• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ১২:৫৮ অপরাহ্ন |

তিস্তায় পানি প্রবাহ দুইশত কিউসেকে নেমেছে

tista_bg_473290136সিসি নিউজ: উজানের পানি সংকটের কবলে পড়ে তিস্তা নদী মরুভুমিতে পরিনত হয়েছে। এতে ভয়াবহ পানি সংকটের কবলে পড়েছে দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ। এদিকে চাহিদা অনুযায়ী সেচ পাচ্ছেননা তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্প কমান্ড এলাকার কৃষকরা। তিস্তা নদীর পানি বন্টন চুক্তি থমকে রয়েছে। এ অবস্থায় স্বল্প পানির প্রবাহের উপর ভর করে চলতি রবি ও খারিপ-১ মৌসুমে তিস্তা ব্যারাজের মাধ্যমে সেচ কার্যক্রম ২১ জানুয়ারী শুরু করা হয়েছিল।

তবে এবার সেচ প্রদানে রংপুর ও দিনাজপুর জেলার কমান্ড এলাকাকে সেচ সুবিধা থেকে বাদ রেখে সেচ প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়। কৃষকদের চাহিদা অনুযায়ী সেচ নির্ভর বোরো আবাদে পানি দিতে পারছেন না সংশ্লিষ্টরা। ফলে সেচের জন্য তিস্তা ব্যারাজের কমান্ড এলাকার কৃষকরা পানির জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। তিস্তার নদীর উজান ও সিল্টট্রাপ খনন না হওয়ায় কারনে পলি জমে ভরাট হয়েছে। গত ২১ জানুয়ারী সেচ ক্যানেলে পানি সরববাহের সময় তিস্তার পানি প্রবাহ ৯শ কিউসেক থাকলেও রবিবার তা ৪ কিউসেক কমে ৫শ কিউসেকে এসে দাঁড়ায়। আজ বুধবার সেই পানি প্রবাহ আরও ৩শত কিউসেক কমে এখন দাড়িয়েছে ২শ কিউসেকে। নির্ভরযোগ্য সুত্র মতে সম্ভাবনা জাগিয়েও বারবার থেমে থাকছে তিস্তা নদীর পানি বন্টন চুক্তি। চুক্তি বাস্তবায়ন না থাকায় বিগত সময়ের ন্যায় এবারো চলতি মৌসুমে নদীর পানি হ্রাস পেয়ে চলেছে। তিস্তার ব্যারেজের ৫২টি স্লুুইচ গেটে সুইচ গেট বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে নদীর উজান ও ভাটিতে বিশাল বালুর চর পড়েছে। উজানে একটি সরু ক্যানেলে শুধূ মাত্র পানি লক্ষ্য করা যায়।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত কয়েক বছর এই মৌসুমে নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার ৬৫ হাজার হেক্টরে সেচ সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। কিন্তু এবার তিস্তা নদীর পানি প্রবাহ দিন দিন কমতে থাকায় গত বছরের চেয়ে এবারের চলতি রবি ও খারিপ-১ মৌসুমে সেচ প্রদানে জমির পরিমান ৩৭ হাজার ৫শত হেক্টর কমিয়ে আনা হয়। এতে দিনাজপুর ও রংপুরের কমান্ড এলাকা সেচ কার্য্যক্রম থেকে বাদ দিয়ে শুধু মাত্র নীলফামারী জেলার ডিমলা, জলঢাকা, নীলফামারী সদর ও কিশোরীগঞ্জ উপজেলার ২৮ হাজার ৫শত হেক্টর জমিতে সেচ প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। কিন্তু এখন লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী কৃষক সেচ পাচ্ছেন না।

তিস্তা বাঁচাও রক্ষা কমিটির সভাপতি ও খালিশা চাপানির কৃষক আতাউর রহমান জানায়, তিস্তা সেচ ক্যানেলের মাধ্যমে নামে মাত্র পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। প্রধান ক্যানেলে পানি না থাকায় সেচ ক্যানেলের উপকারভোগীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। এস ওয়ান টি সেচ ক্যানেলের সভাপতি আমিনুর রহমান জানায়, তাদের ক্যানেলের ৭শ হেক্টর জমির মধ্যে মাত্র ৩শ হেক্টর জমিতে সেচ পেয়েছে। অবশিষ্ট জমিতে পানি দিতে না পারায় চারা রোপন করতে পারছে না কৃষক। ফলে চরম বিপাকে পড়েছে তারা। সহ-সভাপতি সাহিদুল ইসলাম শেফা জানায়, নদীর পানি যেভাবে কমতে শুরু করছে তাতে কমান্ড এলাকার কোন জমি হয়তো আর সেচ পাবেনা।

তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পের সম্প্রসারন কর্মকর্তা রাফিউল বারী জানান, উজানের পানি প্রবাহ কমতে থাকায় তিস্তা ব্যারাজের কমান্ড এলাকায় সম্পুরক সেচ কার্যক্রম পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পড়ছে। বর্তমানে তিস্তার পানি প্রবাহ বিষয়ে সম্প্রসারন কর্মকর্তা রাফিউল বারী বলেন, গত এক সপ্তাহ আগে তিস্তা নদীতে পানির প্রবাহ ৯ কিউসেক থাকলেও বুধবার আশংকাজনকভাবে পানি কমে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ