• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০২:২২ অপরাহ্ন |

পার্বতীপুর তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের খাল খনন কাজ বন্ধ

Parbatipur Photoএকরামুল হক বেলাল: পার্বতীপুরে অধিগ্রহনকৃত জমির টাকা না পাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকরা তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের সেচ খাল খনন কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।
শনিবার নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের জলঢাকা পওর শাখা-৫ এর শাখা কর্মকর্তা শাহজাহান আলী প্রয়োজনীয় মেশিনপত্র ও লোকজন সহকারে পার্বতীপুর উপজেলার পূর্ব হুগলীপাড়ার পূর্বপার্শ্ব দিয়ে চিহ্নিত অধিগ্রহনকৃত জমিতে খাল খনন কাজ শুরু করে। এ সময় জমির মালিকদের তোপের মুখে পড়েন। এ সময় চান্দেরডাঙ্গা, পূর্বহুগলীপাড়া, দরিখামার গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের মধ্যে ২-৩শ’ নারী-পুরুষ এসে অধিগ্রহনকৃত জমির টাকা না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং বুলডোজারের সামনে দাড়ায়ে খনন কাজ বন্ধ করে দেন। ফলে কর্মকর্তা মেশিনপত্র নিয়ে স্থান ত্যাগ করে চলে যান। জমির মালিক শামসুল হক, মমিনুর রহমান, মর্তুজা আলী, আলফাজ উদ্দিন, মমেজা খাতুন, আঃ ফাত্তাহ, মশিউর রহমান, হাফিজ উদ্দিন, আরমিনা বেগম, আঃ রবসহ জানান, আমাদের জমি অধিগ্রহন করা হয়েছে, এজন্য আমরা এখন পর্যন্ত কোন চাষাবাদ করিনি। সেচ খালের জন্য অধিগ্রহন করা জমির টাকা আমাদের পরিশোধ না দিয়ে জমিতে খাল খনন কাজ করতে এসেছে, আমরা টাকা না পাওয়া পর্যন্ত জমিতে কোন কাজ করতে দিবেনা ক্ষতিগ্রস্তরা।
এ ব্যাপারে পাউবো’র কর্মকর্তা শাহজাহান আলী বলেন, স্বাবর সম্পত্তি অধিগ্রহন ও হুকুমদখল অধ্যাদেও, ১৯৮২ (২নং অধ্যাদেশ) এর ৪(৩) (এ) ধারামতে তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্প (২য় পর্যায়) ১ম ইউনিট এর অধীন বগুড়া সেচ খাল খনন ও নির্মান প্রকল্পে ০২/২০১৩-১৪ নং এল,এ কেছে পার্বতীপুর উপজেলার রামপুর মৌজার ৫৭ দশমিক ৬৯ এবং খামার জগন্নাথপুর মৌজার ১৩ দশমিক ৬০ একর জমি গত বছর চুড়ান্ত ভাবে অধিগ্রহন করা হয় এবং গত ৭ ডিসেম্বর জমি বুঝে নিয়ে সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে। এ সমস্ত জমি কেনার জন্য আমরা ইতিমধ্যে এল,এ ফান্ডে ২৮ কোটি টাকা পরিশোধ করেছি। এলাকাবাসী টাকা না পেলে আমি এর জবাব দিতে পারবো না বলে তিনি জানান।

পার্বতীপুরের একই শিক্ষক দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত!
পার্বতীপুরে এক শিক্ষক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় দু’টি শিক্ষ প্রতিষ্ঠানে চাকরী করার চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস হয়েছে।
জানা গেছে, পার্বতীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম ২০০৮ সালের ১আগস্ট মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। অপরদিকে, ২০০৩ সালের ১১ জানুয়ারী উপজেলার মধ্যপাড়া মহাবিদ্যালয়ে প্রভাষক (অর্থনীতি) পদে (যাহার স্মারক ম/ক/০৩ অফা-২-০৩, তারিখ০৯/০১/২০০৩ ইং) যোগদান করে বর্তমানেও কর্মরত রয়েছেন।
মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আমিনুল ইসলাম জানান, অভিযুক্ত শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকুরীর ফাঁকে ফাঁকে দীর্ঘ দিন থেকে মধ্যপাড়া মহাবিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষাদান করে আসছেন। অজ্ঞাত কারণে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিষয়টি দেখেও না দেখার ভান করছেন। তবে তিনি সভাপতি হিসেবে খুব তাড়াতাড়ি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির মিটিং ডেকে রেজুলেশনের মাধ্যমে বিষয়টি সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মহোদয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করবেন। অন্যদিকে, মধ্যপাড়া কলেজের অধ্যক্ষ ওবায়দুর রহমান জানান, একই ব্যক্তি দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরীর বিষয়টি নিয়ে তিনি কলেজ গভর্নিং বডির আলোচনায় বার বার আপত্তি করার পরেও আইনগত কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কলেজের গভর্ণিং বডি।
অপরদিকে, সংশ্লিষ্ট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালাহ্ উদ্দিন রব্বানী জানান, প্রতিদিন সকাল ১১টার দিকে তিনি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে হাওয়া হয়ে যান। পরে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারি তিনি পার্শ্ববর্তী মধ্যপাড়া কলেজে শিক্ষকতা করেন। সহকারী উপজেলা শিক্ষা  অফিসার রুহুল আমীন প্রধান বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত আছি। তবে লিখিত অভিযোগ পেলে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এব্যাপারে রবিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার একরামুল হক এর কাছে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম বলেন, দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করলেও তিনি একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে কোন বেতন ভাতা উত্তোলন করেন না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ