• রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:২৮ পূর্বাহ্ন |

মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনি থেকে প্রতিদিন ৪ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন

Pathorআফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) : দিনাজপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে ঠিকাদারী প্রতিষ্টান জার্মানিয়া -ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) খনি থেকে  তিন শিফটে প্রতিদিন প্রায় ৪ হাজার মে.টন পাথর উত্তোলন করা হচ্ছ। যা মধ্যপাড়া পাথর খনিকে লাভের পথে নিয়ে যাচ্ছে, যা দেশে পাথরের চাহিদা পুরন করে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ে বড় ভুমিকা রাখবে।
গত ১ বছর আগেও মধ্যপাড়া পাথর খনি এলাকায় মরুভুমির মত অবস্থা ছিল  যেখানে আজ মরুভুমির বুকে মরুদ্যান। খনি থেকে প্রতিদিন  হাজার হাজার টন উত্তোলিত পাথরের মজুদ হতে থাকায় ভু –উপরস্থ খনি সীমানার অভ্যন্তরে  প্রায় ৯ টি স্থানে পাথরের পাহাড় গড়ে উঠেছে। জিটিসির মাধ্যমে এই  উৎপাদনের রেকর্ড ইতিপুর্বে কোরীয়ানদের তত্বাবধানে উত্তোলিত পাথরের  প্রায় ৫ গুন বেশি, যা মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনির ইতিহাসে একটি নতুন রেকর্ড বলে বিশেষজ্ঞদের ধারনা।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড, তেল -গ্যাস ও খনিজ সম্পদ কর্পোরেশন (পেট্রোবাংলা) এর সাবসিডিয়ারী প্রতিষ্ঠান যাহা বাংলাদেশ সরকারের জ¦ালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের অধীনে গত ১৯৯৪ ইং সালে দক্ষিন কোরীয় কোম্পানী নামনাম এর সাথে ৬ বছর মেয়াদী একটি উন্নয়ন চুক্তি স্বাক্ষর করে। চুক্তি অনুসারে  প্রতিদিন ৫ হাজার ৫ শ মে,টন হিসেবে বছরে ১.৬ মিলিয়ন টন পাথর উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়। কোরীয় নামনাম কোম্পানী তাদের চুক্তির নির্ধারিত সময়ের মধ্যে  উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত করতে না পারায় পেট্রোবাংলা ফের উন্নয়ন কাজ তদারকির জন্য পৃথক পোলিশ কোম্পানী কোপেক্স নামে একটি প্রতিষ্টানকে পরামর্শক নিয়োগ করে, একই সাথে নামনামের সাথে চুক্তির মেয়াদও বৃদ্ধি করা হয়। গত ২০০৬ ইং সালে প্রায় ৯ বছর পর মধ্যপাড়া পাথর খনিতে স্থানীয় খনি শ্রমিক নিয়োগ করে স্বল্প আকারে উৎপাদন শুরু করে। পরবর্তীতে ২০০৭ সালে বাণিজ্যকভাবে পাথর উত্তোলন শুরু হয় এবং প্রায় ৭ বছর ধরে দৈনিক মাত্র এক শিফটে গড়ে প্রায় ৭ শ থেকে ৮শ মে,টন পাথর উৎপাদনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল।
বর্তমানে মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টান জার্মানিয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) সুত্র জানায়, সরকারের সাথে বিগত  ২০১৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর কঠিন শিলা  খনির  ব্যবস্থাপনা, রক্ষানাবেক্ষন এবং উৎপাদন চুক্তির আলোকে তারা মৃত প্রায় এই খনিতে  বিদেশী ও দেশী খনি বিশেষজ্ঞ এবং দক্ষ খনি শ্রমিক নিয়োগ করে খনিটির বহু আকাক্সিক্ষত তিন শিফটে নিয়মিত উৎপাদন করতে সক্ষম হয়। ফলে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৪ হাজার মে,টন পাথর উত্তোলন করছে, যা কোরীয়ান কোম্পানীর অধীনে উৎপাদনের প্রায় ৫ গুন বেশী।
জিটিসি কর্তৃপক্ষ জানায়, উন্নয়ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে খনির ভু-গর্ভে আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন সহ নতুন স্টোপ নির্মাণের মাধ্যমে উৎপাদন ক্রমাগত বৃদ্ধি করে তাদের বাৎসরিক উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং চুক্তি অনুসারে ৬ বছরে ৯.২ মিলিয়ন টন উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে সক্ষম হবেন বলে আশা করছেন। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে দেশীয় কোম্পানীর দ্বারা দেশের খনিজ সম্পদ আহরনের ক্ষেত্রে  একটি নতুন মাইল ফলক হিসেবে বিবেচিত হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ