• রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন |

… তিস্তায়ও আস্থা রাখুন- মমতা

momotaসিসি নিউজ: বাংলাদেশ ও ভারতের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের উপস্থিতিতে শুক্রবার ঢাকায় এক আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি বলেছেন, দুই দেশের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর কারণে ‘ভুল বোঝাবুঝি’ দূর করতে তিনি সেতু হিসাবে কাজ করবেন।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আগের দিন ঢাকায় আসা তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রীর সঙ্গে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের এই অনুষ্ঠানের নাম ছিল ‘বৈঠকী বাংলা’।

পশ্চিমবঙ্গের বিরোধিতায় ছিটমহল বিনিময় ও তিস্তা চুক্তি নিয়ে জটিলতার দিকে ইংগিত করে নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার বলেন, দুই দেশের মধ্যে সৃষ্টি হওয়া ‘ভুল বোঝাবুঝির’ অবসানে মমতার এই সফর ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশা করেন।

নাট্যবক্তিত্ব আলী জাকেরও একই বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি বলেন, “আপনার মধ্য দিয়ে বাংলা খুঁজে পাই, বাঙালি খুঁজে পাই। আপনি রাজনৈতিক মতপার্থক্য ঘোচানোর চেষ্টা করবেন, আপনি সেতু হিসাবে কাজ করবেন।”

সবার বক্তব্যের পর জবাব দিতে দাঁড়িয়ে পরে মমতা বলেন, “নিশ্চই রাখব। আমি সেতু হিসাবে ভূমিকা রাখব।

“আমি অতি ক্ষুদ্র লোক, মাটির মানুষ। আমার দিক থেকে এলবিএ’র (স্থল সীমান্ত চুক্তি) প্রবলেম সলভ করে দিয়েছি।… তিস্তায়ও আস্থা রাখুন।

“আমাদের প্রবলেম আছে, আপনাদেরও প্রবলেম আছে। আমি হাসিনাদির সাথে আলোচনা করব। আমাদের ওপর ছেড়ে দিন। এটা নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না।”

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আস্থা রাখতে বললেও তার বিরোধিতার কারণেই ২০১১ সালে তিস্তা চুক্তি হতে হতেরও আটকে যায়।

ভারতের তখনকার প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে সফরে আসার কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে নিজেকে সরিয়ে নেন মমতা। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গের মানুষের ‘স্বার্থের বিরুদ্ধে গিয়ে’ এই চুক্তিকে তিনি সমর্থন করতে পারেন না।

মনমোহনের সেই সফরে স্থল সীমান্ত একটি চুক্তির প্রটোকল সই হয়, যার মধ্য দিয়ে ১৯৭৪ সালের ইন্দিরা-মুজিব চুক্তি অনুযায়ী দুই দেশের ১৬২টি ছিটমহল বিনিময়ের পথ খোলে।

কিন্তু এই প্রটোকল কার‌্যকর করতে ভারতের সংবিধান সংশোধন প্রয়োজন হওয়ায় বিষয়টি ঝুলে থাকে মমতার দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরোধিতার কারণেই।

ভারতের নতুন সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশের কাছে গুরুত্বপূর্ণ এই দুটি বিষয় ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখতে শুরু করলে জট খোলার আশা তৈরি হয়। তার উদ্যোগে সম্প্রতি স্থল সীমান্ত চুক্তি কার্যকরে মমতার সরকারের সায় পাওয়া যায়। বিষয়টি এখন ভারতের পার্লামেন্টে অনুমোদনের অপেক্ষায়।

গতবছর শেষ দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করে তিস্তা চুক্তি সইয়ের বিষয়েও জোর চেষ্টা চালানোর আশা দেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বৈঠকী বাংলা অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী দুই দেশে বহমান পদ্মা, মেঘনা, গঙ্গা, যমুনাকে উল্লেখ করেন ‘আমাদের সবার নদী’ হিসাবে। তিনি বলেন, “কেউ ভাগাভাগি করতে চাইলেও পারবে না।”

মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে সেই সফর থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা স্মরণ করে মমতা বলেন, “আগেরবার আসতে চেয়েও ফিরে যেতে হয়েছিল। কিছু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। অনেকেই অনেক কিছু প্লে করে। আমরা কিছু প্লে করতে চাই না।”

তার কথায়, দুই বাংলার মানুষের ‘হৃদয়টা একই ভাষার, সব হৃদয়ে একই ভাষা’।

“ব্যাগ গুছানোর আগে চিন্তা ছিল, আবার যেন কোনো বাধা না আসে। কিন্তু সব বাধা ভেঙে যেহেতু এসেছি, তখন সব বাধা ঘুচে যাবে। দিস ইজ এ নিউ বিগিনিং।”

সবার সঙ্গে আলোচনায় যাওয়ার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশিদের ভূয়সী প্রশংসা করেন ভারতের তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী।

“আমাদের সম্পর্ক খুব সুন্দর, একেবারে সাজানো সম্পর্ক। কোনো বাধা আমাদের থাকবে না। মনের বাঁধন কখনো আটকে রাখা যায় না। মনের দরজাটা খুলে দিতে হবে।”

সবাইকে নমস্কার, সালাম ও প্রণাম জানিয়ে অভিবাদন জানানোর পাশাপাশি ‘জয় বাংলা’ বলে দেশের সব শ্রেণী পেশার মানুষকে খোলামেলা মতবিনিময়ে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

“আমি আপনাদের শুনব, আপনাদের প্রশ্নের জবাব দেব। সব কথা তো বলতে পারি না, যতটুকু পারি উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।”

সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ছাড়াও মমতার সফরসঙ্গী হিসাবে ঢাকায় আসা চলচ্চিত্র পরিচালক গৌতম ঘোষ, চলচ্চিত্র তারকা প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, তৃণমূলের এমপি অভিনেতা দীপক অধিকারী দেব এবং কণ্ঠশিল্পী নচিকেতা অনুষ্ঠান মঞ্চে মমতার পাশে ছিলেন।

আর তৃণমূলের এমপি অভিনেত্রী মুনমুন সেন, অভিনেতা ইন্দ্রনীল সেন, কবি কাজী নজরুল ইসলামের নাতি অরিন্দম কাজীর স্ত্রী কল্যাণ কাজী, কবি সুবোধ সরকার, পশ্চিমবঙ্গের পর্যটনমন্ত্রী চলচ্চিত্র পরিচালক ব্রাত্য বসু ছিলেন সামনে অতিথিদের সারিতে।

বাংলাদেশের ব্যক্তিত্বদের মধ্যে ছিলেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতা নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, ররীন্দ্র সংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীর।

হোটেল সোনারগাঁয়ে এ অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন ঢাকায় ভারতের হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণ। দুই দেশের শিল্পীদের কণ্ঠে দুই দেশের জাতীয় সংগীতে শেষ হয় মমতার বৈঠকী বাংলা।

উৎস: বিডি নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ