• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১২:১৮ পূর্বাহ্ন |

পার্বতীপুরে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি অভিযোগ

pic 1একরামুল হক বেলাল: পার্বতীপুর উপজেলার মোস্তফাপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা ও ক্ষমতার অপব্যাহারের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে সংশি¬ষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা দিনাজপুর জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার ৭নং মোস্তফাপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইউনিয়ন পরিষদের শৃঙ্খলা নষ্ট করে ইউনিয়ন পরিষদকে নিজের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছেন। চেয়ারম্যান ইউপি সদস্যদের ও সচিবকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে স্বেচ্ছাচারিতার আশ্রয় নিয়ে নিজের ইচ্ছামত পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তার এসব কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করলে তাদের বিরুদ্ধে উল্টো অভিযোগ তুলে হয়রানী করার চেষ্টা করেন। ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের কয়েকটি নিম্নে তুলে ধরা হলো-বর্তমান অর্থবছরে ইউনিয়ন পরিষদের নামে দান জমি খরিদ দেখিয়ে উপজেলা হতে প্রাপ্ত ৫% টাকার পুরোটাই আত্মসাৎ করেছেন। এলজিএসপি-২ প্রকল্প হতে গৃহীত বিভিন্ন স্থানে বিতরণকৃত আরসিসি ডায়া পাইপগুলো এডিপি প্রকল্প দেখিয়ে বরাদ্দের সমুদয় টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তিনি ইউনিয়ন পরিষদের রাজস্ব আয়ের ব্যয়কৃত টাকার বিল-ভাউচার অফিসে জমা দেন না, ইউনিয়ন পরিষদের যৌথ একাউন্ট ব্যবহার না করে রাজস্ব আয়ের কোন টাকা ব্যাংকে জমা দেন না, নিয়মিত অফিসে আসেন না, মাসিক সভা ও গ্রাম আদালত পরিচালনা করেন না।
উপজেলা হতে প্রাপ্ত ১% ও ৫% টাকা ইউনিয়ন পরিষদের একাউন্টে জমা না করে নিজস্ব একাউন্টে জমা করে সেই টাকা নামমাত্র প্রকল্প ব্যয় দেখিয়ে আত্মসাৎ করেন। একই প্রকল্প দুই জায়গায় দেখিয়ে সেই প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। যেমন “পুতুবপুর কবরস্থানের প্রাচীর নির্মাণ” ও “কুতুবপুর চেয়ারম্যানের মিলের কাঁচা রাস্তা হতে কবরস্থান পর্যন্ত মাটি ভরাট” উলে¬খিত প্রকল্প দু’টি টিআর প্রকল্প ও কাবিটা প্রকল্পে দেখিয়েছেন।
বিগত ২০১৩-২০১৪ অর্থবছরে হাট-বাজার হতে প্রাপ্ত ১৫% এর অনুকূলে ২২টি প্রকল্প গ্রহন করলেও পরিষদকে জানানো হয় মাত্র ১৩টি প্রকল্পের কথা। বাকী প্রকল্পগুলো ২০১২-০২০১৩ অর্থবছরের প্রকল্প দেখিয়ে প্রকল্পের সভাপতি রেজওয়ানুক হক দুলু ও সদস্য সাজ্জাদ হোসেনের সহযোগিতায় সমুদয় টাকা আত্মসাৎ করেছেন। প্রমান স্বরুপ কয়েকটি প্রকল্প উলে¬খ করা যেতে পারে যেমন-আমবাড়ী হাটের ৪টি নলকূপ স্থাপন ও ড্রেন নির্মাণ, আমবাড়ী হাটের পুরাতন লেট্রিন সংস্কার, আমবাড়ী হাটের উত্তর, পূর্ব ও পশ্চিম পাশের পুকুরের মাটি ভরাট ইত্যাদি। তার বিরুদ্ধে এমন অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগে ইউপি সদস্যরা আরো জানান, বর্তমান চেয়ারম্যান একজন অর্থলোভী, দুর্নীতি পরায়ন, অসৎ, আইনের প্রতি অশ্রদ্ধাশীল ব্যক্তি। তিনি আইনের কোন তোয়াক্কা না করে ইউনিয়ন পরিষদের শৃঙ্খলা নষ্ট করেছেন। তার এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে ইউপি সদস্য ও সবিচ কোন প্রতিবাদ করলে তাদের বিরুদ্ধে উল্টো অভিযোগ তুলে হয়রানী করার চেষ্টা করেন। এতে জনগণকে কাঙ্খিত সেচা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। ইউপি সদস্যরা ইউনিয়ন পরিষদের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে ও পরিষদকে সুষ্ঠ’ভাবে পরিচালনার জন্য বর্তমান চেয়ারম্যানের এসব দুর্নীতি, অনিয়মের তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন। ওই অভিযোগে স্বাক্ষর করেছেন ইউপি সদস্য মোছা. রহিমা বেগম, মাজেদা বেগম, মো. জিন্নাহ আলী শাহ,, মো. মামুনুর রশিদ, শ্রীমতি চারু বালাসহ ৯ জন সদস্য।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ