• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন |

পাক-ভারত ম্যাচের টিকিট শেষ ২০মিনিটেই

image_116306_0খেলাধুলা ডেস্ক: ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের টিকিট শেষ মাত্র ২০মিনিটে! মঙ্গলবারের এই পরিসংখ্যানই বলে দিচ্ছে আসন্ন বিশ্বকাপে বাকি দলগুলিকে পিছনে ফেলতে পারে এশিয়ার যুযুধান দুই মহাশক্তিকে ঘিরে দর্শকদের উন্মাদনা।
১৪ ফেব্রুয়ারি ঘণ্টা বাজছে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের। ঠিক পরের দিনই অ্যাডিলেড ওভালে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে গতবারের চ্যাম্পিয়ন ভারত। ধোনি-মিসবাহদের লড়াই দেখার জন্য উদগ্রীব ক্রিকেট মহল। সেই উন্মাদনা এতোটাই যে মঙ্গলবার টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার মাত্র ২০মিনিটের মধ্যেই নিঃশেষ সমস্ত টিকিট। মাঠ এবং টেলিভিশন মিলিয়ে প্রায় ১৩০ কোটি দর্শকের চোখ থাকবে পাক-ভারত ম্যাচের দিকে। ফলে দুই দলের খেলোয়াড়দের উপরেই থাকবে অসীম স্নায়ুচাপ। আসন্ন সেই মহাদ্বৈরথের আঁচ এখনই ভালো মতো অনুভব করতে পারছেন শোয়েব আখতার, ইনজামাম-উল হক, হরভজন সিংরা।
একটি টিভি চ্যানেলের টক শো-তে অংশ নিয়ে প্রাক্তন পাক ফাস্ট বোলার আখতার বলেন, ‘অনেকের কাছে এটা বিশ্বকাপের চেয়ে বেশি কিছু। বিশ্বের একশো কোটির অধিক দর্শক খেলাটি দেখবে। এমন ম্যাচে খেলোয়াড়দের টেনশন যেমন বেশি থাকে, তেমনি প্রত্যেক খেলোয়াড়ের প্রচেষ্টার মাত্রাও থাকে দ্বিগুন। আমরা বিশ্বকাপে ভারতকে একবারও হারাতে পারিনি। কিন্তু সব ঠিক থাকলে সেই রেকর্ড এবারই বদলাতে পারে।’

তবে প্রতিপক্ষ দলে ধোনির মতো অধিনায়ক থাকায় মিসবাহদের কাজটা সহজ হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি। ‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’-এর কথায়, ‘আমি এমন কয়েকজন অধিনায়ককে জানি, যারা চাপের মুখে দলকে সামনে রেখে পালিয়ে যায়। ধোনি সেই দলে পড়ে না। ও হলো সেই ব্যক্তি যে প্রবল চাপের মুখে নিজেকে সামনে দাঁড় করিয়ে দলকে আড়াল করে। ওর জন্যই ভারত বিশ্বকাপে প্রবল ভাবে রয়েছে।’ প্রায় একইরকম মন্তব্য করেছেন আর এক পাক কিংবদন্তি ইনজামাম উল হকও। তার মতে, ‘বিশ্বকাপে ধোনিই ভারতের প্রধান টেক্কা। আমার ধারণা, ওর দুরন্ত নেতৃত্বেরই জন্যই ভারত এগিয়ে। অভিজ্ঞতার দাম আছে। তা ছাড়া চাপের মুখে ধোনির ঠাণ্ডা মস্তিষ্ক দলের উপর থেকে অনেকটাই চাপ কমিয়ে দেয়। তবে আমার বিশ্বাস, এবার পাকিস্তান দলও যথেষ্ট ভাল পারফরম্যান্স মেলে ধরবে। আর সে জন্য ভারতের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে জেতাটা অত্যন্ত জরুরি।’
গত বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পাকিস্তানকে হারিয়ে ভারতের ফাইনালে ওঠার অন্যতম কারিগর হরভজন সিং ১৫ ফেব্রুয়ারির ম্যাচ নিয়ে এখনই উত্তেজনা অনুভব করছেন। ভাজ্জি বলেন, ‘দুই দলের খেলার সময় ড্রেসিং রুমের পরিবেশটাই থাকে উত্তেজনার পারদে ঠাসা। খেলা শুরু হওয়ার ঢের আগে থেকেই দু’দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে বিভিন্ন চিন্তা ভিড় করতে থাকে। যেমন মোহালিতে ২০১১-র সেই সেমিফাইনালের আগের রাতে আমি ঘুমোতেই পারিনি। শুধু একটাই চিন্তা হচ্ছিল, যদি হেরে যাই তবে কী হবে! তাই ম্যাচটা জেতার পর এক অদ্ভুত স্বস্তিবোধ হচ্ছিল।’
গত বিশ্বকাপজয়ী দলের আর এক সদস্য পীযূষ চাওলা জানান, পাকিস্তানের মুখোমুখি হওয়ার আগে সব দিক থেকেই বিশাল চাপ থাকে। চাওলা বলেন, ‘চাপ সব দিক থেকেই থাকে। এমনকি পরিবারের সদস্য ও বন্ধুবান্ধবরা পর্যন্ত মনে করিয়ে দিতো যে এটা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে খেলা। বাউন্ডারির কাছাকাছি ফিল্ডিং করতে গেলে বোঝা যায় দর্শকরা কিভাবে গলা ফাটাচ্ছে। তাতে চাপের মাত্রা দ্বিগুণ হয়ে যায়।’
বিশ্বকাপের ইতিহাসে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে এখনও অপরাজেয় ভারত। কি হবে ১৫ ফেব্রুয়ারি! ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি, নাকি পাকিস্তানের নতুন ইতিহাস রচনা! সেই উত্তরের জন্য বিশ্বজুড়ে এখনই শুরু হয়ে গিয়েছে প্রহরগণনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ