ফলে চালকলগুলোর উৎপাদিত চাল দেশের মোকামগুলোতে যেতে না পারায় অনেক মিল বন্ধ হয়ে গেছে। দিনাজপুর থেকে চাল সরবরাহ বন্ধ থাকায় এ যাবত প্রায় দেড় কোটি টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে চালকল মালিকদের। আর এ কারণে ব্যাংক ঋণের সুদ ও কর্মচারীদের বেতন দেয়াসহ অন্যান্য খরচ মিটাতে চালকল মালিকরা বিপাকে পড়েছেন। এ অবস্থা চলতে থাকলে ব্যাংক ঋণ নিয়ে ৫০ ভাগ মিল মালিক দেউলিয়া হয়ে পড়বে।
ইতোমধ্যে চালকলগুলোর গুদামে উৎপাদিত অবিক্রিত চালের পাহাড় জমে গেছে। চাল বিক্রি করতে না পেরে চালকল মালিকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। মাঠ পর্যায়ে কেনা ধান পরিবহন করে সংশ্লিষ্ট চালকলগুলোতে আনতে না পারায় এরই মধ্যে অনেক চালকল মিল বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে বাকিগুলোও বন্ধ হয়ে যাবার উপক্রম হয়েছে।
এদিকে এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকরা কাজ না পেয়ে বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। সেইসাথে চাল পরিবহনে জড়িত ট্রাক চালক ও শ্রমিকরা ভয়ে তাদের গাড়ি রাস্তায় বের করতে না পেরে অলস সময় কাটাচ্ছেন। চালকল মালিক আলহাজ্ব আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, লাগাতার অবরোধ ও হরতালের জন্য আমাদের ব্যবসা বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়েছে। আমরা এখানে যে চাল ভাঙ্গাচ্ছি, অবরোধের কারণে তা বিভিন্ন স্থানে পাঠানো যাচ্ছে না।
দিনাজপুর জেলা খাদ্যশস্য আড়ৎদার মালিক গ্রুপের সভাপতি প্রতাব সাহা পানু জানান, অবরোধের কারণে এ যাবত এক থেকে দেড় কোটি টাকার লোকসান হয়েছে। দিনাজপুর থেকে প্রতিদিন যেখানে গড়ে ১০০ থেকে ১৫০টি চালভর্তি ট্রাক দেশের বিভিন্ন স্থানে ছেড়ে যেত, সেখানে বর্তমানে ঝুঁিক নিয়ে ৩০-৪০টি ট্রাক ছেড়ে ছেড়ে যাচ্ছে। সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে রাস্তায় নিরাপত্তার অভাব। নিরাপত্তার কারণে মাল কিনে সংশ্লিষ্ট মোকামে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না।
দিনাজপুর জেলা চালকল মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব রেজা হুমায়ূন চৌধুরী শামিম (শামিম চৌধুরী) জানান, অবরোধ ও  হরতালের কারণে প্রায় ৬০ শতাংশ মিল বন্ধ হয়ে পড়েছে। ফলে চালকল মালিকদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে সব রাজনৈতিক দলকে এগিয়ে আসা উচিত বলে তিনি মনে করেন।
দিনাজপুর জেলা চালকল মালিক গ্রুপের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সহিদুর রহমান পাটোয়ারী মোহন জানান, একদিকে অবরোধ অন্যদিকে ভারত থেকে চাল আমদানী করায় দিনাজপুরের চালকল মালিকরা পথে বসেছেন। দিনাজপুরের বাজারে এক কেজি চাল বানাতে যেখানে ৩২ টাকা খরচ পড়ে, সেখানে আমদানীকারকরা ভারত থেকে ২৯-৩০ টাকা কেজিতে চাল আনছেন। ফলে দেশের মোকামগুলো মিলের চাল কিনছে না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ব্যাংক ঋণ নিয়ে আমরা বিনিয়োগ করেছি, জনবল সৃষ্টি করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছি। পরিশেষে সরকারকে আয়কর দিচ্ছি, কিন্তু আমদানকিারকরা সরকারকে আয়কর না দিয়েই ভারত থেকে চাল আমদানী করে মিল মালিকদের পথে বসিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ