• রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৮:১৭ পূর্বাহ্ন |

আবার আসছে রফিকুল! আতঙ্কে শিক্ষক-কর্মচারীরা

Dinajpur Map-1দিনাজপুর প্রতিনিধি : নানা অনিয়ম, দুর্নীতি এবং নারী কেলেঙ্কারীতে রেকর্ড সৃষ্টিকারী দিনাজপুর জিলা স্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম আবার দিনাজপুরে আসছেন-এমন খবরে আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন দিনাজপুর-রংপুর অঞ্চলের শিক্ষক-কর্মচারীরা। শুধু তাই নয়, রফিকুলের দুর্নীতির থাবায় দিনাজপুর জিলা স্কুলসহ এ অঞ্চলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বিঘিœত হচ্ছে। সেই সাথে স্কুলগুলোতে নি¤œগামী হচ্ছে শিক্ষারমান। কারণ তার অনৈতিক কাজকে বৈধতা দিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক অবকাঠামো ঠিক থাকছে না। ফলে দিনাজপুর জিলা স্কুলসহ অনেক বিদ্যালয়ে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকের সমন্বয়হীনতা সৃষ্টি হয়েছে। রফিকুলের এই অপকর্মের হাত থেকে দিনাজপুরসহ রংপুর অঞ্চলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং শিক্ষা ব্যবস্থাকে রক্ষা ও তাদের বিরূদ্ধে কঠোর শাস্তির দাবী জানিয়েছেন সচেতন দিনাজপুরবাসি এবং জিলা স্কুলের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা।
গত ১১ জানুয়ারী মাউশির মহাপরিচালক বরাবরে দিনাজপুর জিলা স্কুল ও সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবকদের পক্ষে দেয়া এক দরখাস্ত সূত্রে জানা গেছে, দিনাজপুর জিলা স্কুলে দুই শিফটে বাংলা শিক্ষক থাকার কথা ৮ জন অথচ সেখানে রয়েছেন মাত্র ৩ জন। ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষক থাকার কথা ৪ জন, কিন্তু আছেন মাত্র একজন। আবার সমাজবিজ্ঞানসহ কয়েকটি বিষয়ে প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত শিক্ষক রয়েছে। যা স্কুলের শিক্ষার মানকে দারুনভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে ঐতিহ্যবাহী এ প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ ধ্বংসের মূখে পড়বে বলে আশঙ্কা করছেন সচেতন অভিভাবক মহল। এসব করে যিনি প্রতিষ্ঠান ধ্বংসের মত কাজ করেছেন, সেই রফিকুল আবার এ অঞ্চলে আসলে এলাকার শিক্ষার মান আর ধরে রাখা সম্ভব হবে না। তাই শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের দাবী-দূর্নীতিবাজ রফিকুলকে যেন আর এ অঞ্চলে আসতে দেয়া না হয়। সেই সাথে রফিকুলসহ তার দুই সহযোগীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়।
ওই আবেদন সুত্রে আরো জানা যায়, রংপুরে মাউশির উপ-পরিচালক পদে (ভারপ্রাপ্ত) থাকাকালেও তিনি একাধিক নারী কেলেঙ্কারীর ঘটনায় জড়িয়ে পড়েন। এমন একটি ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় তাকে উপ-পরিচালক পদ থেকে সরিয়ে নেয়া হয়। সেইসাথে শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও অভিযোগ তো রয়েছেই। বিশেষ করে ২০০৮ সাল হতে ২০১১ সাল পর্যন্ত এই অঞ্চলে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগের ঘটনাগুলো এর প্রকৃষ্ট প্রমাণ। এ ক্ষেত্রে জেলার বিরামপুর, হাকিমপুর, নবাবগঞ্জ ও ঘোড়াঘাট উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি, শিক্ষক, সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদদের হাতে যথেষ্ট প্রমাণ বিদ্যমান রয়েছে।
দুর্নীতিবাজ রফিকুল ইসলাম ২০১১ সালের শেষার্ধে মাউশি রংপুর অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পান। তবে কাগজেপত্রে তিনি “ভারপ্রাপ্ত” কথাটি লিখতেন না, যা চাকরি বিধির সম্পূর্ণ পরিপন্থী। এছাড়া বিভিন্ন সময় তিনি শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে বিভিন্ন কৌশলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এ রকম একটি কৌশল হলো, শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে ঋণ নেয়া। ঋণ নিয়ে তা আর পরিশোধ করতেন না। কেউ তার অন্যায় আবদার না রাখলে তিনি বিভিন্ন উপায়ে এমনকি ভুয়া নারী নির্যাতন মামলা দিয়েও তাকে শায়েস্তা করতেন।
রফিকুল ইসলামের নিকট নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন দিনাজপুর জিলা স্কুলের শিক্ষক আব্দুল মোত্তালেব, বিদ্যুৎ কুমার কবিরাজ, হারুন উর রশিদ, হিমাংশু কুমার, হাফিজুর রহমান, দীপক কুমার সিংহ, দুররুল আনাম সিদ্দিকী, আনোয়ার হোসেন, সুভাস চন্দ্র অধিকারী, তছলিম উদ্দীন, মেহেদী মাসুম চৌধুরী, আহমেদ শরিফ, আব্দুল বারী, কর্মচারী ওবায়দুল্লাহসহ অনেক শিক্ষক ও কর্মচারী। তিনি (রফিকুল ইসলাম) শিক্ষক-কর্মচারীদের হেনস্তা করে একের পর এক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করে চলেছেন। তিনি দিনাজপুর জিলা স্কুল, সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন সরকারী বিদ্যালয় থেকে শিক্ষক-কর্মচারীদের হয়রানীমূলক দুরদূরান্তে বদলী করেছেন। যারা বদলী হননি তারাও আতঙ্কে ছিলেন।
বিশ্বস্থ সুত্রে জানা যায়, রফিকুলের এই সকল কু-কর্মে সহায়তা করছেন বাংলা হিলি সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সদ্য সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও বর্তমানে বিভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে বীরগঞ্জ সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে বদলীকৃত মো. রেজাউল আলম উজ্জল ও দিনাজপুর জিলা স্কুলের সহকারী শিক্ষক মো. তাজুল ইসলাম। তাদের সহযোগিতায় অবৈধভাবে অর্জিত কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন রফিকুল ইসলাম।
এদিকে বাংলাদেশ স্কাউটস’র আঞ্চলিক অফিসে স্কাউটস নেতৃবৃন্দের করা লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ স্কাউটস রংপুর বিভাগের কমিশনারের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সরকারের লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তদন্তে তার বিরূদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তার এই দুর্নীতির খবর বেশ কয়েকটি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এ সময় তিনি ভুয়া রশিদ ছাপিয়ে রংপুর অঞ্চলের বিভিন্ন মাদরাসার স্কাউটস-এর চাঁদা আদায় করেছেন। তার এসব দুর্নীতির ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি তদন্ত করেছেন। ওই তদন্তে তার বিরূদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।
রফিকুলের এসব দুর্নীতি, অনিয়ম এবং নির্যাতন-নিপীড়নের সম্পর্কে জানতে পেরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব এনামুল কাদের খান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে গত ১৩ নভেম্বর-১৪ তারিখে পিরোজপুর জেলার কাউখালী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে বদলী করা হয়। কিন্তু বদলীকৃত স্থানে তিনি তার দায়িত্ব পালন করছেন না। পরিবর্তে তিনি মন্ত্রনালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে ঘোরাফেরা করছেন। যাতে করে তিনি আবারো দিনাজপুর বা রংপুরে পূর্বতন পদে বদলী হয়ে আসতে পারেন। তার দুষ্কর্মের মদদদাতারা প্রকাশ্যেই ঘোষণা করে চলেছেন যে, তিনি অচিরেই আবারো দিনাজপুর বা রংপুরে ফিরে আসছেন। আর এজন্যই ওই ঘোষণাকে দুঃসংবাদ হিসেবে নিয়েছেন এতদঞ্চলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকেরা। তারা এই দুর্বৃত্তচক্রের অপতৎপরতা রোধে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু কার্যকর পদক্ষেপ প্রত্যাশা করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ