• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুর ‘শান্তি নিবাসের’ (বৃদ্ধাশ্রমের) বাসিন্দারা কেমন আছেন

Dinajpur Shanti Nibash Picমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: জীবনের নতুন ঠিকানা খুজে পেয়েছেন আব্বাস, আইয়ুব, জিতেন, যোগেন, শরীফারা। জীবন সায়াহ্নে এসে যাদের নাতি-নাতনীদের নিয়ে ঘরে বসে সুখে শান্তিতে থাকার কথা তাদের ঠাই হয়েছে বৃদ্ধাশ্রম শান্তি নিবাসে। তবে ছেলে-মেয়ে নাতি-নাতনীদের কথা মনে হলে চোখের কোল বেয়ে অশ্রু নেমে আসে। কেউ এসেছেন অভাব অনটনের সংসারে বোঝা হয়ে না থাকার কারণে, কেউ বা এসেছেন ছেলে-বৌমার নির্যাতন সইতে না পেরে। কারো ইচ্ছে নেই বাড়ীতে ফিরে যাওয়ার। তবুও তারা শান্তিতে আছেন শান্তি নিবাসে। অনেকে মনে করেন এটি তাদের শেষ ঠিকানা।
¬দিনাজপুর শহরের অদুরে রাজবাড়ীতে একটি ভবনে চালু করা হয়েছে বৃদ্ধাশ্রম। ২০১২ সালের ২৮ এপ্রিল শান্তি নিবাস নামে এই বৃদ্ধাশ্রম যাত্রা শুরু হয়। শুরুতে শান্তি নিবাসে আশ্রিত ছিল ২০ জন। বৃদ্ধাশ্রমে আশ্রয় নেয়া বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের বয়স ৮০ বছর থেকে ১০০ বছর পর্যন্ত।
দিনাজপুরের তৎকালীন জেলা প্রশাসক জামাল উদ্দিন আহম্মেদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিমের উদ্যোগে এই প্রতিষ্ঠানটি চালু করা সম্ভব হয়। দিনাজপুরে দানশীল ব্যক্তিদের কমতি নেই। বিভিন্ন ব্যক্তি তাদের নাম ঠিকানা গোপন রেখে সহযোগিতা করে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা এই বৃদ্ধাশ্রমের নামে ব্যাংকে আমানত রেখে সেই টাকার মাসিক মুনাফা থেকে বৃদ্ধাশ্রমে আশ্রিতদের ভরণ-পোষণ করা হয়।
দিনাজপুর জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজি’র সার্বিক তত্ত্বাবধানে বর্তমানে বৃদ্ধাশ্রমটি দেখাশোনা করেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুর রহমান। তিনি বলেন, এই বৃদ্ধাশ্রমটি চালু হওয়ার পর অনেক পরিবারের মানুষ ভাবতে শুরু করেছেন, বৃদ্ধ মাতা-পিতাকে দূরে রাখা অন্যায় কাজ। আমি মনে করি এই অনুভূতি সকলের মনে জাগ্রত হলে আমাদের শ্রম সার্থক হবে। আর পিতা-মাতারা পাবে তাদের যোগ্য সম্মান। তিনি বলেন, যারা সম্মান না দিয়ে দূরে ঠেলে দেয় তারা হীন মানসিকতার নিকৃষ্ট মানুষের পরিচয় বহন করেন।
বৃদ্ধাশ্রমের আশ্রিত বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের সেবা করতে পেরে খুবই খুশি এখানকার বৃদ্ধাশ্রমের সেবিকা ও বাবুর্চি সখিনা বেগম। প্রায় ৩ বছর ধরে কর্মরত রয়েছেন তিনি। সখিনা বলেন, পিতা-মাতার সমতুল্য মানুষের সেবা করতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করি।
বর্তমানে বৃদ্ধাশ্রমে আশ্রিতদের সংখ্যা রয়েছে ১৫ জন। তার মধ্যে ১ জন আছেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, ৩ জন বাড়ীতে বেড়াতে গেছেন আর বাকিরা এখানেই আছেন। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অটুট বন্ধন এই শান্তি নিবাস। যে যার ধর্মীয় কার্যাদি সম্পন্ন করে খাবার টেবিলে মেতে উঠেন আব্বাস-যোগেনরা খোশ গল্পে।
প্রতিবেশি আত্মীয়-স্বজন আর জগতসংসার সবকিছু পেছনে ফেলে তারা চলে এসেছেন এই শান্তি নিবাসে যেন জীবন যুদ্ধে হেরে যাওয়া পরাজিত সৈনিকের মত। তবু জীবনের বাকীপথ পারি দিতে হবে। পুরোনো স্মৃতি মনে হলেও আবেগ আপ্লুত, অনেকে প্রিয়জনের কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।
উত্তরবঙ্গে এই প্রথম শান্তি নিবাস নামে প্রতিষ্ঠিত বিদ্ধাশ্রমটির প্রতি সরকার সূ-দৃষ্টি রাখবেন এমনটাই কামনা করে দিনাজপুরবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ