• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:১১ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাটে মরা গরুর মাংস জব্দ

Atokরাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বুধবার রাত ৮টার দিকে বাড়ির আঙ্গিনায় মরা গরুর মাংস প্রস্তুত করার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর মো. আব্দুল লতিফ সিদ্দির্কী ঘটনাস্থলে পৌঁছে মাংসগুলো জব্দ করেছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার উমর মজিদ ইউপি’র ঘুমারু ভীমশীতলা এলাকায় গরু ব্যবসায়ী জামাল উদ্দিনের বাড়িতে। খবর পেয়ে রাজারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার পূর্বেই অভিযুক্তরা সটকে পড়ে এবং মাংসগুলো উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরে রাতেই উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর মো. আব্দুল লতিফ সিদ্দির্কী বাদী হয়ে জামাল উদ্দিনকে প্রধান আসামী করে ৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল মোতালেব সরকার বলেন, যেহেতু থানা পুলিশ মাংসগুলো জব্দ করেছে, এখন আইনগত ব্যবস্থা পুলিশ গ্রহণ করবে বলে তিনি জানান। রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুর রশিদ বলেন, রাতেই অভিযোগ পাওয়ার পর বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্তপূর্বক বৃহস্পতিবার সকালে মামলাটি রেকর্ডভূক্ত করা হয়েছে। যার মামলা নং-০৪, তাং-০৫-০২-২০১৫ ইং। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। উল্লেখ্য যে, এলাকার একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জামাল উদ্দিন গরু কেনা-বেচার অন্তরালে মাঝে মধ্যে মোটাজাত করণের নামে গবাদি পশুকে অতিরিক্ত মাত্রায় ইনজেকশন পুশ করার ফলে প্রতি মাসে দু’চারটি করে গরু মারা যায় এবং সেগুলো রাতের আঁধারে মরা গরুর মাংসগুলো প্রস্তুত পূর্বক একই ইউপি’র মুক্তপাড়া এলাকার জনৈক মাংস ব্যবসায়ী (কসাই) শামছুল হকের নিকট ওই মাংসগুলো সরবরাহ করে থাকে। নাম না প্রকাশ করার শর্তে এক যুবক এ প্রতিবেদককে বলেন, বুধবার রাতেই ওই মাংসগুলো কসাই শামছুল হকের নিকট পাঠানোর কথা ছিল। প্রায় রাতেই ওই বাড়িতে গরু জবাই করা হয়ে থাকে। এ বিষয়ে মাংস ব্যবসায়ী শামছুল হকের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ