• রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:০৪ পূর্বাহ্ন |

স্কুল ক্যাম্পে মিলিটারি

School-Kamp-1418644870মোকাদ্দেস আলী রাব্বী।।
তানভীর ছুটছে। প্রাণপণে ছুটছে। খবরটা ওর বন্ধুদের দ্রুত দিতে হবে। প্রথমেই গেল  ছাইফুলদের বাড়ি। বাড়ির সামনে এসে ‘ছাইফুল, ছাইফুল’ করে ডাকতে ডাকতে ওদের বাড়িতে ঢুকল। তানভীরের ভয়ার্ত ডাক শুনে কিছুটা ভয় আর শংকা নিয়ে ছাইফুলের মা বের হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, কী হয়েছে বাবা? ওভাবে হাঁপাচ্ছো কেন?
ছাইফুল কোথায় খালাম্মা? ঘন ঘন নিঃশ্বাস নিতে নিতে জানতে চাইল তানভীর।
কী হয়েছে? খালাম্মা ভীত কণ্ঠে পুনরায় জানতে চাইলেন।
সর্বনাশ হয়েছে খালাম্মা!
কী সর্বনাশ বাবা?
মিলিটারি এসেছে। ছাইফুল কোথায়?
খালাম্মা তানভীরের কথার মর্ম প্রথমে বুঝতে না পারলেও পরে ঠিকই বুঝতে পারেন। গ্রামে নিশ্চয় মিলিটারি ঢুকেছে। তিনি জেনেছেন, গত ২৫ মার্চ রাতে ঢাকার রাজারবাগে পাক বাহিনী হামলা করেছে। পথে-ঘাটে যেখানে যাকে পেয়েছে হত্যা করেছে। পরদিন থেকে সারাদেশে যুদ্ধ লেগে গেছে। কিন্তু ওরা গ্রামে কেন এসেছে?
পুকুর পাড়ে গিয়ে ছাইফুলকে পায় তানভীর। ছাইফুল বড়শি দিয়ে মাছ ধরছিল। হাঁপাতে হাঁপাতে গিয়ে তানভীর বসে পড়ে ছাইফুলের পাশে। হঠাৎ এভাবে তানভীরকে দেখে ছাইফুল অবাক হয়। জিজ্ঞেস করে, কিরে, কী হয়েছে?
আমাদের স্কুলে…।
আমাদের স্কুলে কী?
মিলিটারি ঢুকেছে। চেয়ারম্যান চাচা বলেছে, ওরা বেশ কয়েকদিন থাকবে ওখানে। আমাকেও নাকি থাকতে হবে।
কেন?
চেয়ারম্যান চাচা বলেছে, ওদের যখন যা লাগে সাহায্য করতে।
ওরা এখানে কেন এসেছে? ছাইফুল জিজ্ঞেস করে।
তা তো জানি না। তবে মুক্তিযোদ্ধাদের খুঁজতে এসেছে বলে মনে হচ্ছে।
তাই হবে। তোর চাচা ওদের সহযোগিতা করবে বলে মনে হচ্ছে।
মনে হচ্ছে কী! সে তো সহযোগিতা করছে। ইচ্ছে করে, চাচাকে খুন করে ফেলি।
বাদ দে। বিপ্লব ভাইদের খবরটা দিতে হবে।
এ জন্যেই তো এলাম। এখন মিজানকে খবরটা দিতে হবে।
হ্যাঁ, মিজানই বিপ্লব ভাইদের ওখানে যাবে। ও যেন বিপ্লব ভাইদের সাবধান থাকতে বলে।
ছাইফুলের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে মিজানের কাছে ছুটে যায় তানভীর। একে একে মিজান, রুবেল, সবুজ সবাইকে খবর দেয়। খবর দিয়ে ফিরে আসার সময় ছাত্তার স্যারের বাড়ির কাছে থমকে যায় তানভীর। মিলিটারিরা স্যারকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে স্কুলের দিকে। রামচন্দ্রপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিতের শিক্ষক ছাত্তার স্যার। স্যারকে কেন ধরে নিয়ে যাচ্ছে ওরা। স্যার যে বিপ্লব ভাইদের সঙ্গে থাকে তা কি তারা জেনে ফেলেছে? কে জানাল? তাহলে কি চাচা কাজটা করেছে!
স্যারকে ওরা জোর করে নিয়ে যাচ্ছে। স্যারের পরনে সাদা রঙের চেক লুঙ্গি। গায়ে হাফ হাতা সাদা গেঞ্জি। স্যার যেতে চাচ্ছেন না। বার বার শুধু বলছেন, আমার অপরাধ কী?
স্যারের প্রশ্ন শুনে এক সৈন্য উত্তেজিত হয়ে কী যেন উর্দুতে বলল। সবটা তানভীর বুঝতে পারল না। তারপর স্যারকে আর কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে দুই পাশ থেকে দুজন ধরে প্রায় শূন্যে উঠিয়ে স্যারকে জিপে তুলল। জিপ ছুটে চলল স্কুলের ক্যাম্পে।
তানভীর একটু দূরত্ব রেখে পেছনে পেছনে ছুটল। স্কুলে গিয়ে দেখল স্যারকে চেয়ারে বসানো হয়েছে। মিলিটারিদের কয়েকজন পিছনে দাঁড়িয়ে। অন্য একজন স্যারের সামনে দাঁড়িয়ে মিট মিট করে হাসছে। এই লোকটিই সম্ভবত এখানকার হেড। তিনি গর্জে উঠলেন, বলুন, বিপ্লবরা কোথায়? বললে আপনাকে ছেড়ে দেব।
স্যার মাটির দিকে তাকিয়ে আছেন। কিছুই বলছেন না। অনেক বলেও যখন স্যারের মুখ থেকে ওরা কিছু বের করতে পারল না তখন ওরা তানভীরকে বলল, তোমার চাচাকে খানা রেডি করতে বলো, আমরা আসছি।
তানভীর চাচাকে খবরটা দিয়েই ছুটল কদম তলায়। ওখানে রাত ৮টার সময় মিজান, রুবেল, ছাইফুল, সবুজ সবাই অপেক্ষা করবে। আগে থেকে বলা হয়েছে আজ ওখানে একটা আলোচনা হবে। কদম তলায় সব সময় ওদের আড্ডা হয়। তবে রাতে আজই প্রথম। তানভীর যখন পৌঁছাল তখন ৮টা বাজেনি। অথচ পৌঁছে দেখে সবাই ওর অপেক্ষায় ব্যাকুল হয়ে বসে আছে। তানভীরকে দেখেও ওরা কেউ কিছু বলল না। সবারই কেন জানি মন খারাপ মনে হচ্ছে। তানভীর বুঝতে পারল, ওরা সবাই স্যারকে ধরার ব্যাপারটা জেনে গেছে। তাই মন খারাপ।  স্যার কখনও অযথা ছাত্রদের শাস্তি দেন না। খুব ভালো পড়ান। একবার না বুঝলে বার বার পড়া বুঝিয়ে দেন। কখনও বিরক্ত হন না। ছাত্রদের যেমন তিনি ভালোবাসেন, ছাত্ররাও তাকে শ্রদ্ধা করে।
তানভীরই প্রথম কথা বলে, মন খারাপ করিস না। স্যার ভালো আছে।
তানভীরের কথা শুনে সবাই চমকে উঠল। কোরাস কণ্ঠে বলল, কেন স্যারের কী হয়েছে? তানভীর ওদের প্রশ্নে আশ্চর্য হলো।
মানে, তোরা জানিস না সাত্তার স্যারকে ওরা ধরে নিয়ে গেছে। তবে এখনও গায়ে হাত তোলেনি।
কিন্তু কতক্ষণ? বলল মিজান।
রুবেল বলল, বিপ্লব ভাইকে তো তাহলে খবরটা দিতে হয়।
তানভীর বলল, ওরা স্যারের কাছে বিপ্লব ভাইদের কথাই জানতে চাচ্ছিল। কিন্তু স্যার বলেনি। তোরা কেউ গিয়ে বিপ্লব ভাইদের খবরটা দে।
ছাইফুল বলল, তানভীর তোর কাজ হচ্ছে মিলিটারিদের গোপন খবর পৌঁছে দেয়া। কখন কি ঘটে সব জানাবি আমাদের। আমরা জানাব বিপ্লব ভাইদের।
পরদিন সকালে যখন স্কুলে গেল তখন তানভীর খুব অবাক হলো। সাত্তার স্যার হাসি ঠাট্টা করছে মিলিটারিদের সাথে। শুধু তাই নয়, তারা সবাই একসঙ্গে খেতে বসেছে। এ দৃশ্য দেখে তানভীর ভাবনায় পড়ে গেল। স্যার কি তাহলে তার চাচার মতো ওদের সঙ্গে যোগ দিল?
হঠাৎ স্যার তানভীরকে ডাকল। তারপর একটা মুরগির রান দিয়ে বলল, তানভীর নাও, খাও।
স্যারের কোন কিছুতে তানভীর না করতে পারে না। তানভীর রান নিয়ে স্কুলের পেছনে পুকুর পাড়ে গিয়ে বসল। তারপর মুরগির রান ছুঁড়ে মারল পুকুরে। তানভীর কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছে না, স্যার ওদের দলে যোগ দিতে পারে। স্যারের প্রতি শ্রদ্ধা মুহূর্তেই নষ্ট হয়ে গেল ওর। তানভীরের খুব কান্না গেল।
কতক্ষণ ওভাবে পুকুর পাড়ে বসে ছিল তানভীর জানে না। হঠাৎ ক্লাস রুম থেকে মিলিটারির চিৎকার শুনল। দ্রুত ছুটে গেল সে। গিয়ে যা দেখল বিশ্বাস করতে পারল না সে। কিছুক্ষণ আগে স্যারের সঙ্গে যে সম্পর্ক সে দেখেছে এখন তার পুরোটাই উল্টো। স্যারকে চেয়ারে বসিয়ে দুই হাত বেঁধে একজন সৈন্য বলল, শেষ বারের মতো বলছি, বিপ্লবের ঠিকানা বলুন। আমরা আপনাকে ছেড়ে দেব।
স্যার এবার ভীত কণ্ঠে বললেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা অন্য একজন মুক্তিযোদ্ধার সর্বনাশ করতে পারে না।
স্যারের কথা শেষ হতেই একজন সৈন্য স্যারকে পা দিয়ে আঘাত করল। স্যার চেয়ারসহ উল্টে পড়ল মাটিতে। এবার বুট দিয়ে চেপে ধরে স্যারকে পেটাতে শুরু করল কয়েকজন।  স্যার দাঁত চেপে রেখে তীব্র ব্যথায় কুঁচকে গেলেন।
তানভীর আর সহ্য করতে পারল না। এক্ষুণি খবর দিতে হবে বিপ্লব ভাইদের। নইলে ওরা স্যারকে মেরে ফেলবে। তানভীর দৌড়াচ্ছে আর ভাবছে একটু আগেই সে স্যারকে ভুল বুঝেছিল। অথচ স্যার কী দৃঢ় কণ্ঠে বলছে, একজন মুক্তিযোদ্ধা অন্য একজন মুক্তিযোদ্ধার সর্বনাশ করতে পারে না। স্যারের প্রতি শ্রদ্ধায় তানভীরের বুকটা ভরে উঠল। সে প্রাণপণে ছুটতে লাগল বিপ্লব ভাইদের আস্তানার দিকে।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ