• সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৯:২১ অপরাহ্ন |

পূর্বপুরুষের নাম না জানলে বিবাহ বন্ধ

11001941_919346351432733_3834327511384317691_nসিসি ডেস্ক: যেখানে পাহাড়ের চূড়া আর আকাশ চুমু খায়, সেখানে বসত করে আখা সম্প্রদায়। আখাদের দেখা যায় চীনের হুনান প্রদেশের পাহাড়ে। আরও দেখা যায় থাইল্যান্ড-লাওস-মিয়ানমারের পাহাড়চূড়ায়। সাজানো গোছানো সুন্দর বাড়ি তাদের। প্রতিবেশীদের বাড়ি আর উঠোন থেকে নিজেদেরটুকু আলাদা করা কাঠের বেড়ায়। বেড়ার এক অংশে থাকে সুদৃশ্য কাঠের দরজা। সে দরজায় মানুষ, জীবন্তপ্রাণি, প্রকৃতিদেবী আর বনদেবতার সূক্ষ্ম নকশা।

আখা সম্প্রদায়ের মানুষ ধার্মিক। তাদের ধর্মসংক্রান্ত তত্ত্ব অনেকটা সর্বপ্রাণবাদের কাছাকাছি। তবে একজন কেন্দ্রীয় মহাপ্রাণ আছেন যার নাম জাহভ। ধর্মীয় রীতিনীতিগুলো মাটি ও প্রকৃতির আচরণের সঙ্গে মিলিয়ে ঠিক করা। এসবে মাটির সঙ্গে তাদের গভীর হৃদ্যতা প্রকাশ পায়।

তাদের সামাজিক নিয়মনীতির মধ্যে বৈজ্ঞানিক ভাবনার সংমিশ্রণ ঘটেছে। গোষ্ঠীর আদি নিয়মে প্রত্যেক পুরুষকে ধারাবাহিকভাবে পঞ্চাশজন পূর্বপুরুষের নাম জানতে হয়। বিয়ে করার সময় পাত্রীপক্ষকে শোনাতে হয় নামগুলো। এ সাবধানতা এ জন্যে, যেন পাত্র-পাত্রীর পূর্বপুরুষ মিলে না যায়। যেন অজান্তে নিকটাত্মীয়ের মধ্যে বিয়ে হয়ে না যায়। তবে পূর্বপুরুষ না মেলার একটা সহনীয় সীমা আছে। পাত্র ও পাত্রীর পূর্ববর্তী অন্তত ছয় পুরুষের মধ্যে কোন সাধারণ পূর্বপুরুষ থাকতে পারবে না। ছয় পুরুষের আগে কোনো সাধারণ পূর্বপুরুষ থাকলে তা গ্রহণীয় হতে পারে।

আখাদের সবচেয়ে বড় উৎসবের নাম শাপু। উৎসবের ঐহিত্যবাহী পোশাক রয়েছে। নারী ও পুরুষ পৃথক পোশাকে উৎসবে আলো ছড়ায়। নারীদের মাথার অলংকারের কথা আলাদাভাবে উল্লেখ করার মতো। পোশাকগুলো তৈরি কঠিন কাজ বলেই মনে হয়। সুতোর ফোঁড়ে জামার সঙ্গে জুড়ে দেয়া হয় তামার বৃত্তাকার পাত এমনকি ইস্পাতের ফলা। ভালোই দেখায়।10991328_919343761432992_1352131528220117060_n


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ