• সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৮:২৭ অপরাহ্ন |

প্রাথমিক শিক্ষা কর্মসূচি থেকে অর্থ ফেরত নিচ্ছে দাতারা

PSCসিসি ডেস্ক: প্রাথমিক শিক্ষা খাতে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ তৃতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৩)। এরই মধ্যে কর্মসূচির ২১টি ক্ষেত্রে কেনাকাটায় ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এ-সংক্রান্ত দুর্নীতির বিষয়টি সরকারের একাধিক সংস্থার তদন্তেও প্রমাণ হয়েছে। এ অবস্থায় একটি দাতা সংস্থা কর্মসূচি থেকে অর্থ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে, আরো কয়েকটি সংস্থা ক্রয় প্রক্রিয়া পর্যালোচনা করছে। তাছাড়া তারা নজরদারিও বাড়িয়েছে। এতে অনিশ্চয়তায় পড়েছে কর্মসূচির বাস্তবায়ন। অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র জানায়, ২০১১ সালের শেষ দিকে পিইডিপি-৩ কর্মসূচির কার্যক্রম শুরু হয়। প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়ন, শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিতকরণ ও শিক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের দক্ষতা বাড়াতে নেয়া কর্মসূচির ব্যয় ধরা হয় ২২ হাজার ১৯৬ কোটি টাকা। এটি বাস্তবায়নের শুরুতেই বিশ্বব্যাংক ৩০ কোটি ডলার, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ৩২ কোটি ডলার ঋণ দেয়। প্রকল্পটিতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাজ্যের ডিএফআইডি, সুইডিশ সিডা, কানাডিয়ান সিডা, জাপানের জাইকা, ইউনিসেফ ও অজ-এইডসহ ১০টি দেশ ও দাতা সংস্থা আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে।

তবে শুরুতেই দুর্নীতির রাহুগ্রাসে পড়েছে কর্মসূচিটি। এরই মধ্যে ২১ পূর্ত কাজের ক্রয় কার্যক্রমে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। দুর্নীতিতে জড়িত ১৭ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া একই কারণে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) তিন প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বেশ কয়েকটি দাতা সংস্থা অনিয়ম চিহ্নিত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানায়। ২১ পূর্ত কাজের ক্রয় কার্যক্রমে চিহ্নিত অনিয়মের তদন্তে দাতা সংস্থার অভিযোগ প্রমাণও হয়। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় অনিয়ম স্বীকার করে দোষী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে।

দুর্নীতির অভিযোগে পিইডিপি-৩ থেকে ২৯ লাখ ৮০ হাজার ডলার (২৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা) প্রত্যাহার করার ঘোষণা দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া সরকারের দাতা সংস্থা ডিপার্টমেন্ট অব ফরেন অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড ট্রেড (ডিএফএটি)। গত ১১ ডিসেম্বর ইআরডি সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিনের কাছে চিঠি দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া সরকারের ঢাকা দূতাবাস। সংস্থার ছাড় করা পরের কিস্তিতে এ পরিমাণ অর্থ কম দেয়া হবে বলে ডিএফএটির কাউন্সেলর প্রিয়া পাওয়েল স্বাক্ষরিত চিঠিতে জানানো হয়েছে।

জানা যায়, দাতা সংস্থার চিহ্নিত করা ২১ কার্যক্রমের অনিয়মে জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে এলজিইডি তদন্ত করে। তদন্তে ১৭ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ক্রয় কাজে অনিয়মে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়। এসব প্রতিষ্ঠানকে এলজিইডি চার থেকে পাঁচ বছরের জন্য কালো তালিকাভুক্ত করেছে। এছাড়া অনিয়মে জড়িত রয়েছেন এলজিইডির দুই উপজেলা প্রকৌশলী ও এক উপসহকারী প্রকৌশলী। তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

যদিও কোনো দুর্নীতি হয়নি বলে জানান পিইডিপি-৩-এর তত্কালীন প্রকল্প পরিচালক ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক শ্যামল কান্তি ঘোষ। তিনি ওই সময় জানিয়েছিলেন, এ ধরনের একটি অভিযোগ আগে ছিল। কয়েকটি ভবন নির্মাণ করা হয়নি বলে অভিযোগ আসে; যা বিশ্বব্যাংক, এডিবিসহ অনেক দাতা সংস্থা যাচাই-বাছাই করে দেখেছে। কিন্তু তদন্তে তারা দুর্নীতির প্রমাণ পায়নি।

অস্ট্রেলিয়ান দূতাবাস প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে অর্থ প্রত্যাহার সংক্রান্ত চিঠির অনুলিপি পাঠিয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, কর্মসূচির আওতায় নেয়া ২১টি কেনাকাটার কাজে দুর্নীতি হয়েছে। ২০১১-১২ অর্থবছরের ক্রয়-পরবর্তী পর্যালোচনায় এসব দুর্নীতির সন্ধান পাওয়া গেছে। এসব পূর্ত কাজের টেন্ডার যথাযথ প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হয়নি বলে চিঠিতে দাবি করা হয়েছে। এ বিষয়ে বলা হয়েছে, ক্রয়কাজে দুর্নীতির কারণে ২৯ লাখ ৮০ হাজার ডলার প্রত্যাহার করা হবে। বাংলাদেশী মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় ২৩ কোটি ২৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

চিঠিতে আরো বলা হয়েছে, পরের কিস্তিতে ৫৫ লাখ অস্ট্রেলিয়ান ডলার দেয়ার কথা রয়েছে। ওই কিস্তিতে প্রত্যাহার করা অর্থ বাদ দিয়ে বাকি অংশ প্রদান করা হবে। এ বিষয়ে কোনো সংশোধনী থাকলে তা অস্ট্রেলিয়া সরকারকে দ্রুত জানাতে চিঠিতে অনুরোধ করা হয়েছে।

দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় কর্মসূচিটির সব অর্জন ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে বলে মনে করেন গণসাক্ষরতা অভিযানের প্রধান ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘শিক্ষায় দুর্নীতি হলে ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়। মাল্টি ডোনার সেক্টর কর্মসূচিটির অনেক অর্জন দুর্নীতির কারণে ম্লান হয়ে যাওয়ায় আমি হতাশ। এ কারণে পুরো কর্মসূচি এলোমেলো হয়ে যাবে।’ তিনি আরো বলেন, দুর্নীতি যেখানেই হোক তা নিন্দনীয়। শিক্ষা খাতে হলে তা আরো নিন্দনীয়। প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে অনেক দাতা আগ্রহী হয়ে উঠেছিল। একটি দাতা সংস্থার অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় অন্যরাও বিষয়টি নিয়ে ভাববে, যা কর্মসূচি বাস্তবায়নে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

এ প্রসঙ্গে ইআরডি সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন বলেন, ‘দাতাদের সঙ্গে আমাদের ক্রয়নীতিমালা বিষয়ে মতপার্থক্য রয়েছে। সেজন্য অনেক সময় কেনাকাটায় অনিয়মের অভিযোগ ওঠে, যা পরে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানও হয়ে যায়। সুতরাং এটি বড় কোনো সমস্যা নয়।’

বিশ্বব্যাংকের মধ্যবর্তী মূল্যায়নে বলা হয়েছে, প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির কারণে কর্মসূচিতে অর্থ সংকট চলছিল। তাছাড়া এক বছর মেয়াদ বাড়ায় কর্মসূচির বাস্তবায়ন ব্যয় ৯৮০ কোটি ডলারে উন্নীত হয়। এ প্রকল্পে এর আগে বরাদ্দ ছিল ৮৩০ কোটি ডলার। টাকার মান বেড়ে যাওয়ায় তা ৭৫০ কোটি ডলারে নেমে আসে। এ অবস্থায় কর্মসূচিতে ২৫০ কোটি ডলারের সংস্থান নিয়ে কিছুটা বিপাকে সরকার। যদিও এরই মধ্যে প্রকল্পটিতে বিশ্বব্যাংক ৪০ কোটি ডলার ও এডিবি ১২ কোটি ডলার সহায়তা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। এছাড়া বরাদ্দ বাড়াবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফর এডুকেশন (জিপিই)। তবে দুর্নীতির অভিযোগ উঠায় বাড়তি তহবিল সংগ্রহ কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

উল্লেখ্য, এ কর্মসূচির অধীনে দেশব্যাপী ৩ হাজার ৬৮৫টি শ্রেণীকক্ষ নির্মাণ, ২ হাজার ৭০৯টি বিদ্যালয় পুনর্নির্মাণ, প্রতি ৪০ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক নিয়োগ, ১ লাখ ২৮ হাজার ৯৫৫টি টয়লেট স্থাপন, ৪৯ হাজার ৩০০টি নলকূপ স্থাপন, ৫৩ হাজার ৭৫০টি প্রশ্রাবখানা নির্মাণ, ১১ হাজার ৬০০টি শ্রেণীকক্ষ মেরামত ও জেলা-উপজেলায় রিসোর্স সেন্টার নির্মাণ করার পরিকল্পনা রয়েছে।-বণিক বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ