• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৪:০৯ অপরাহ্ন |

ছাগল পালনে বদলে দিল আয়শার জীবন

হাবিবুর রহমান, চিলমারী (কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের চিলমারীর বজরাদিয়ার খাতা গ্রামের আয়শার ভাগ্যের পরিবর্তন এনে দিল আই এ পি পি প্রকল্পের সহযোগীতা, প্রশিক্ষন ও ছাগল পালনে। সমাজকে তাক লাগিয়ে অভাবে দুর করার চেষ্টায় এই নারী। চার চারবার নদী ভাঙ্গনের পর পরিবার পরিজন নিয়ে পড়েছিল মহা বিপাকে। দাঁড়িয়ে ছিলেন রাস্তায়। সংসারে সব সময় অভাব-অনটন লেগেই থাকত। তিন বেলার মধ্যে কোনোদিন দুই বেলা, কোনোদিন এক বেলা এমনকি কোনোদিন না খেয়ে থাকতে হতো পরিবারের সদস্যদের। আর বর্তমানে হতদরিদ্র সেই আয়শা আইএপিপি প্রাণী সম্পদ এর প্রশিক্ষন, আর্থিক সহযোগিতায় ও ছাগল পালন করে আজ স্বাবলম্বী হয়েছেন। সমাজে তার বেড়েছে মর্যাদা। পরিচিতি পেয়েছেন একজন স্বাবলম্বী নারী হিসেবে। ছাগল বিক্রির টাকায় স্বামীকে ব্যবসার পুঁজি দিয়েছেন, সন্তানদের লেখাপড়া করাচ্ছেন। ঠিক মতো তিন বেলাও খেতেও পারছেন। একটু চিন্তা কঠোর পরিশ্রম আর আইএপিপি প্রাণী সম্পদ এর আর্থিক সহযোগীতার মাধ্যমেই আজ তিনি এ অবস্থানে এসেছেন বলে আয়শা জানিয়েছেন। তার সাফল্য দেখে এলাকার অন্যরাও ছাগল পালনে উৎসাহী হচ্ছেন। আয়শা জানান,  নদী ভাঙ্গনে তারা সর্বশান্ত হয়ে পড়েছিল। সংসারে অভাব ছিল নিত্যসঙ্গী। সর্বহারা দিনমজুর স্বামীর রোজগারের টাকায় সংসার চলত না। এ সময় পরিবার-পরিজন নিয়ে তাকে খেয়ে না খেয়ে থাকতে হতো। এসময় তার ভাই একটি ছাগল উপহার হিসাবে দেয় এই ছাগল আর আই এ পিপি প্রকল্প আল্লাহ্র রহমতে তার ভাগ্যের চাকা ঘুরে দেয়। ঠিক সেই সময় উপজেলা প্রাণী সম্পদ এগিয়ে আসে তার দিকে ছাগল পালনের জন্য আইএপিপি প্রাণী সম্পদ প্রকল্পের ৬ হাজার ৯৫০ টাকা দিয়ে শুরু হয় তার যাত্রা। ধীরে ধীরে ছাগলের পরিমাণ বাড়তে থাকে। ছাগলগুলো যতেœর সঙ্গে পালন করতে থাকেন। এরপর থেকে আর তাকে পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। এতিমধ্যে বেশ কয়েকটি ছাগল বিক্রি করে ঘর তৈরি প্রয়োজনীয় কাজকর্মসহ স্বামীকে ব্যবসার কাজে লাগিয়ে দিয়েছেন। কয়েকদিন আগেও কয়েকটি ছাগল বিক্রি করে স্বামীর ব্যবসার পুজি বাড়িয়ে দেন। বর্তমানে তার ১০টি ছাগল রয়েছে। দুই মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে লাজিয়া ৬ষ্ট ও ছোট মেয়ে লাব্যন্য ১ম শ্রেনীতে পড়ে। বড় মেয়ে লাজিয়া জানান, তারা বর্তমানে খুব সুখে আছে। উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, আইএপিপি প্রাণী সম্পদ প্রকল্পের অধিনে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত হয়ে উন্নতি প্রযুক্তি ব্যাবহার করে আয়শাসহ অনেক ছাগল পালনে স্বাবলম্বি হয়েছেন। পাশাপাশি দারিদ্র বিমোচন সহ আয় রোজগারের পথ তৈরি হয়েছে অনেকের। তাদের এই কার্যক্রম দেখে আরো অনেকে উৎসাহ হয়ে ছাগল পালনের কার্যক্রম শুরু করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ